প্রচ্ছদ রাজনীতি *তবে কি খালেদা জিয়া রাজনীতি থেকে অ’বসরে গিয়েছেন?*

*তবে কি খালেদা জিয়া রাজনীতি থেকে অ’বসরে গিয়েছেন?*

36
*তবে কি খালেদা জিয়া রাজনীতি থেকে অবসরে গিয়েছেন?*

*কিছুদিন আগেই মারা গেলেন স্বাধীনতার ইশতেহার পাঠকারী শাহজাহান সিরাজ। আর আজ চলে গেলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য (ভিসি) অধ্যাপক ড. এমাজউদ্দীন আহমদ। এই দুজনই বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে খুব ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত ছিলেন। শাহজাহান সিরাজ ছিলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান। আর এমাজউদ্দীন আহমদ ছিলেন বিএনপিপন্থি বুদ্ধিজীবি। আশ্চর্যের বিষয় হলো, বিএনপির দুর্দিনে দলের পাশে থাকা এই দুজনের কারও মৃত্যুতেই শোকবার্তা বা ন্যূনতম শ্রদ্ধা জানাননি খালেদা জিয়া। অথচ তিনি বিএনপির চেয়ারপারসনের পদে রয়েছেন। শুধু এই দুটি মৃত্যুই নয়, সাম্প্রতিক সময়ে যত দেশ বরেণ্য ব্যক্তি, শিল্পপতি কিংবা বিএনপি নেতার মৃত্যু হয়েছে, এর কোনোটিতেই শোকবার্তা দেননি খালেদা জিয়া। এর প্রেক্ষিতেই প্রশ্ন উঠেছে যে, বেগম জিয়া কি তবে রাজনীতি থেকে অবসরে গেলেন?*

*জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলা এবং জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় মোট ১৭ বছরের কারাদণ্ড ভোগ করছিলেন খালেদা জিয়া। স্বাস্থ্যগত কারণ এবং প্রধানমন্ত্রীর করুণার কারণে তিনি গত ২৫ মার্চ ৬ মাসের জামিন পান। এরপর পেরিয়ে গেছে তিন মাসেরও বেশি সময়। কিন্তু এর মধ্যে বেগম জিয়া জনসমক্ষে তো আসেনই নি, এমনকি তার কোনো বক্তব্য-বিবৃতিও পাওয়া যায়নি। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর কারও মৃত্যুতে বা অন্য কোনো প্রয়োজনে শোকবার্তা, বিবৃতি ইত্যাদি দিচ্ছেন। দলের আরও কয়েকজন ছোট বড় মাঝারি নেতার পক্ষ থেকে এসব বার্তা-বিবৃতি পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু স্বয়ং দলের চেয়ারপারসনের পক্ষ থেকেই কিছু আসছে না। যদিও তার জামিনের শর্ত হচ্ছে, রাজনীতি না করে।*

*কিন্তু কারও মৃত্যুতে ন্যূনতম শোকবার্তাটা দেওয়া তো রাজনীতি নয়, এটাকে শিষ্টাচার, সৌজন্যতা বলা চলে। তাহলে বিএনপি চেয়ারপারসন কেন সেটুকুও পালন করছেন না সেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।*
*বেগম খালেদা জিয়ার এমন নিশ্চুপ থাকার কারণে বিএনপি নেতা-কর্মীদের অনেকেই মনে করছে যে, তিনি হয়তো রাজনীতি থেকে অবসর নিয়ে ফেলেছেন। এ নিয়ে দলের মধ্যে নানা কানাঘুষাও চলছে।*
*কয়েকটি সূত্র বলছে, বেগম জিয়ার পরিবারের সদস্যরা কঠোরভাবে নজরদারি করছেন যেন জামিনের শর্ত ভঙ্গ না হয়। এজন্য তারা দলের সঙ্গেও খালেদা জিয়ার একটা দূরত্ব বজায় রেখেছেন। জানা গেছে, খালেদা পরিবারের প্রায় সব সদস্যই চাচ্ছেন তিনি লন্ডনে চিকিৎসা নিতে যান।*

*কিন্তু তারেক জিয়া এক্ষেত্রে বাঁধা হয়ে দাঁড়াচ্ছেন। আর এরকম পরিস্থিতিতে বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে বিএনপি নেতৃবৃন্দ একেক দিন একেক কথা বলছে। মাস খানেক আগে বলা হয়েছিল যে, বেগম খালেদা জিয়ার বিদেশে যাওয়ার প্রশ্নই আসে না, তিনি এখানেই থাকবেন। সপ্তাহখানেক আগে আবার মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বললেন, বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসা বিদেশেই করতে হবে, দেশে নয়। সবকিছু মিলিয়ে বিএনপির নেতা-কর্মীরাও সন্দিহান যে খালেদা জিয়াকে নিয়ে আসলে হচ্ছেটা কি? তিনি কি বিদেশে যাবেন নাকি দেশে থাকবেন? তবে এসবের থেকেও এখন বড় প্রশ্ন হয়ে উঠেছে যে, বেগম জিয়া কি একেবারেই রাজনীতি থেকে অবসরে চলে গেলেন? নাকি এটা তার একটা কৌশল মাত্র?*