প্রচ্ছদ স্পটলাইট *পাপিয়ার অ’তিথ্য গ্র’হণ করেছেন যারা (তা’লিকা)*

*পাপিয়ার অ’তিথ্য গ্র’হণ করেছেন যারা (তা’লিকা)*

1491
*পাপিয়ার অতিথ্য গ্রহণ করেছেন যারা (তালিকা)*

*রা’জধানীর গু’লশানে বিলাসবহুল ও’য়েস্টিন হো’টেলের প্রেসি’ডেন্সিয়াল স্যুই’ট ভাড়া নিয়ে অসামাজিক কার্যকলাপ চালাতেন যুব মহিলা লীগের বহিষ্কৃত নে’ত্রী শামীমা নূর পাপিয়া। তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে কিছুদিন আগে। আদা’লতে চলছে তার বিচার। এবার পাপিয়ার অসামাজিক কার্যকলাপে সহায়তা করার অভি’যোগে হো’টেল ওয়ে’স্টিনের তিন কর্মকর্তাকে চাকরিচ্যুত করেছে ওয়ে’স্টিন কর্তৃপক্ষ।*
*নাম না প্রকাশের শর্তে একটি সূত্র এ ত’থ্য নিশ্চিত করেছে। বহি’ষ্কৃতদের নাম পরিচয়ও জানাতে চাননি তারা।*

*সূত্র জানায়, গতকাল মঙ্গলবার ওয়ে’স্টিন কর্তৃপক্ষ তিনজনকে চাকরিচ্যুত করে। তবে এই বিষয়ে হো’টেলটির পক্ষ থেকে এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানানো হয়নি।*
*জা’লটাকা, অ’স্ত্র ও মা’দক মা’মলায় ১৫ দিনের রি’মান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে নরসিংদী যুব মহিলা লীগের সদ্য ব’হিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক পাপিয়া ও তার স্বামী সুমন চৌধুরীকে।*
*২৩ তলাবিশিষ্ট ঢাকা ওয়ে’স্টিন হো’টেলের লেভেল-২২ এ ১ হাজার ৪১১ বর্গফুট জায়গাজুড়ে বিলাসবহুল প্রেসি’ডেন্সিয়াল স্যু’ইট। সেখানে বসে নিজের সাম্রাজ্য চালাতেন বহি’ষ্কৃত যুব মহিলা লীগ নে’ত্রী শামীমা নূর পাপিয়া।*

*মাসের পর মাস হো’টেলটির প্রেসি’ডেন্সিয়াল স্যুই’ট ভাটা নিয়ে অসামাজিক কার্যকলাপ চালাতেন তিনি। সেখানে আসতেন সরকারি বিভিন্ন আমলা, রাজনীতিবিদ ছাড়াও প্রশাসনের কর্মকর্তারা।*
*হোটেল কর্তৃপক্ষকে অন্ধকারে রেখে দীর্ঘদিন এসব কর্মকাণ্ড অব্যাহত রাখা সম্ভব নয় বলে বলছেন তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। অথচ পাঁচ তারকা এই হোটেলে বোর্ডারদের প্রতিদিনকার তা’লিকা সংশ্লিষ্ট থানায় জমা দেয়ার নিয়ম রয়েছে। কিন্তু হোটেল কর্তৃপক্ষ ঠিকমতো তা জমা দেয়নি বলে অভিযোগ ওঠে।*

*পাপিয়া থেকে তথ্য বের করে কাদের আশ্রয়-প্রশ্রয়ে এত বিপুল সম্পদের মালিক হয়ে উঠেছেন তিনি তা নিয়ে অনুসন্ধান চালাচ্ছে তদন্ত কর্মকর্তরা।*
*আইনশৃঙ্খলা বা’হিনীর কর্মকর্তা জানিয়েছেন, পাপিয়ার পাপকাণ্ডের বিস্তৃত রাজ্যের অনেকটা জুড়েই রয়েছে রাজধানী ঢাকার গুলশানের হোটেল ও’য়েস্টিন। পাপিয়ার ঘট’নাকে কেন্দ্র করে ওয়ে’স্টিন কর্তৃপক্ষের অন্তত পাঁচটি পাপ আইন প্রয়োগকারী সংস্থা এবং গোয়েন্দা সংস্থার কাছে ধরা পড়েছে।*
*ওয়েস্টিনে পাপিয়া ১২৯ দিন ছিলেন। গত বছরের ১৩ অক্টোবর পাপিয়া প্রথম ওয়ে’স্টিনে সাধারণ চারটি রুম বুক করেন। ওই চারটি রুমের একটিতে ছিলেন পাপিয়া, একটিতে তার স্বামী সুমন এবং বাকি দুটিতে ছিল তার বডি’গার্ডসহ কেএমজির ক্যা’ডাররা।*

