প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয় *মধ্যরাতে সাংবা’দিককে তু’লে নিয়ে জে’ল-জ’রিমানা*

*মধ্যরাতে সাংবা’দিককে তু’লে নিয়ে জে’ল-জ’রিমানা*

99
*মধ্যরাতে সাংবাদিককে তুলে নিয়ে জেল-জরিমানা*

*কুড়িগ্রামে স্থানীয় এক সাংবাদিককে মা’দক রাখার অভি’যোগে গভীর রাতে তুলে নিয়ে এক বছরের বিনাশ্রম কা’রাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরি’মানা করা হয়েছে। কুড়িগ্রামের জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভীনের স’মালোচনা করে সংবাদ প্রকাশের ১০ মাস পর এ ঘ’টনা ঘটেছে।*
*গতকাল শুক্রবার জেলা প্রশা’সনের নির্বাহী ম্যা’জিস্ট্রেট রিন্টু বিকাশ চাকমা এ অভি’যান পরিচালনা করেন।*
*দ’ণ্ডপ্রাপ্ত সাংবাদিক আরিফুল ইসলাম রিগান। তিনি বাংলা ট্রি’বিউন-এর কুড়িগ্রাম জেলা প্রতিনিধি। জেলা শহরের চড়ুয়াপাড়ায় স্ত্রী-সন্তান নিয়ে থাকেন আরিফুল।*

*গত বছরের ১৯ মে ‘কাবিখা’র টাকায় পুকুর সংস্কার করে ডিসি’র নামে নামকরণ!’ শিরোনামে বাংলা ট্রিবিউনে একটি প্রতিবেদন করেন তিনি। প্রতিবেদনে বলা হয়, শহরের একটি সরকারি পুকুর সংস্কারের পর জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভীন নিজের নামানুসারে ‘সুলতানা সরোবর’ নামকরণ করতে চেয়েছিলেন। তবে শেষ পর্যন্ত সেই নামকরণ আর করা হয়নি।*
*আরিফুল ইসলামের স্ত্রী মোস্তারিমা সরদার নিতু বলেন, শুক্রবার রাত ১২টার দিকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একটি দল তাদের বাড়ি গিয়ে দরজায় ধাক্কা দিতে থাকে। অনেকক্ষণ ধাক্কাধাক্কির পর তিনি দরজা খুলে দেন।*

*তিনি বলেন, এরপর ১৪ থেকে ১৫ জন লোক ঘরে ঢুকে তার স্বামীকে মারধর ও টানা-হেঁচড়া করে। পরে মারতে মারতে আরিফুলকে বের করে নিয়ে যায়।*
*এ বিষয়ে ম্যাজিস্ট্রেট রিন্টু বিকাশ চাকমা বলেন, সুনির্দিষ্ট অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ, আনসার ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সমন্বয়ে টাস্কফোর্সের অভিযান পরিচালনা করা হয়।*
*তিনি বলেন, ‘এই অভিযানের সময় তার বাড়ি থেকে ৪৫০ এমএল দেশি মদ ও ১০০ গ্রাম গাঁজা উদ্ধার করে আরিফুল ইসলাম রিগানকে আটক করা হয়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের সামনে দোষ স্বীকার করায় তাকে এক বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।’*

*০৪:৩৪ বিকেল মে ১৯, ২০১৯ প্রকাশিত বাংলা ট্রিবিউনের সংবাদ: কাবিখা’র টাকায় পুকুর সংস্কার করে ডিসি’র নামে নামকরণ!*
*‘পুকুরটি পুরনো নাম রয়েছে, সেটা যদি পরিবর্তন করতে হয় তাহলে আমাদের জেলায় কোনও বিশিষ্ট ব্যক্তির নামে করা যেতে পারে, ডিসির নামে কেন?’*
*কুড়িগ্রাম শহরের জেলা প্রশাসন এলাকায় নিউ টাউন পার্ক নামে পরিচিত চল্লিশ বছরের পুরনো পুকুর সংস্কার করে ওই পুকুরের নাম পরিবর্তন করে কুড়িগ্রামের বর্তমান জেলা প্রশাসক নামানুসারে ‘সুলতানা সরোবর’ নামকরণ নিয়ে জেলা জুড়ে ব্যাপক সমালোচনা তৈরি হয়েছে।*

