প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয় *যাঁদের কারণে আওয়ামী লীগ বিব্রত*

*যাঁদের কারণে আওয়ামী লীগ বিব্রত*

91
*যাঁদের কারণে আওয়ামী লীগ বিব্রত*

*করোনা সঙ্কট মোকাবেলার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিনরাত একাকার করে কাজ করছেন এবং বিভিন্ন ধরণের নির্দেশনা দিচ্ছেন। আওয়ামী লীগও এখন করোনা মোকাবেলায় জনগণের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে। জনগণকে ত্রান দেওয়া থেকে শুরু করে জনস্বাস্থ্যের বিষয় দেখাশোনা করা- সব করছে আওয়ামী লীগ। করোনা সঙ্কটের সময় একমাত্র আওয়ামী লীগকেই মাঠে দেখা গেছে, জনগণের পাশে দেখা গেছে। কিন্তু এতসব ইতিবাচক দিক থাকা সত্ত্বেও কিছু কিছু মানুষের ব্যর্থতা, দায়িত্বহীনতা, অযোগ্যতা এবং ভুল পদক্ষেপের কারণে আওয়ামী লীগ বিব্রত হচ্ছে। বাইরের মানুষ নয়, বরং আওয়ামী লীগের ভেতরেই সমালোচনা হচ্ছে। যাঁদের নিয়ে আওয়ামী লীগের ভেতরে সমালোচনা হচ্ছে তাঁদের মধ্যে রয়েছে…*

*স্বাস্থ্যখাতে থাকা ব্যক্তিবর্গ: স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেককে নিয়ে আওয়ামী লীগের ভেতরে এখন প্রকাশ্যেই সমালোচনা হয়, আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা এবং এমপিরা প্রকাশ্যেই স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সমালোচনা করেন। প্রধানমন্ত্রীর কাছেও একাধিক এমপি স্বাস্থ্যমন্ত্রীর ব্যাপারে নেতিবাচক মনোভাব প্রকাশ করেছেন।*
*কিন্তু স্বাস্থ্যমন্ত্রী ছাড়াও আওয়ামী লীগের সহযোগী অঙ্গসংগঠন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের ভূমিকা নিয়েও আওয়ামী লীগ বিব্রত। স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ এই সময় সরকার বা আওয়ামী লীগের স্বার্থ, বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রীর দিকনির্দেশনা না মেনে একে অন্যকে ঘায়েল করা বা বিভিন্ন রকমের বিভক্তি করে একটি অস্বস্তিকর অবস্থা সৃষ্টি করতে চাইছে বলে অনেকে মনে করছে। বিশেষ করে এই সময়ে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের ভূমিকা নিয়েও অনেক প্রশ্ন উঠেছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বদল করা হবে এবং সেখানে একজন আমলা নিয়োগ দেওয়া হবে এই ধরণের কথাবার্তা ছড়িয়ে স্বাচিপ সভাপতি নিজেই বিতর্কিত হয়েছেন। একই পথে হেঁটেছেন আওয়ামী লীগ নিয়ন্ত্রিত বাংলাদেশ মেডিকেল এ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ডা. এহতেশামুল হক চৌধুরী দুলালও। এই ধরণের বিষয়গুলো এখন করা অপ্রয়োজনীয় বলে মনে করছেন আওয়ামী লীগের একাধিক শীর্ষ নেতা। তাঁরা বলছেন যে, এখন স্বাচিপের উচিত সরকারকে সহযোগিতা করা। কিন্তু সেই কাজটি অনেক ক্ষেত্রেই করছেন না। বরং এমন ঘটনা ঘটাচ্ছেন যাতে সরকার বিব্রতকর অবস্থার ভেতর পড়ছেন।*

*গার্মেন্টস মালিক: গার্মেন্টস মালিকদের বেশ কয়েকজন রয়েছেন সরকারের এমপি এবং মন্ত্রীর দায়িত্বে। তাঁদের ভূমিকা নিয়ে শুরু থেকেই প্রশ্ন উঠছে এবং বিশেষ করে এপ্রিলে যখন গার্মেন্টসগুলো খুলে দেওয়া হলো তখন খোদ প্রধানমন্ত্রীই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। গার্মেন্টস খোলা হলেও গার্মেন্টস শ্রমিকদের বেতন দেওয়া হয়নি, শ্রমিকদের ছাঁটাই করা হচ্ছে ইত্যাদি বিষয়গুলো নিয়ে অস্বস্তি তৈরি হয়েছে এবং আওয়ামী লীগের জন্য বিষয়টি বিব্রতকর বলে মনে করছেন আওয়ামী লীগের একাধিক এমপি আর প্রভাবশালী নেতারা। যখন সরকার অর্থনৈতিক সঙ্কট মোকাবেলায় প্রাণান্ত চেষ্টা করছে তখন গার্মেন্টস মালিকরা আরো প্রণোদনা চেয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে। এই ধরণের আবদারে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাই হতবাক হয়ে গেছে।*

*ত্রাণের আত্মসাৎকারী জনপ্রতিনিধিরা: এখন পর্যন্ত ১০০ জনের বেশি স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে এবং তাঁদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে, তাঁদেরকে বরখাস্ত করা হয়েছে। কিন্তু এই সমস্ত ঘটনাগুলোতে স্থানীয় পর্যায়ের যে সমস্ত জনপ্রতিনিধি জড়িত তাঁদের কারণে আওয়ামী লীগ বিব্রত। কারণ আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক ইতিহাস পর্যালোচনা করলে দেখা যায় যে, আওয়ামী লীগ জনগণের দল হিসেবেই পরিচিত, সবসময় জনগণের পাশে থেকেছে এবং জনগণের সাহায্য-সহযোগিতা করাই হলো আওয়ামী লীগের মূল বৈশিষ্ট্য। আর সেই আওয়ামী লীগের একজন জনপ্রতিনিধি যখন ত্রাণের অর্থ আত্মসাৎ করে তখন তা পুরো আওয়ামী লীগকে লজ্জায় ফেলে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। আর একারণেই আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন যে, যারা স্বাস্থ্যখাতে দূর্নীতি করছেন এবং অন্যান্য ক্ষেত্রে যারা দূর্নীতি করছে তাঁদের ব্যাপারে আওয়ামী লীগ শূন্য সহিষ্ণুতা নীতি গ্রহণ করবে এবং দলের জন্য যারা বিব্রতকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করছে তাঁদের প্রত্যেকের সম্পর্কে খোঁজখবর প্রধানমন্ত্রীর কাছে আছে এবং যথাযথ সময়ে তাঁদেরকে এর ফল ভোগ করতে হবে।*