প্রচ্ছদ বিশ্ব *ভারতের নতুন এলাকা দখল করল চীন, কড়া বার্তা জাতিসংঘের*

*ভারতের নতুন এলাকা দখল করল চীন, কড়া বার্তা জাতিসংঘের*

70
*ভারতের নতুন এলাকা দখল করল চীন, কড়া বার্তা জাতিসংঘের*

*উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে ভারত-চীনের সম্পর্ক। লাদাখ সীমান্তে গলওয়ান উপত্যকায় চীনা সেনাদের সঙ্গে সংঘর্ষের পর সতর্ক অবস্থানে আছে দুই দেশের সেনারা।*
*এদিকে যে পেট্রোলিং পয়েন্ট (পিপি)-১৪-কে ঘিরে প্রাণ হারাল ২০ জন ভারতীয় সেনা, তার কাছে ফের ভারতের এলাকা দখল করেছে চীনা সেনারা। এদিকে ভারত জানিয়েছে, লাদাখের স্থিতাবস্থা বদলের চেষ্টার ফল ভুগতে হতে পারে চীনকে।*
*বটল-নেক পয়েন্ট বা ওয়াই জংশন পেট্রোলিং পয়েন্ট, ভারতের মধ্যে হলেও যা বর্তমানে চীনের দখলে। ওই ওয়াই জংশন পয়েন্ট থেকেই পিপি ১০, ১১, ১১এ, ১২ ও ১৩ যাওয়ার রাস্তা। কিন্তু চীনা সেনারা বসে থাকায় আপাতত সেই এলাকায় পৌঁছতে পারছে না ভারতীয় সেনা। এর ফলে কয়েকশো বর্গ কিলোমিটার এলাকায় নজরদারি বন্ধ রাখতে হয়েছে ভারতকে।*

*গালওয়ান উপত্যকায় পিপি-১৪-এ গত ১৫ জুন চীনা সেনারা পরিকাঠামো তৈরির চেষ্টা করায় দুপক্ষে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ ঘটে। পিছু হটে চীনারা। কিন্তু ১০ দিনের মধ্যে ফের পেট্রোলিং পয়েন্ট ১৪-র কাছে ঘাঁটি গেড়েছে তারা।*
*ভারতীয় সূত্র জানিয়েছে, এই মুহূর্তে সেখানে বিস্তীর্ণ এলাকা দখল করে ফেলেছে চীনারা। ওয়াই জংশন পয়েন্টটি থেকে লাদাখের ব্রুটসে ভারতীয় সেনার ছাউনি ৭ কিলোমিটার দূরে এবং ওই শহরের ওপর দিয়ে চলে গিয়েছে দারবুক-শাইয়োক-দৌলত বেগ ওল্ডি সড়ক, যা চীনের মাথাব্যথার কারণ। বছর দশেক আগেও চীনারা এক বার ব্রুটস পর্যন্ত ঢুকেছিল।*

*হংকং নিয়ে চীনকে কড়া বার্তা জাতিসংঘের, চাপে শি জিনপিং প্রশাসন*
*বেজিংয়ের উপর আরও চাপ বাড়িয়ে ‘মৌলিক অধিকার’ ও ‘ব্যক্তি স্বাধীনতা’ লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলে কড়া বার্তা দিল জাতিসংঘ।*
*শুক্রবার, ‘United Nations High Commissioner for Human Rights’-এর দপ্তর কড়া ভাষায় বেইজিংয়ের সমালোচনা করে। বিশেষ করে হংকংয়ে শি জিনপিং প্রশাসনের দমন নীতি নিয়ে সরব হয় আন্তর্জাতিক সংস্থাটি।*
*সংবাদ সংস্থা এএনআই সূত্রে খবর, জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশনের সদস্যরা মনে করেন, হংকংয়ে গণতন্ত্রকামীদের বিরুদ্ধে রাসায়নিক হাতিয়ার ও অতিরিক্ত বলপ্রয়োগ করেছে বেইজিং। এমনটা কাম্য নয়।*
*বলে রাখা ভালো, মে মাসেই হংকংয়ের (Hong Kong) জন্য নতুন জাতীয় নিরাপত্তা আইন আনার কথা ঘোষণা করেছিল চীন। গত সপ্তাহে সেই আইনের রূপরেখা প্রকাশ করে বেইজিং। এই আইন মোতাবেক, নতুন দপ্তর খোলা হবে হংকংয়ে। আইন লঙ্ঘনকারীদের বিচারের জন্য হংকংয়ের প্রশাসক ক্যারি ল্যাম নতুন বিচারকও নিয়োগ করবেন খুব দ্রুত। ৬ সেপ্টেম্বর হংকংয়ে আইনসভার ভোট। তার আগেই নতুন আইন চালু হবে বলে মনে করা হচ্ছে।*

*আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশেষজ্ঞদের মতে, নতুন নিরাপত্তা আইন প্রণয়ন করে হংকংয়ের উপর রাশ আর মজবুত করতে চলেছে চীন (China)। এই বিষয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে আমেরিকা, ব্রিটেনসহ একাধিক দেশ। যদিও চীনের দাবি, বিচ্ছিন্নতাবাদ, দেশদ্রোহ, সন্ত্রসাবাদ ও বিদেশি হস্তক্ষেপের হাত থেকে হংকংকে বাঁচাতেই এই নতুন আইন আনা হচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে হংকং নিয়ে জাতিসংঘের বার্তায় যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছেন বিশ্লেষকরা। সূত্র: সংবাদ প্রতিদিন*
*বেজিংয়ের উপর আরও চাপ বাড়িয়ে ‘মৌলিক অধিকার’ ও ‘ব্যক্তি স্বাধীনতা’ লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলে কড়া বার্তা দিল জাতিসংঘ।*

*শুক্রবার, ‘United Nations High Commissioner for Human Rights’-এর দপ্তর কড়া ভাষায় বেইজিংয়ের সমালোচনা করে। বিশেষ করে হংকংয়ে শি জিনপিং প্রশাসনের দমন নীতি নিয়ে সরব হয় আন্তর্জাতিক সংস্থাটি।*
*সংবাদ সংস্থা এএনআই সূত্রে খবর, জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশনের সদস্যরা মনে করেন, হংকংয়ে গণতন্ত্রকামীদের বিরুদ্ধে রাসায়নিক হাতিয়ার ও অতিরিক্ত বলপ্রয়োগ করেছে বেইজিং। এমনটা কাম্য নয়।*
*বলে রাখা ভালো, মে মাসেই হংকংয়ের (Hong Kong) জন্য নতুন জাতীয় নিরাপত্তা আইন আনার কথা ঘোষণা করেছিল চীন। গত সপ্তাহে সেই আইনের রূপরেখা প্রকাশ করে বেইজিং। এই আইন মোতাবেক, নতুন দপ্তর খোলা হবে হংকংয়ে। আইন লঙ্ঘনকারীদের বিচারের জন্য হংকংয়ের প্রশাসক ক্যারি ল্যাম নতুন বিচারকও নিয়োগ করবেন খুব দ্রুত। ৬ সেপ্টেম্বর হংকংয়ে আইনসভার ভোট। তার আগেই নতুন আইন চালু হবে বলে মনে করা হচ্ছে।*

*আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশেষজ্ঞদের মতে, নতুন নিরাপত্তা আইন প্রণয়ন করে হংকংয়ের উপর রাশ আর মজবুত করতে চলেছে চীন (China)। এই বিষয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে আমেরিকা, ব্রিটেনসহ একাধিক দেশ। যদিও চীনের দাবি, বিচ্ছিন্নতাবাদ, দেশদ্রোহ, সন্ত্রসাবাদ ও বিদেশি হস্তক্ষেপের হাত থেকে হংকংকে বাঁচাতেই এই নতুন আইন আনা হচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে হংকং নিয়ে জাতিসংঘের বার্তায় যথেষ্ট তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছেন বিশ্লেষকরা। সূত্র: সংবাদ প্রতিদিন*