*১৫ অক্টোবরে পর প্রেসি’ডেনশিয়াল রুমে চলে যান। ওই রুমগুলোতে থাকা বাবদ ওই সময়ে পাপিয়া প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকা ওয়ে’স্টিনকে ক্যা’শ পরিশোধ করেছেন।*
*এছাড়া ওয়েস্টি’নের বার এবং সুইমিং পুল ব্যবহার করে বিপুল পরিমাণ অর্থ খরচ করেছেন পাপিয়া।*
*প্রতিদিনই রাত ১টার পর হো’টেল ওয়েস্টি’নের ২৩ তলার বারে নাচের আসর জামাতেন পাপিয়া। সেখানে ম’দ্য পানের সঙ্গে উদ্যাম নৃত্য এবং নানারকম অপকর্মে মত্ত থাকতেন পাপিয়ার অতিথিরা।*

*ওই ১২৯ দিনে এসব সার্ভিস প্রদানের কারণে ওয়েস্টিনের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মচারীদের পাপিয়া প্রতিদিন আট থেকে দশ হাজার টাকা টিপস বা বকশিস হিসেবে দিতেন।*
*গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে, প্রথমত, ১২৯ দিনে পাপিয়ার সেই স্বর্গরাজ্যের অবস্থান করেছে তার কোনো নথি, তথ্য-উপাত্ত ওয়েস্টিন কর্তৃপক্ষ সংগ্রহ করেনি। ওই সাড়ে চার মাসে পাপিয়ার স্যূটে যেসব ‘এসকট’ অবাধে যাতায়াত করত তাদের নাম-পরিচয় উল্লেখ নেই ওয়েস্টিনের খাতায়।*
*এছাড়া পাপিয়ার আমন্ত্রণে তার প্রেসিডেনশিয়াল স্যূটে যেসব প্রভাবশালী ব্যক্তি আসতেন তাদের নথিও রাখেনি ওয়েস্টিন। একটা পাঁচ তারকা হোটেলের জন্য এ বিষয়টি একটি গর্হিত অপরাধ।*

*যারা আতিথ্য গ্রহণ করেছেন: পাপিয়ার আহ্বানে যারা অতিথ্য গ্রহণ করেছেন সেই তালিকায় অনেক সাংবাদিক, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ও সুশীল, কয়েকজন টিভি মালিকসহ আরো প্রভাবশালী অনেকের নাম আছে। ইতিমধ্যে দুইজনকে জিজ্ঞাসাবাদও করেছে গোয়েন্দা সংস্থা। বিপদ টের পেয়ে কয়েকজন বিদেশ পাড়ি জমিয়েছেন। মোট ১১ পৃষ্ঠা তালিকার কথা শোনা যাচ্ছে।*
*বিশেষ মাধ্যমে ফাঁস হওয়া তালিকায় যাদের নাম পাওয়া গিয়েছে, অধিকাংশ জনই হয়তো শুধুমাত্র টাকার বিনিময়ে সেবা নিয়ে থাকবেন ও পাপিয়া নিজেকে বাঁচাতে সমাজের বিশিষ্টজনদের তার তালিকায় তুলে আনছেন। গোয়েন্দারা তদন্ত করে দেখছেন, নিচের তালিকাটি গোয়েন্দাদের তালিকার একটি বিশেষ অংশ (এই তালিকাটি তদন্ত শেষে হয়তো গ্রহণযোগ্য হবে না):*

