প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয় *ডি’জিটাল নিরাপত্তা আ’ইন বা’তিলের দাবি সম্পাদক পরিষদের*

*ডি’জিটাল নিরাপত্তা আ’ইন বা’তিলের দাবি সম্পাদক পরিষদের*

12
*ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি সম্পাদক পরিষদের*

*সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট দেয়ায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় গ্রেফতার সাংবাদিক, কার্টুনিস্ট ও লেখকের মুক্তি চেয়েছে সম্পাদক পরিষদ। একই সঙ্গে এই আইন বাতিলের দাবিও জানিয়েছে দেশের সম্পাদকদের এ সংগঠন।*
*গতকাল বৃহস্পতিবার (৭ মে) সম্পাদক পরিষদের সভাপতি ও ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনাম এবং সাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ প্রতিদিনের সম্পাদক নঈম নিজাম স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এ দাবি করা হয়। গণমাধ্যমের স্বাধীনতা দমনে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন অস্ত্র হিসাবে ব্যবহার করা হবে এই আশঙ্কায় সম্পাদক পরিষদ শুরু থেকেই আইনটির বিরোধিতা করেছিল।*

*সম্পাদক পরিষদ বিবৃতিতে উল্লেখ করেছে, ‘আমরা গভীর উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার সঙ্গে সাম্প্রতিক সময়ে অযৌক্তিকভাবে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সাংবাদিক, কার্টুনিস্ট ও লেখককে অভিযুক্ত ও গ্রেপ্তার করার ঘটনাপ্রবাহ পর্যবেক্ষণ করছি। গ্রেপ্তারের আগে অভিযোগের যৌক্তিকতার বিষয়ে কোনো কথা বলা হচ্ছে না।’ ‘ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হওয়া’, ‘গুজব ছড়ানো’, অথবা ‘সরকারের সমালোচনা’ করার মতো কারণকে এখন সাংবাদিকদের জেলে ভরার জন্য যথেষ্ট বলে বিবেচনা করা হচ্ছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের হওয়া যেকোনো মামলা হওয়া মানেই বেশিরভাগক্ষেত্রে এখন গ্রেপ্তার হওয়া। সম্প্রতি ফটোসাংবাদিক শফিকুল ইসলাম কাজলকে হাতকড়া পরিয়ে আদালতে উপস্থাপন করা হয়। সাংসদ, জেলা প্রশাসন, ক্ষমতাসীন লোকজনের নামে সামান্য সমালোচনার কারণে সম্প্রতি মামলাগুলো দায়ের করা হয়।*

*ওই বিবৃতিতে বলা হয়, ‘ঐতিহ্যগতভাবে সাংসদরা সবসময় মুক্ত গণমাধ্যম, মুক্ত চিন্তা ও সমালোচনার পাশে বরাবর দাঁড়িয়েছেন। দুঃখজনক হলেও সত্য, তাঁদেরই কয়েকজন এখন সংবাদমাধ্যমের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন প্রয়োগের পক্ষে। বিদ্যমান মানহানির মামলার পরিবর্তে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলায় পরিষ্কার আগ্রহ প্রমাণ করে, সুবিচার পাওয়াটা তাঁদের মূল উদ্দেশ্য নয়, বরং সাংবাদিকদেও ভয় দেখানো ও হয়রানি করার ইচ্ছেটাই এখন মূল।’*

*সম্পাদক পরিষদ মনে করে, ‘সংবাদমাধ্যমের সহজাত দায়িত্ব হলো দুর্নীতি, অনিয়ম প্রকাশ করা এবং প্রশাসনের ভুলত্রুটি ধরিয়ে দেওয়া। আর যখন কিনা মহামারি ও মহামারি পরবর্তী বিপর্যয় মোকাবিলায় সরকার হাজার হাজার কোটি টাকা ব্যয় করছে, তখন এই দায়িত্ব পালন আরও জরুরি হয়ে দাঁড়ায়।’*
*বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘সংবাদমাধ্যমের স্বাধীনতাকে দমনের অস্ত্র হিসেবে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ব্যবহার হতে পারে এই আশঙ্কায় একদম শুরু থেকেই সম্পাদক পরিষদ এই আইনের বিরোধিতা করে আসছে। আমাদের সেই শঙ্কা এখন গণমাধ্যমের জন্য দুঃস্বপ্নের বাস্তবতা হয়ে দাঁড়িয়েছে।’*

