প্রচ্ছদ রাজনীতি *আওয়ামী লীগ রাজনীতিতে ছন্দ হারিয়ে ফেললো?*

*আওয়ামী লীগ রাজনীতিতে ছন্দ হারিয়ে ফেললো?*

64
*আওয়ামী লীগ রাজনীতিতে ছন্দ হারিয়ে ফেললো?*

*করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে আওয়ামী লীগ যেন নিষ্প্রভ হয়ে গেছে। দলের হাতেগোনা নেতার বিবৃতি এবং অনলাইন সংবাদ সম্মেলন ছাড়া আওয়ামী লীগের কার্যক্রম তেমন চোখে পড়ছে না। যদিও আওয়ামী লীগের তরফ থেকে বলা হচ্ছে যে, তৃণমূলের ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমে তাঁরা সক্রিয় রয়েছে, ধান কাঁটার সঙ্গে অঙ্গসহযোগী সংগঠনগুলো যুক্ত ছিল। তারপরেও আওয়ামী লীগের সবকাজই হচ্ছে, কিন্তু আওয়ামী লীগের কোন ছন্দ নেই। বেসুরো হয়ে গেছে আওয়ামী লীগ, কিন্তু কেন? আওয়ামী লীগের ভেতরে কি কোন অস্বস্তি কাজ করছে?*

*আওয়ামী লীগের নেতৃত্বের মধ্যে কি সমন্বয়ের অভাব? এরকম প্রশ্নগুলো রাজনৈতিক মহলে উঠছে। তবে এই সংকটকালীন সময়ে আওয়ামী লীগকেই সবথেকে সরব থাকার কথা ছিল। কারণ টানা তিন মেয়াদে দেশ পরিচালনার দায়িত্বে রয়েছে আওয়ামী লীগ।*
*আওয়ামী লীগের জনপ্রতিনিধিরাই সর্বত্র। কাজেই জনগণের কাছে যেমন তাঁদের দায়বদ্ধতা রয়েছে, পাশাপাশি তাঁদের সাংগঠনিক শক্তিমত্তা প্রদর্শন এবং জনগণের কাছে যাওয়ার এটাই সবথেকে বড় সুযোগ। তারপরেও সেই সুযোগকে আওয়ামী লীগ হেলায় নষ্ট করছে কিনা সেই প্রশ্ন উঠেছে। আওয়ামী লীগের এই ছন্দপতনের কারণগুলো বিশ্লেষণ করেছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। কারণগুলো হলো এরকম-*

*১. সাধারণ সম্পাদক ঘরবন্দি: আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদককে ঘিরেই আওয়ামী লীগ পরিচালিত হয়। আওয়ামী লীগের সভাপতি হলেন সবকিছুর উর্ধ্বে, তিনি দলের আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতীক, দলের ঐক্যের প্রতীক। সাধারণ সম্পাদক হলেন দলের চালিকাশক্তি, তাঁকে ঘিরেই দল পরিচালিত হয় এবং তৃণমূলের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ, বিভিন্ন নেতাকর্মীদের মাঠে নামানো ইত্যাদি কাজগুলো করতে হয় সাধারণ সম্পাদককে। কিন্তু করোনার জন্য যৌক্তিক কারণেই আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ঘরবন্দি হয়ে রয়েছেন, ঘরে বসেই তিনি বিভিন্ন অনলাইন সংবাদ সম্মেলন করছেন। কিন্তু মাঠে ঘোরাফেরা করার নেতা যখন ঘরে থেকে বিবৃতি দিবেন, সেই বিবৃতি কতটা চিত্তাকর্ষক হবে বা কতটুকু আবেদন বহন করবে তা বলাই বাহুল্য। আর এই কারণেই আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের অবাধ বিচরণের অভাব বোধ করছে আওয়ামী লীগ।*