*জানা গেছে, ১৯৭৮ সালে কুড়িগ্রাম নতুন শহরে এই পুকুর খনন করে এর নাম দেওয়া হয় ‘নিউ টাউন পার্ক’। পরবর্তীতে বিভিন্ন সময় এই পুকুর লিজ দেওয়ার মাধ্যমে সেখানে মাছ চাষ ও পুকুর পাড়ে নার্সারি ব্যবসা পরিচালনা হতো। তবে বিভিন্ন সময় পুকুর পারে অসামাজিক কার্যকলাপের জন্য পুকুরটি সংস্কার করে এর পরিবেশ পরিচ্ছন্ন করার দাবি ওঠে। এরই প্রেক্ষিতে বিগত জেলা প্রশাসকের পরিকল্পনা মোতাবেক জেলা প্রশাসন পুকুরটি সংস্কারের উদ্যোগ নেয়। বর্তমান জেলা প্রশাসক মোছা. সুলতানা পারভীন পুকুরটি সংস্কার কাজ শুরু করেন।জেলা প্রশাসনের পুকুর সংস্কারের এ উদ্যোগ সর্বমহলে প্রশংসিত হলেও বিপত্তি ঘটে এর নাম পরিবর্তনের সিদ্ধান্তের খবরে।*

*কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, “পুকুরটি সংস্কার কাজে দশম সংসদের কুড়িগ্রাম-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য তাজুল ইসলাম চৌধুরীর মৃত্যুর পর তার অনুকূলে টিআর কাবিখা’র বরাদ্দকৃত অর্থ থেকে পুকুরটি সংস্কারের কাজ করা হয়। এতে প্রায় ১০৪ দশমিক ৫৫৫ মে.টন চাল এবং ২৫ টি সোলার স্ট্রিট ল্যাম্প বরাদ্দ দেওয়া হয়। এছাড়া অন্যস্থান থেকে ৩১ টি সোলার স্ট্রিট ল্যাম্পের বরাদ্দ কেটে এই পুকুর পারে ৫৬টি সোলার স্ট্রিট ল্যাম্প স্থাপন করা হয়। এছাড়াও জেলার কিছু ব্যক্তির স্বেচ্ছায় অনুদানের অর্থও এ সংস্কার কাজে ব্যয় করা হয়।*

*এ বিষয়ে ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি, কুড়িগ্রাম জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক দুলাল বোস বলেন, “রাষ্ট্রের টাকায় কোনও সংস্কারমূলক কাজ করে একজন জেলা প্রশাসক তার নিজের নামে নামকরণ করতে পারেন না। তিনি সরকারি দায়িত্ব পালন করতে জেলায় এসেছেন। একজন সরকারি আমলা হয়ে তার নামে কীভাবে জেলার একাটি স্থাপনার নামকরণ সম্ভব! পুকুরটি পুরনো নাম রয়েছে। সেটা যদি পরিবর্তন করতে হয় তাহলে আমাদের জেলায় কোনও বিশিষ্ট ব্যক্তির নামে করা যেতে পারে, ডিসির নামে কেন!”*

*জেলা প্রশাসক মোছা. সুলতানা পারভীন অস্ট্রেলিয়া সফরে থাকায় তার সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তবে ফেসবুকে এ বিষয়ে তার মন্তব্য জানতে চাইলে তিনি কোনও উত্তর দেননি।*
*ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মো. হাফিজুর রহমান বলেন, “পুকুরটির নামকরণ নিয়ে জেলা জুড়ে সমালোচনার বিষয়টি আমরা অবগত হয়েছি। কুড়িগ্রামের কিছু মানুষ ‘সুলতানা সরোবর’ নামকরণের প্রস্তাব করে তারাই আবার সমালোচনা করছেন। তবে ডিসি স্যার দেশের বাইরে থাকায় তার সাথে এ নিয়ে কোনও আলোচনা হয়নি।” তিনি আরো বলেন,“সংস্কারের পর পুকুরে নতুন নামকরণ নিয়ে কোনও সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি।” কাবিখা’র টাকায় পুকুর সংস্কারের বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা প্রশাসক বলেন, “কিছু মানুষের সেচ্ছায় অনুদানের টাকায় পুকুরটি সংস্কার করা হয়েছে, কাবিখা’র টাকা এতে ব্যয় করা হয়নি।”*