প্রচ্ছদ ইতিহাস-ঐতিহ্য *বঙ্গবন্ধুর খু’নীদের প্র’শ্রয়দাতা যারা*

*বঙ্গবন্ধুর খু’নীদের প্র’শ্রয়দাতা যারা*

119
*বঙ্গবন্ধুর খুনীদের প্রশ্রয়দাতা যারা*

*জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে নি’র্মমভাবে হ’ত্যা করা হয়েছিল ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট। গতকাল জাতির পিতার আত্মস্বীকৃত খু’নীদের একজন দ’ণ্ডিত আ’সামী গ্রেপ্তার হয়েছেন। আরো কয়েকজন এখনো বিদেশে প’লাতক রয়েছে এবং এরা নানা রকম কূটকৌশলে বিভিন্ন দেশে অবস্থান করছে।*
*’৭৫ এর ১৫ই আগস্টে শুধু জাতির পিতাকে নি’র্মমভাবে হ’ত্যাই করা হয়নি, এই বিচারের পথ-ও রুদ্ধ করে দেয়া হয়েছিল। জারি করা হয়েছিল ইন’ডেমনিটি অ’ধ্যাদেশ, আর সেই ই’নডেমনিটি অ’ধ্যাদেশের বলে বঙ্গবন্ধুর হ’ত্যাকারীদের বিচারের পথ রুদ্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু ইতিহাস বিশ্লেষণ করলে দেখা যায় যে, যারা সেদিন বঙ্গবন্ধুকে হ’ত্যা করেছিল তাঁদেরকে কেবল সেই সময় সরকারী পৃষ্ঠপোষকতা দেয়া হয়নি, বরং বিভিন্ন সময় তারা বিভিন্ন অগণতান্ত্রিক সরকারের মদদে তারা বেড়ে উঠেছেন এবং বিপুল বিত্তবৈভবের মালিক হয়েছেন, কূট’নৈতিক চাকরিও পেয়েছেন।*

*৭৫ এর খু’নীদেরকে প্রথম রক্ষা করেছিলেন খু’নী মোস্তাক। কারণ খু’নী মোস্তাক নিজেই এই হ’ত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত ছিলেন এবং নিজেই অংশীদার ছিলেন। তিনি এই খু’নীদেরকে পদোন্নতি দিয়েছিলেন এবং খু’নীদেরকে চারপাশে নিয়ে বঙ্গভবনকে কলঙ্কিত করতেন। আর ৭৫ এর ১৫ই আগস্টের এই হ’ত্যাকাণ্ডের অন্যতম পরিকল্পনাকারি জিয়াউর রহমান পাদপ্রদীপে আসেন ৭ নভেম্বর এবং তিনি আসার পর এইসব খু’নীদেরকে বিদেশে পালিয়ে যেতে সহায়তা করেন এবং পরবর্তীতে কূটনৈতিক চাকরি দেন।*

*জিয়াউর রহমানের পরে ক্ষমতায় আসেন হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদ। এরশাদ ক্ষমতায় এসে ইন্ডি’পেনডেন্ট অ’ধ্যাদেশ তো বাতিলই করেননি, উল্টো এই খু’নীদেরকে আশ্রয়-প্রশ্রয়ের সাথে পদন্নোতি দিয়েছেন। হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদ ১৯৮৮ তে একটি ভোটারবিহীন নির্বাচন করেন, যে নির্বাচন আওয়ামী লীগ-বিএনপিসহ সকল বিরোধী দল নির্বাচন বর্জন করেছিল। সেই নির্বাচনে হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদ বঙ্গবন্ধুর খু’নীদেরকে নিয়ে একটি দল গঠন করেন, যেই দলের নাম ছিল ফ্রিডম পার্টি এবং সেই দলকে নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহন করে সংসদে নিয়ে আসেন।*

*শুধু তাই নয়, হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদ এই ফ্রিডম পার্টিকে রাজনৈতিক দল হিসেবে স্বীকৃতি দেন এবং এই দলের মুখপাত্র হিসেবে একটি দৈনিক পত্রিকা যেটার নাম ‘দৈনিক মিল্লাত’ প্রকাশেরও অনুমতি দেন। হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদের পর ক্ষমতায় আসেন বেগম খালেদা জিয়া।*
*বেগম খালেদা জিয়া ক্ষমতায় এসেও এই খু’নীদেরকে পৃষ্ঠপোষকতা দিয়েছিলেন এবং তাঁর মদদেই এই খু’নীরা চাকরিতে পদন্নোতি পান। শুধু তাই নয়, বেগম খালেদা জিয়া ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ বাতিলে অস্বীকৃতি জানান এবং ১৯৯৬ সালের ১৫ই ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে তিনি এই খু’নীদেরকে আলিঙ্গন করেন এবং তাঁর পৃষ্ঠপোষকতায় আবারও এই খু’নীরা জাতীয় সংসদে আসে।*

*শুধু তাই নয়, এই খুনীদের প্ররোচনায় বেগম খালেদা জিয়া ১৫ই আগস্ট তাঁর ভূয়া জন্মদিন পালনের উৎসবও করেছিলেন। এভাবে বিভিন্ন সময়ে ক্ষমতাসীনরা এইসব খু’নীদেরকে আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়েছেন, কূটনৈতিক আশ্রয় দিয়েছেন, চাকরিতে পদন্নোতি দিয়েছেন, ব্যবসা দিয়েছেন এবং ক্ষমতায় বসার জন্য তাঁদেরকে সিঁড়ি হিসেবে ব্যবহার করেছিলেন। তাই এসব খু’নীদের কয়েকজন এখনো বিদেশে বহাল তবিয়তে থাকার সুযোগ পাচ্ছে।*