প্রচ্ছদ অর্থ-বাণিজ্য *ভারত-চীনের চেয়েও নিরাপদ বাংলাদেশের অর্থনীতি*

*ভারত-চীনের চেয়েও নিরাপদ বাংলাদেশের অর্থনীতি*

করোনা মহামারি ও বৈশ্বিক অর্থনীতি

22
*ভারত-চীনের চেয়েও নিরাপদ বাংলাদেশের অর্থনীতি*

*করোনাভাইরাস মহামারির প্রভাবে সৃষ্ট বৈশ্বিক অর্থনীতির বিপর্যস্ত পরিস্থিতিতে গোটা বিশ্বের মত বাংলাদেশেও স্থবির হয়ে পড়েছে প্রায় সকল প্রকার অর্থনৈতিক কার্যক্রম, বন্ধ সব কল-কারখানা। প্রতিটি রাষ্ট্রের ক্ষেত্রেই আভাস মিলছে জাতীয় অর্থনীতি পঙ্গু হয়ে পড়ার।*
*তবে চলমান এই পরিস্থিতিতের মাঝে বাংলাদেশের জন্য পাওয়া গেল এক আশার খবর। সম্প্রতি, এশিয়ার অন্যান্য রাষ্ট্রগুলো বিশেষ করে ভারত ও চীনের চেয়ে বাংলাদেশের অর্থনীতি তুলনামূলক নিরাপদ অবস্থানে আছে বলে গবেষণায় উল্লেখ করেছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম দ্য ইকোনমিস্ট।*

*করোনা ভাইরাসের সংকটময় পরিস্থিতি বিবেচনায় বিশ্বের কোন দেশ কতটুকু অর্থনৈতিক নিরাপত্তায় অবস্থান করছে, তা নিয়ে একটি গবেষণা তালিকা প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক সাপ্তাহিক নিউজপেপার দ্য ইকোনমিস্ট। এতে এ কথা বলা হয়েছে।*
*শুধু তা-ই নয়, প্রতিবেশী দেশ ভারতের চেয়েও বাংলাদেশের অর্থনীতি নিরাপদ আছে বলছে এ জরিপ। এমনকি পাকিস্তান, চীন ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের অর্থনীতির চেয়েও কম ঝুঁকিতে বাংলাদেশ।*
*লন্ডনভিত্তিক সংবাদমাধ্যমটি বলছে, করোনা ভাইরাসের ভয়াবহতায়ও পাকিস্তান, ভারত, চীন এমনকি সংযুক্ত আরব আমিরাতের মতো দেশের চেয়েও তুলনামূলকভাবে নিরাপদ বাংলাদেশের অর্থনীতি।*

*দ্য ইকোনমিস্ট বলছে, করোনা ভাইরাসের মহামারি পরিস্থিতিতেও উদীয়মান সবল অর্থনীতি ৬৬টি দেশের। এরমধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান নবম। অর্থাৎ নবম শক্তিশালী অর্থনীতির দেশ।*
*ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল ফিন্যান্সের বরাতে দ্য ইকোনমিস্ট বলছে, উদীয়মান এসব অর্থনীতির দেশের বন্ড ও শেয়ারবাজার থেকে করোনা ভাইরাসের এই গত চার মাসে ১০০ বিলিয়ন ডলারের বেশি তুলে নিয়েছেন বিদেশি বিনিয়োগকারীরা। যা ২০০৮ সালের বিশ্বমন্দার সময়ের চেয়ে তিনগুণ বেশি।*
*চারটি সম্ভাব্য সংস্থার নির্বাচিত অর্থনীতির দুর্বলতা পরীক্ষা করে এই জরিপ করা হয়েছে। এরমধ্যে রয়েছে জনগণের ঋণ হিসেবে জিডিপির শতাংশ, বৈদেশিক ঋণ, ঋণের সুদ ও রিজার্ভ কভার।*

*অর্থনৈতিক নিরাপত্তা গবেষণা তালিকাটিতে শীর্ষে রয়েছে বতসোয়ানা। আর সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে ভেনেজুয়েলা। এছাড়া চীনের অবস্থান বাংলাদেশের পরে; ১০ নম্বরে। আর সৌদি আরবের অবস্থান বাংলাদেশের এক ধাপ আগে, অর্থাৎ আটে।*
*খ্যাতিমান অর্থনীতিবিদদের গবেষণায় উঠে আসা এই তালিকায় ভারতের অবস্থান ১৮। পাকিস্তানের ৪৩। সংযুক্ত আরব আমিরাতের ১৭।*
*নিউজপেপারটি এও বলছে, করোনা ভাইরাস উদীয়মান অর্থনীতির দেশগুলোকে বড় ধরনের ক্ষতির মুখে ফেলছে কয়েকবার। হতে পারে তিনভাবে। এরমধ্যে ঘোষিত কঠোর লকডাউনের কারণে লোকজনের ঘরে থাকতে বাধ্য হওয়ায় উৎপাদন বন্ধ একটি। এছাড়া আকাশপথে বিশ্বজুড়ে যোগাযোগ বন্ধ থাকায় ব্যবসা-বাণিজ্যসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে ক্ষতি আরেকটি। এরপরও তুলনামূলক সবল আছে দেশগুলোর অর্থনীতি।*