*২. উদ্যমহীন নেতৃবৃন্দ: আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্যদের অধিকাংশই অনুপস্থিত। বেগম মতিয়া চৌধুরীকে মাঝে মাঝে দলের কর্মকাণ্ডে দেখা যায়, বাকি সদস্যদের মধ্যে জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান কিছুটা সক্রিয়। কিন্তু অন্যরা কোথায় আছেন বা কি করছেন তা নিয়ে জনমনে অনেক প্রশ্ন। শাজাহান খান যতটা না আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য তাঁর থেকে বেশি তিনি পরিবহন শ্রমিক নেতা। পরিবহন বিষয় ছাড়া তাঁকে খুব একটা দেখা যায় না। আর ড. আব্দুর রাজ্জাক সক্রিয় থাকলেও মন্ত্রণালয়ের কাজকে ঘিরেই তিনি ব্যস্ত রয়েছেন। দলের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদকদের মধ্যে সরব রয়েছেন ড. হাছান মাহমুদ। সারাক্ষণই তিনি কথা বলছেন। এখন পর্যন্ত দলের কণ্ঠস্বর হয়েই আছেন তিনি। কিন্তু অন্য যুগ্ন সাধারণ সম্পাদকরা রুটিন কাজেই ব্যস্ত।*

*দলের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল হানিফ মোটেও সক্রিয় নন। আ. ফ. ম. বাহাউদ্দিন নাছিম দলীয় কর্মকাণ্ডে আছেন কিন্তু তিনি ঘরোয়া রাজনীতিতে যতটা পারঙ্গম, মাঠের রাজনীতিতে তিনি ততটাই নিঃস্পৃহ। অন্য যুগ্ন সাধারণ সম্পাদকদের মধ্যে ডা. দীপু মনি এখন মন্ত্রণালয়ের কাজ নিয়েই ব্যস্ত। ফলে দলের প্রেসিডিয়াম এবং যুগ্ন সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, তাঁদের মধ্যে যেমন নেই সঙ্গবদ্ধ প্রয়াস, তেমনি এই সঙ্কটে তাঁরা জনগণকে আশ্বস্ত করবেন বা জনগণের বিষয়গুলো নিয়ে কথাবার্তা বলবেন এমনটা তাঁদেরকে খুব একটা দেখা যাচ্ছেনা। দলের হেভিওয়েট নেতারা, যেমন তোফায়েল আহমেদ, আমির হোসেন আমু, মোহাম্মদ নাসিম- তাঁরা নিঃস্পৃহ এবং দলীয় কর্মকাণ্ডে তাঁদেরকে খুব একটা দেখা যায়না। এদের মধ্যে মোহাম্মদ নাসিম এখন অসুস্থ। করোনায় আক্রান্ত হয়ে তিনি এখন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। অন্য দুই নেতাও দুরত্ব বজায় রেখেই কাজ করছেন।*

*৩. অঙ্গসহযোগী সংগঠনগুলোতে প্রাণ নেই: আওয়ামী লীগের অঙ্গসহযোগী সংগঠনগুলো ছিল অত্যন্ত সরব এবং কর্মচাঞ্চল্যে ভরপুর। কিন্তু ক্যাসিনো কেলেঙ্কারিতে অঙ্গসহযোগী সংগঠনগুলোর উপরে যে ঝড় এসেছে, তাতে সব লণ্ডভণ্ড। কার্যত কর্মকাণ্ডহীন অঙ্গসহযোগী সংগঠগুলো। করোনা সঙ্কটকালে এই সংগঠগুলোর তৎপরতা চোখে পড়ছে না। হাতেগোনা দু-একটি অঙ্গসহযোগী সংগঠন টুকটাক দু-একটি কাজ ছাড়া বাকি সবাই যেন হাত-পা গুটিয়ে বসে আছে।*

*৪. অর্ধেক এমপি এলাকায় নেই: আওয়ামী লীগ তৃণমূলের সংগঠন, তৃণমূল হলো আওয়ামী লীগের রক্তপ্রবাহের মতো। কিন্তু তৃণমূলের জনপ্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে উঠছে দুর্নীতি, ত্রাণ আত্মসাতের অভিযোগ। আর দলের এমপিদের কেউ কেউ ভালো কাজ করলেও অর্ধেক এমপি এলাকাতেই যাচ্ছেন না। আর সবমিলিয়ে সঙ্কটকালে আওয়ামী লীগকে যেভাবে দেখা যায়, এবারের সঙ্কটে আওয়ামী লীগ সেভাবে নেই।*
*৫. ছন্দহীন আওয়ামী লীগ: তবে আওয়ামী লীগের নেতারা মনে করছেন যে, দলের সভাপতি শেখ হাসিনা রাজনীতির চেয়ে এখন সঙ্কট মোকাবেলা এবং রাষ্ট্রপরিচালনায় গুরুত্ব দিচ্ছেন। তাঁর নির্দেশনা পেলে আওয়ামী লীগের ছন্দে ফেরা সময়ের ব্যাপার মাত্র।*