*১. কবির বিন আনোয়ার-সচিব পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়। ২. জাফর উদ্দিন -সচিব, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। ৩. লোকমান হোসেন -সচিব, বস্ত্র ও পাট। ৪. পঙ্কজ দেবনাথ -সাবেক সা. সম্পাদক স্বেচ্ছাসেবকলীগ। ৫. মোহাম্মদ এ আরাফাত -পরিচালক সুচিন্তা ফাউন্ডেশন (শমি কায়সারের স্বামী)। ৬. সৌরেন্দ্রনাথ চক্রবর্ত্তী -সচিব,পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগ। ৭. নাসিরুজ্জামান- সচিব, কৃষি মন্ত্রণালয়। ৮. আশরাফুল আলম খোকন- প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সেক্রেটারী। ৯. দবিরুল ইসলাম এমপি, ঠাকুরগাঁও ২। ১০. বজলুর রহমান -পরিচালক এফবিসিসিআই। ১১. মনোরঞ্জন শীল গোপাল – এমপি, দিনাজপুর ১।*

*১২. রানা মোহাম্মদ সোহেল এমপি, নীলফামারী ৩। ১৩. মশিউর রহমান রাঙা এমপি ও মহাসচিব জাতীয় পার্টি। ১৪. সেলিম আলতাফ জর্জ, এমপি, কুষ্টিয়া-১। ১৫. সাইফুজ্জামান শিখর এমপি, মাগুরা ১। ১৬. ফাহমি গোলন্দাজ বাবেল, এমপি, ময়মনসিংহ ১০। ১৭. অসীম কুমার উকিল এমপি, নেত্রকোনা ৩। ১৮. নাঈমুর রহমান দুর্জয়- সাংসদ ও বিসিবি পরিচালক। ১৯. আসলামুল হোক এমপি, ঢাকা ১৪। ২০. জিএম হায়দার আলী -ব্যবসায়ী ও সহসভাপতি বাংলাদেশ নিট ডাইং অনার্স এসোসিয়েশন। ২১. দিলীপ কুমার আগরওয়ালা -ব্যবসায়ী।*

*২২) আবুল আয়েস খান, গার্মেন্ট ব্যবসায়ী। ২৩) খন্দকার মাইনুর রহমান খান জুয়েল, পাট ব্যবসায়ী। ২৪) চৌধুরী তানভীর আহমেদ সিদ্দিকী, সাবেক সভাপতি এফবিসিসিআই। ২৫) সাইফুজ্জামান চৌধুরী, মন্ত্রী, ভূমি মন্ত্রণালয়। ২৬) জাকির হোসেন, প্রতিমন্ত্রী, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। ২৭) কে এম খালিদ বাবু, প্রতিমন্ত্রী, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়। ২৮) ফরহাদ হোসেন, প্রতিমন্ত্রী, জন প্রশাসন মন্ত্রণালয়। ২৯) লিয়াকত সিকদার, সাবেক সভাপতি, ছাত্রলীগ। ৩০) জি, কে শামীম (গ্রেফতার হওয়া গণপুর্তের ঠিকাদার)। ৩১) ফরাজী আজমল হোসেন, ইত্তেফাকের রাজনৈতিক এডিটর। ৩২) শামীম সিদ্দিকী, বিডি জার্নাল। ৩৩) মিথুন মোস্তাফিজ, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক (প্রাক্তন সাংবাদিক)। ৩৪) এম এ মুহিত, ব্যবস্থাপনা পরিচালক, চ্যানেল১৬।*

*আরো বিশিষ্টজনের দীর্ঘ তালিকা প্রকাশ হবে অচিরেই। জানা গেছে, ধনাঢ্য বক্তিবর্গের মধ্যে অনেকে শুধুমাত্র বিনোদনের উদ্দেশ্যে পাপিয়ার আস্তানায় গিয়ে উঠেছেন। তারা নিশ্চয় অপরাধের সঙ্গে যুক্ত নন। আবার বানোয়াট তালিকা তৈরি করে বিভিন্ন মিডিয়ায় বিকৃত তথ্য জুড়ে দিয়ে সম্মানিতদের সম্ভ্রমহানির চেষ্টা করা হচ্ছে, এটা নিশ্চয় দুঃখজনক ঘটনা।*