*সম্পাদক পরিষদ বলেছে, ‘আমরা মনে করি, সাম্প্রতিক এই মামলাগুলোয় সাংবাদিকদের অভিযুক্ত ও তাদের গ্রেপ্তার করা সংবাদ মাধ্যম ও মতপ্রকাশের স্বাধীনতার প্রতি প্রকাশ্য হুমকি। আমরা অনতিবিলম্বে সব সাংবাদিকের মুক্তি ও তাদের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানাই।’*
*মহামারি এবং মহামারিজনিত কারণে অর্থনৈতিক যে প্রতিবন্ধকতাগুলো দেশের সামনে এসে দাঁড়িয়েছে, তার মোকাবিলায় গোটা জাতিকে একতাবদ্ধ হতে হবে। স্বাধীন সাংবাদিকতার বিরুদ্ধে এমন অবস্থান ও সাংবাদিকদের হরদম গ্রেপ্তার একতাবদ্ধ হওয়ার চেষ্টাকে কেবল ক্ষতিগ্রস্তই করবে বলে উল্লেখ করেছে সম্পাদক পরিষদ।*

*বেড়ে চলছে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ব্যবহার*
*বাংলাদেশে করোনার মধ্যে ‘বিতর্কিত’ ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ব্যবহার বাড়ছে৷ আর এই আইনটি এই সময়ে সাংবাদিক, সমাজকর্মী ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সক্রিয়দের বিরুদ্ধে ব্যবহার হচ্ছে।*
*সর্বশেষ ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ১১ জনের বিরুদ্ধে রমনা থানায় দায়ের করা মামলায় চারজনকে এপর্যন্ত চার জনকে আটক করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। যাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে তারা হলেন: তথ্যপ্রযুক্তিবিদ ও রাষ্ট্রচিন্তার সদস্য মো. দিদারুল ইসলাম ভূঁইয়া, ব্যবসায়ী মোস্তাক আহম্মেদ, কার্টুনিস্ট আহম্মেদ কবির কিশোর এবং ডিএসই’র পরিচালক ব্যবসায়ী মিনহাজ মান্নান৷ মিনহাজ মান্নান কয়েক বছর আগে জঙ্গিদের হাতে নিহত জুলহাজ মান্নানের ভাই।*

*আসামিদের মধ্যে রয়েছেন: প্রবাসী সাংবাদিক তাসনিম খলিল ও সাহেদ আলম, সায়ের জুলকারনাইন, আশিক ইমরান, ফিলিপ শুমাখার, স্বপন ওয়াহিদ ও প্রবাসী ব্লগার আসিফ মহিউদ্দীন।*
*তাদের বিরুদ্ধে মোটা দাগে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা হলো: তারা ‘আই অ্যাম বাংলাদেশি’ নামে একটি ফেসবুক পেজ ব্যবহার করে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ ও করোনা ভাইরাস নিয় গুজব ছড়িয়েছেন৷ তারা সরকারবিরোধী পোস্ট ও সরকার দলীয় বিভিন্ন নেতার কার্টুন দিয়েও গুজব ছড়িয়েছেন। আর এটার মাধ্যমে তারা জনগণের মধ্যে বিভ্রান্তি, অস্থিরতা ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করেছেন। এই অপরাধে তাদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল আইনের ২১/২৫১)(খ)/৩১/৩৫ ধরায় মামলা হয়েছে।*

*কিন্তু এইসব অভিযোগের বিস্তারিত কিছু নেই মামলার এজাহারে৷ আর কিভাবে তারা এই ‘অপরাধ’ করলেন ও তার ফলাফল কি তাও সুনির্দিষ্ট নয়।*
*আটক কার্টুনিস্ট আহম্মেদ কবির কিশোরের ভাই সাংবাদিক আহসান কবির বলেন, ‘‘আমার ভাই রাষ্ট্র বা সরকারবিরোধী কোনো কাজ করেননি। তিনি যে কার্টুন আঁকেন তাতে সমাজের চিত্র ফুটে ওঠে৷ তিনি স্বাধীনতাবিরোধীদের বিরুদ্ধে যেমন কার্টুন এঁকেছেন, তেমনি এখন দেশের বাস্তব পরিস্থিতি নিয়ে কার্টুন আঁকছেন৷ তিনি কাউকে অপমান করেননি৷ গুজব ছড়াননি।”*

*তিনি বলেন, ‘‘দেশের ১৭ কোটি মানুষ দুর্নীতি করে না৷ দুর্নীতি করে ক্ষুদ্র একটি অংশ৷ ওই দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে কথা বললে দেশের বা দেশের মানুষের অসম্মান হয় কিভাবে!”*
*তার মতে এখন এই আইনটি, ‘‘জনগণকে কোনো নিরাপত্তা দিচ্ছে না। দুর্নীতিবাজরা তাদের রক্ষায় আইনটি ব্যবহার করছে।”*
*আর দিদারুল ইসলাম ভূঁইয়ার ভগ্নিপতি জাকির চৌধুরী বলেন, ‘‘আমার মনে হচ্ছে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন দিয়ে দেশের মানুষকে নিরাপত্তাহীন করা হচ্ছে। দিদার একজন আইটি স্পেশালিষ্ট৷ দেশের বাইরে পড়াশুনা করে দেশে ফিরে মানুষের জন্য কাজ করছেন। করোনায় তাদের সংগঠন রাষ্ট্রচিন্তার মাধ্যমে অভাবী মানুষের মুখে খাবার তুলে দিচ্ছিলেন।”*

