প্রচ্ছদ মুক্ত মতামত *ভারতে করোনা আ ক্রা ন্ত তা’বলীগ জা’মাতের পক্ষে রাজনীতি*

*ভারতে করোনা আ ক্রা ন্ত তা’বলীগ জা’মাতের পক্ষে রাজনীতি*

সুষুপ্ত পাঠক

31
*ভারতে করোনা আক্রান্ত তাবলীগ জামাতের পক্ষে রাজনীতি*

*ভারতে তাবলীগ জামাতের পক্ষে কথা বলেছেন কাশ্মিরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাহ। দিল্লিতে তাবলীগ জামাতের মসজিদে করোনা ভাইরাস ছড়ানোর প্রমাণ পাওয়ার পর তিনি টুইটে লিখেছেন, “এসব মুসলিমদের দোষারোপের অজুহাত মাত্র”!*
*যখন একে অপরের থেকে দূরে থাকতে বলা হচ্ছে, সবাইকে ঘরে থাকতে পরামর্শ দিচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, মানবজাতি হুমকির মুখে বলে যখন জাতিসংঘ সতর্ক করছে তখন কারোর কথায় কান না দিয়ে গাট্টিবোচকা নিয়ে ইসলাম প্রচার করতে গেছে নিজামুদ্দিন মার্কাজের তাবলীগওয়ালারা। এতখানি করার পরও কিছু বলতে গেলে সেটা মুসলিমদের দোষারোপের অজুহাত হয়ে যাবে! ওমর আবদুল্লাহ কি মুসলমানদের মসজিদ বন্ধ করতে পরামর্শ দিয়েছিলেন? কেন দেন নাই?*

*মাওলানা সাদ হাদিস গুলে খেয়েছেন। যে কারণে সে বিশ্বাস করে ছোঁয়াচে বা ভাইরাস বলতে ইসলাম কোন কিছুতে বিশ্বাস করতে নিষেধ করেছে। এ কারণে ভারত লকডাউন করে রাখার পরও সে তার টিমকে তাবলীগ চালিয়ে যেতে নির্দেশ দিয়েছিলো। তারা বিশ্বাস করেছিল আল্লার দ্বিনের কাজ করলে করোনা হবে না। এটা খালি হিন্দুদের হবে!*

*পৃথিবীর কোন প্রচলিত আইন এরা মানবে না। স্পষ্টত এরা রাষ্ট্র সমাজ আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখাবে। এই ফান্ডামেন্টালিস্টদের আকাম কুকামকে আবার সাপোর্ট দিতে দ্বিতীয় আরেকটি শ্রেণী তৈরি থাকে যাদেরকে মডারেট মুসলমান বলে ধরা হয়। ওমর আবদুল্লার মত আধুনিক শিক্ষা ও পাশ্চত্য ধারার জীবনযাপনের মানুষজন হচ্ছে সেই শ্রেণী। এরা তাদের সম্প্রদায়ের মানুষকে অন্ধকারে রাখতে চায় যাতে তাদের মাথায় বসে ক্ষমতা ভোগ করতে পারে। ভারতের মুসলমানদের মধ্যে ‘মুসলিম জাতি ‘ চেতনা প্রচারের পিছনে মাওলানা সাদ কান্ধলভী মত মোল্লাদের চেয়ে বেশি দায়ী ওমর আবদুল্লাহরা। তারাই ভারতে আরেকটি পাকিস্তান হবার স্বপ্ন দেখে। ভারতে তাদের রাজনীতি আসলে অবিভক্ত ভারতে জিন্না সরওয়ার্দির মত দ্বিজাতি তত্ত্বের রাজনীতি। এরাই আসল ভাইরাস…।*

*কথিত এই মডারেট (উদার) মুসলিমরা প্রচলিত আইন ও রাষ্ট্র ব্যবস্থা কাজে লাগিয়ে সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় শিখরে উঠতে চেষ্টা করে। সেক্যুলার সমাজের সুযোগ নিয়ে সব রকম সমান অধিকার নিশ্চিত করে নেয়। কিন্তু সুযোগ পেলেই মাওলানা সাদ কান্ধলভী মত মধ্যযুগীয় ফান্ডামেন্টালিস্টদের পক্ষে দাঁড়িয়ে যায়। একই দেশে প্রচলিত আধুনিক আইন থাকার পরও নিজেদের জন্য পার্সোনাল ল, ধর্মান্ধ শিক্ষা, নারীদের প্রতি তিন তালাক ইত্যাদি বর্বর ব্যবস্থার পক্ষে নিতে এদের এতটুকু লজ্জ্বা হয় না।*

*এমনকি গণতন্ত্র ও নির্বাচন বিরোধী এইসব ফান্ডামেন্টালিস্টদের রাষ্ট্রচিন্তার পক্ষে পরোক্ষভাবে দাঁড়িয়ে নিজেদের আসল চরিত্র প্রস্ফুটিত করতেও এদের দেরি হয় না।*
*সত্যি কথা বলতে কি, ভারতে তাবলীগ জামাতের পক্ষে এই সমস্ত মডারেট মুসলিমদের পাশাপাশি ধর্মনিরপেক্ষ কংগ্রেস, তৃণমূল, আম আদমি কিংবা বামপন্থীদের কথা বলতে দেখলেও আমি বিশেষ অবাক হব না…*
*সুষুপ্ত পাঠক: ব্লগার*