প্রচ্ছদ প্রবাস *সৌদিতে নি’র্যাতিতার আ’কুতি: ‘ওরা বেই’জ্জতি করে’*

*সৌদিতে নি’র্যাতিতার আ’কুতি: ‘ওরা বেই’জ্জতি করে’*

44
*সৌদিতে নির্যাতিতার আকুতি: ‘ওরা বেইজ্জতি করে'*

*‘মা গো আমারে দেশে নেও, সৌদির অবস্থা এক্কেরে খারাপ। বেটিনতে খালি কান্দে, (নারীরা শুধু কাঁদে)। ওরা খালি মারে, বেই’জ্জতি করে। আমারে দেশে ফিরায়া নেও।’ ই’মোতে কল করে মায়ের কাছে দেশে ফেরার এই আকুতি এক নারীর। যিনি ভাগ্য বদলের আসায় স্বামী-সন্তান রেখে স্থানীয় এক দা’লালের মাধ্যমে সৌদি আরব পাড়ি জমিয়েছিলেন।*
*সৌদি আরবে নি’পীড়নের শিকা’র ওই নারী (২৫) হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার বড় ভাকৈর ইউনি’য়নের এক গাড়িচালকের স্ত্রী। গত রবিবার ইমোতে কল করে পরিবারের কাছে সৌদি আরবে নি’র্যাতন-নি’পীড়নের শি’কার হওয়ার কথা জানান তিনি।*

*কান্নাজড়িত কণ্ঠে ওই নারী বলেন, ‘অফিসে দিনের পর দিন যায়, রাইতের পর রাইত যায়, খালি মারে। কেউ খানি (খাবার) দেয় না। দালালরা কয়- তোমারে দুই লাখ টেকা দি কিইন্না আনছি। আম্মাগো আমারে বাঁচাও, সালামের লগে যোগাযোগ করো। আমারে দেশে নেও।’*
*ওই দিন কথা হওয়ার পর আর যোগাযোগ নেই। গত ডিসেম্বরে সৌদি আরব যাওয়ার পর তার সঙ্গে মাত্র দুই বার পরিবারের কথা হয়। যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ায় দুশ্চিন্তায় অসুস্থ হয়ে পড়েছেন তার বাবা-মা। আর মায়ের বিহনে কান্নাকাটি করছে হতভাগা ওই নারীর অবুঝ দুটি সন্তান।*

*ওই নারীর পরিবার সূত্র জানায়, একই উপজেলার বাউসা টুনাকান্দি গ্রামের সালাম মিয়া ঢাকার ‘ভ্যালি ইন্টারন্যাশনাল’ নামে একটি ট্রাভেলস এজেন্সির মাধ্যমে গত ২৮ ডিসেম্বর তাকে সৌদি আরব পাঠায়। পরে তার পরিবার জানতে পারে, সেখানে চাকরির পরিবর্তে তাকে বিক্রি করা হয়েছে অন্য এক দালাল চক্রের কাছে। দালাল চক্রের সদস্যদের কথামতো অনৈতিক কাজ না করলে তার ওপর চালানো হয় শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন।*

*নির্যাতিতার স্বামী জানান, তিনি পেশায় একজন গাড়িচালক। তাকে না জানিয়েই দালালদের পাল্লায় পড়ে হঠাৎ বাবার বাড়ি গিয়ে সেখান থেকে সৌদি আরব পাড়ি জমান তার স্ত্রী। তার অভিযোগ, স্ত্রীকে দেশে ফেরাতে বললে নারী পাচারকারী সালাম ও জাহাঙ্গীর উল্টো দুই লাখ টাকা দাবি করে। পরে এ ঘটনায় তিনি তিনজনকে আসামি করে হবিগঞ্জ মানবপাচার ট্রাইব্যুনালে মামলা দায়ের করেছেন। সালাম ছাড়াও মামলার অন্য আসামিরা হলেন উপজেলার লতিবপুর গ্রামের জাহাঙ্গীর মিয়া ও প্রজাতপুর গ্রামের মামুন মিয়া।*
*নবীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিত কুমার পাল বলেন, নির্যাতনের শিকার ওই নারীর পরিবারের পক্ষ থেকে কেউ তথ্যসহ অভিযোগ দিলে প্রশাসন তাকে দেশে ফেরাতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে। এ ছাড়া দালালদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।*