*তিনি বলেন, ‘‘দিদারের কাজ রাষ্ট্রবিরোধী নয়৷ সে কোনো রাষ্ট্রবিরোধী কাজের সঙ্গে যুক্ত নয়৷ সে রাষ্ট্র ও সাধারণ মানুষের জন্য কাজ করছে৷ আমরা তার মুক্তি চাই।”*
*বাক স্বাধীনতা নিয়ে কাজ করা আর্টিকেল নাইনটিন-এর তথ্য, ২০১৮ সালে আইসিটি আইনের ৫৭ ধারা ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সাংবাদিকসহ মুক্তচিন্তার চর্চাকারীদের বিরুদ্ধে ৭১টি মামলা হয়েছে। ২০১৯ সালে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয় ৬৩টি৷ চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে এপ্রিল পর্যন্ত ৪৫টি মামলা হয়েছে৷ যার অধিকাংশই সাংবাদিক ও সম্পাদকদের বিরুদ্ধে।*

*আর লকডাউনে এপ্রিল মাসে সারাদেশে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে ১০টিরও বেশি মামলা হয়েছে জিজিটাল নিরাপত্তা আইনে। মত প্রকাশের জন্য স্বাধীনতার জন্য কাজ করা ‘মুক্ত প্রকাশ’ নামে একটি সংগঠন এই তথ্য দিচ্ছে৷ সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক সালিম সামাদ বলেন, ‘‘লকডাউনের প্রথম মাসে ২০ জন সাংবাদিক মামলা, গ্রেপ্তার ও হামলার শিকার হয়েছে৷ এরা ত্রাণ চুরি, হাসপাতালের অব্যবস্থাপনা, দুর্নীতি নিয়ে প্রশ্ন তুলে নিগৃহীত হয়েছেন৷ পরিস্থিতি এমন দাঁড়িয়েছে যে কোনো কিছু নিয়ে প্রশ্ন করা যাবে না।”*

*তিনি বলেন, ‘‘অন্য আইনে সাংবাদিকদের হয়রানি তেমন সহজ নয় বলে এখন জিজিটাল নিরাপত্তা আইন ব্যবহার করা হচ্ছে৷ কারণ এই মামলায় জামিন পাওয়া যায়না৷ আর করোনার সময় এই আইনে মামলা বেড়ে যাচ্ছে।”*
*সর্বশেষ ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা ও গ্রেপ্তারের ঘটনাকে তিনি সরকারের নিজের ওপর আস্থাহীনতার প্রকাশ বলে মনে করেন৷ তিনি বলেন, ‘‘এখন আর দুর্নীতি, অব্যবস্থা, অনিয়মের কথা কেউ বললে সহ্য করতে তারা পারে না৷ তাকে মামলা দিয়ে হয়রানি করে৷ মাস্ক চুরির কথা বললে গ্রেপ্তার করা হয়, চাকরি চলে যায়।”*

*প্রশ্ন উঠেছে, এই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন কাদের স্বার্থে ব্যবহার করা হচ্ছে? এতে কারা লাভবান হবে? আর এই সময়ে এই আইনের ব্যবহার কেন বাড়ছে? জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ও আইনের অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান বলেন, ‘‘আমরা উদ্বেগের সাথ এই সময়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ব্যবহার বাড়ার বিষয়টি লক্ষ্য করছি৷ আর তা বেশি ব্যবহার হচ্ছে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে এটা আসলে আমাদের আতঙ্কিত করে।”*
*তিনি বলেন, ‘‘এই সময়ে ত্রাণ নিয়ে কোথায় দুর্নীতি হচ্ছে৷ করোনা প্রতিরোধে কোথায় বাধা আছে এগুলো সরকারের জানা দরকার৷ সাংবাদিকেরাই তা জানাচ্ছেন৷ কিন্তু তা করতে গিয়ে তারা যদি মামলা গ্রেপ্তারের শিকার হন তাহলে তো দুর্নীতিবাজেরা সুবিধা পাবে৷ এটা তো হতে পারে না।”*
*তার মতে, ‘‘করোনা প্রতিরোধে সমন্বয়হীনতার কথাতো আমরা মন্ত্রীদের মুখেও শুনছি৷ তাহলে সাংবাদিক বা সচেতন নাগরিকরা তা বলতে পারবেন না কেন? ডিজিটাল আইন দিয়ে মত প্রকাশের স্বাধীনতা, বাকস্বাধীনতা রুদ্ধ করা কোনোভাবেই কাম্য নয়।”*