প্রচ্ছদ রাজনীতি তারেকের আপত্তিতে খালেদার বিদেশ যাত্রা আটকে গেছে

তারেকের আপত্তিতে খালেদার বিদেশ যাত্রা আটকে গেছে

28
তারেকের আপত্তিতে খালেদার বিদেশ যাত্রা আটকে গেছে

উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশ যেতে চান বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। ২৫ মাস কারাভোগের পর প্রধানমন্ত্রীর অনুকম্পায় দুই দফায় মোট এক বছরের জামিনে মুক্ত আছেন বিএনপি চেয়ারপারসন। তার জামিনের প্রকাশ্য শর্তে বলা হয়েছে ‘দেশ থেকে তিনি নিজ দায়িত্বে চিকিৎসা করাবেন।’ তার জামিনের পর বিএনপির অনেক নেতাই সরকারী আদেশের সমালোচনা করেন। অনেক নেতা এই সিদ্ধান্তকে অমানবিক বলেন এসব সমালোচনার প্রেক্ষিতে মুখ খোলেন আইনমন্ত্রী এডভোকেট আনিসুল হক। তিনি বলেন, ‘বেগম জিয়া তার আবেদনে কোথাও উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার কথা বলেননি।’ এরপর সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়, বেগম জিয়া বিদেশ যেতে চাইলে, আবার নতুন করে আবেদন করতে পারেন। সরকার আবেদন পাওয়ার পর বিষয়টি দেখবে।’ কিন্তু বেগম জিয়া তার পরিবারের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত বিদেশ যাবার ব্যাপারে কোন আবেদন করা হয়নি।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, তারেক জিয়ার আপত্তির কারণেই, বিদেশ যাওয়া হচ্ছে না বেগম জিয়ার। বেগম জিয়ার পরিবারের সূত্রে জানা গেছে, নতুন করে দ্বিতীয় দফায় আবেদনের সময় বিদেশে চিকিৎসার বিষয়টি বিবেচনা করা হয়েছিল। সে সময় বেগম জিয়ার ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দার লন্ডনে তারেক জিয়ার সঙ্গে যোগাযোগও করেছিলেন। তারেক জিয়া বলেছিলেন ‘আগে জামিন হোক তারপর দেখা যাবে।’ সরকার তার জামিনের আবেদন মঞ্জুর করার পর, শামীম ইস্কান্দার আবার তারেক জিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তারেক এসময় জানান যে, লন্ডনের করোনা পরিস্থিতি একটু ভালো হোক এরপর জানাবো।
জানা গেছে, গতকাল তারেক জানিয়ে দিয়েছেন, এখন তার মা যেন লন্ডনে না আসে। এর পেছনে অবশ্য ভিন্ন যুক্তি দেখিয়েছেন চতুর তারেক জিয়া। তারেক তার মাকে বলেছেন ‘লন্ডনে করোনা পরিস্থিতি নতুন করে খারাপ হচ্ছে। এখন হাসপাতালগুলোতে করোনা রোগীর ভীড় বাড়ছে।

তাই এখন লন্ডন আসার দরকার নেই।’ মাকে নিজের কাছে নিতে তারেকের আপত্তি খালেদা জিয়ার পরিবারের সদস্যদের ক্ষুদ্ধ করেছে। পরিবারের একজন সদস্য বলেছেন ‘তারেকের জন্যই তার মায়ের এই অবস্থা। অথচ, রায়ের আগে সে জোর করে মাকে লন্ডন থেকে দেশে ফেরত পাঠালো। যা জেলে থাকার সময়ও তার মায়ের মুক্তির জন্য তারেক কিছুই করেনি।’ বিএনপির একাধিক নেতা স্বীকার করেছেন, বেগম জিয়ার এভাবে মুক্তি তারেক চাননি। বরং তারেকের কৌশল ছিলো, বেগম জিয়াকে জেলে রেখে, আন্দোলন করা। যেভাবে জিয়াকে মুক্ত করা হয়েছে, তাতে তারেক তার মামা এবং খালার উপর ক্ষুদ্ধ। তবে, বেগম জিয়ার পরিবারের সদস্যরা মনে করে, বিএনপিতে নিরঙ্কুশ কর্তৃত্বের জন্যই মায়ের সঙ্গে এরকম আচরণ করছেন তারেক।