প্রচ্ছদ রাজনীতি মনোনয়ন বাণিজ্যে তারেক পেয়েছে ৩ কোটি, ফখরুল ২০ লাখ

মনোনয়ন বাণিজ্যে তারেক পেয়েছে ৩ কোটি, ফখরুল ২০ লাখ

151
মনোনয়ন বাণিজ্যে তারেক পেয়েছে ৩ কোটি, ফখরুল ২০ লাখ

ঢাকা ১৮ আসনে উপনির্বাচনে মনোনয়ন নিয়ে বিএনপিতে তুলকালাম শুরু হয়েছে। গতকাল রোববার (১০ অক্টোবর) মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বাসভবন ঘেরাও করেছে ঢাকা উত্তরের তৃনমুল বিএনপির নেতাকর্মীরা। এবং সেখানে তারা ফখরুলের বাসায় ইটপাটকেল ও পঁচা ডিমও নিক্ষেপ করেছেন। ঘটনার সময় মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বাসায় ছিলেন। তবে তিনি আহত হন নি। যদিও বিএনপির পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে এই ঘটনার পেছনে সরকারের কারসাজি থাকতে পারে। তবে বিএনপির একাধিক নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সরকারের কারসাজি নয় বরং মনোনয়ন বাণিজ্যের কারণে এ ঘটনাটা ঘটেছে।
জানা গেছে যে, ঢাকা উত্তরের বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশি ছিলেন ৯ জন। এর মধ্যে দুইজন আলোচিত ছিলেন। সবচেয়ে আলোচিত ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক কফিল উদ্দিন আহমেদ। কফিল উদ্দিন আহমেদের বাড়ি উত্তরায় এবং তারা পারিবারিক সূত্রে ওখানেই বসবাস করে। এছাড়াও এলাকায় নেতা কর্মীদের মাঝে তার একটা শক্ত অবস্থান রয়েছে। আর মনোনয়ন দেয়া হয়েছে ঢাকা উত্তর যুবদলের সভাপতি এসএম জাহাঙ্গীরকে। এসএম জাহাঙ্গীর তরুণ এবং তার এলাকায় তেমন কোনো গ্রহণযোগ্যতা নাই। কিন্তু মোটা অংকের টাকা লেনদেনের বিনিময়ে এই মনোনয়ন দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, কফিল উদ্দিন আহমেদকে মনোনয়ন দেয়া হতো এবং তার কাছ থেকে তারেক জিয়া টাকা চেয়েছিল। এজন্য তারেক জিয়া টেলিফোন করে জানতে চেয়েছিল যে সে কত টাকা দিতে পারবে। কিন্তু নির্বাচনের মনোনয়নের জন্য কফিল উদ্দিন টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানায় বলে জানা গেছে। ফখরুল ইসলাম আলমগীরও দল পরিচালনার জন্য কাফিল উদ্দিন আহমেদের কাছে কিছু টাকা চেয়েছিলেন। সেই টাকাও কফিলউদ্দিন দেননি। আর অন্যদিকে এসএম জাহাঙ্গীর লন্ডনে পলাতক বিএনপির সিনিয়র ভাইস-চেয়ারম্যান তারেক জিয়াকে তিন কোটি টাকা দিয়েছেন এবং দল পরিচালনা ও নির্বাচন পরিচালনার জন্য মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে ২০ লাখ টাকা দিয়েছেন বলে বিভিন্ন সূত্র নিশ্চিত করেছে। এবং এই টাকার নিনিমেয়ে তিনি মনোনয়ন পেয়েছেন বলে জানা গেছে।
দীর্ঘদিন ধরে বিএনপিতে মনোনয়ন বাণিজ্যের কথা বলা হচ্ছিল এবং এখন যে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের বাসায় যে হামলা সেটা এই মনোনয়ন বাণিজ্যের একটি বহিঃপ্রকাশ বলে মনে করছেন বিএনপি কর্মী সমর্থকরা।

অস্ত্রের পর এবার নগ্ন ছবি সেই এমপির ফেসবুকে
অস্ত্র প্রদর্শন সংক্রান্ত আলোচনা না থামতেই বগুড়ার এমপি রেজাউল করিম বাবলুর ফেসবুকে এবার নগ্ন ছবিরও দেখা মিলেছে। এর আগে বগুড়া-৭ আসনের আলোচিত এমপির হাতে পিস্তলসহ ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ার পর ‘ভাইরাল’ হয়ে যায়। গত শুক্রবার থেকে পিস্তলসহ এমপির ছবি নিয়ে আলোচনার মধ্যেই গতকাল তার টাইমলাইনে মিলেছে অশ্নীল ছবির সন্ধান।
ছবির বিষয়টি নিয়ে গতকালই তেজগাঁও থানায় সাধারণ ডায়েরি করেছেন বাবলু। একাদশ সংসদ নির্বাচনে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হয়ে চমক দেখান।

কীভাবে অস্ত্রের পর নগ্ন ছবি নিজের ফেসবুকে গেল- এ ব্যাপারে জানতে চাইলে রেজাউল করিম বাবলু জানান, হয়তো কেউ আমার ফেসবুকের পাসওয়ার্ড জেনে গেছে। এরপর ওই ব্যক্তি ফেসবুকের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে প্রথমে অস্ত্রের ছবি ও পরে নগ্ন একটি ছবি দিয়েছে। পরে আমি ওই নগ্ন ছবি ডিলিট করে দিয়েছি। তবে আমার ফেসবুক আইডি হ্যাকড হয়নি।
তেজগাঁও থানার ওসি মো. সালাউদ্দিন মিয়া জানান, এমপি একটি জিডি করেছেন। কে বা কারা এ ঘটনায় জড়িত, আমরা খুঁজে দেখব।