প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয় *দুঃখি’ত প্রধানমন্ত্রী বললেন, ‘বেঁচে থাকতে কত টাকা লাগে?’*

*দুঃখি’ত প্রধানমন্ত্রী বললেন, ‘বেঁচে থাকতে কত টাকা লাগে?’*

268
*দুঃখিত প্রধানমন্ত্রী বললেন, ‘বেঁচে থাকতে কত টাকা লাগে?’*

*টানা ১১ বছরের বেশি সময় ক্ষমতায় থাকার ফলে আওয়ামী লীগের অনেক নেতাই ফুলেফেঁপে উঠেছেন, বিত্তশালী হয়েছেন, হয়েছেন অঢেল সম্পত্তির মালিক। অথচ তাঁদের বৈধ আয়ের উৎস বলতে তেমন কিছু নেই। আওয়ামী লীগের বিভিন্ন প্রভাবশালী নেতাদের অর্থবিত্তের বৈভবের বিবরণ সম্বলিত একটা গোপন প্রতিবেদন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে দেয়া হয়েছে। এই প্রতিবেদন দেখে আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই বিস্মিত। বিস্ময়ে প্রশ্ন করেছেন, ‘একটা মানুষের বেঁচে থাকতে কত টাকা লাগে? এরা কি টাকা কবরে নিয়ে যাবে? কেন তাঁরা এসব করে?’*

*সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, প্রধানমন্ত্রী এই সমস্ত অবৈধ অর্থবিত্তশালীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন এবং এদের ব্যাপারে কোন প্রকার করুণা বা মার্জনা না দেখানোর নির্দেশনা দিয়েছেন। জানা গেছে, শুধুমাত্র তৃণমূল কিংবা অঙ্গসহযোগী সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরাই নয়, অনেক বড় বড় কেন্দ্রীয় নেতার বিরুদ্ধেও বিপুল সম্পদ এবং অর্থবিত্তের মালিক হওয়ার তথ্য এখন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে।*
*আওয়ামী লীগের এবারের কাউন্সিলের মাধ্যমে প্রেসিডিয়াম সদস্য হওয়া একজন নেতা, যিনি ঋণখেলাপিও বটে। তাঁর বিপুল পরিমাণ বিত্তসম্পদের খবর পাওয়া গেছে। অথচ তিনি রাজনীতি ছাড়া অন্য কিছু করেন না। তাঁর স্ত্রী সম্প্রতি চাকরি থেকে অবসর গ্রহণ করেছেন। অথচ তিনি রাজকীয় জীবনযাপন করেন, কিভাবে? এই প্রশ্ন উঠেছে।*

*আওয়ামী লীগের আরেক কেন্দ্রীয় নেতা। তাঁরও কোন বৈধ আয় নেই। কিন্তু তিনি বিলাসবহুল অফিস পরিচালনা করেন। তাঁর বিত্তসম্পদ প্রতিদিন জ্যামিতিক হারে বাড়ে। কিন্তু ২০০৮-এ আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার আগে ঐ নেতা যেমন আলোচিত ছিলেন না, তেমনি তাঁর অর্থবিত্তও তেমন কিছু ছিলনা। এখন তাঁর অফিস কক্ষে গেলেই মানুষের পিলে চমকে ওঠার অবস্থা হয়।*
*আওয়ামী লীগের আরেকজন কেন্দ্রীয় নেতা। যিনি তেমন কিছুই করেন না। তবে অনুসন্ধানে বাংলাদেশের বাইরে অন্তত তিনটি দেশে তাঁর বাড়ির খবর পাওয়া গেছে। শুধুমাত্র রাজনৈতিক পরিচয় ব্যবহার করেই ইয়িনি ধনাঢ্য হয়েছেন এবং এসব বিপুল সম্পদের মালিক হয়েছেন বলে জানা গেছে।*

*প্রধানমন্ত্রীর কাছে দেয়া প্রতিবেদন থেকে জানা গেছে যে, মন্ত্রিসভার অনেক সদস্যই মন্ত্রী হওয়ার পরে বিপুল সম্পদের মালিক হয়েছেন। মন্ত্রিসভার একজন গুরুত্বপূর্ণ সদস্যের পুত্রের বিরুদ্ধে দূর্নীতি দমন কমিশন অনুসন্ধান চালাচ্ছে এবং তিনি সিঙ্গাপুরে একটি কোম্পানি করেছেন, মন্ত্রনালয়ে তিনি প্রভাব বিস্তার করে বিভিন্ন কাজ পাইয়ে দেয়ার বিনিময়ে বিপুল পরিমাণ সম্পদের মালিক হয়েছেন।*

*এরকম একটি ঘটনা নয়, বহু ঘটনাই রয়েছে। তবে আশার কথা এই যে, যারা দুর্বত্তায়ন করছেন, যারা হঠাত করে ফুলেফেঁপে উঠেছেন, যারা আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ হয়েছেন- তাঁদের সংখ্যা খুবই কম। আওয়ামী লীগের অধিকাংশ নেতা এখনও রাজনীতিকে ধ্যান-জ্ঞান মনে করেন, আদর্শের চর্চা করেন এবং রাজনীতিকে মানুষের সেবা করার মাধ্যম হিসেবে মনে করেন। এধরনের আওয়ামী লীগের সংখ্যাই বেশি। একারণেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আবারো কঠোর অবস্থানে চলে যাচ্ছেন। যেসমস্ত প্রভাবশালী নেতাদের বিরুদ্ধে অনৈতিকভাবে বিত্তশালী হবার তথ্য-প্রমাণ রয়েছে তাঁদের বিরুদ্ধে তদন্ত করা এবং তদন্তে যদি প্রমাণিত হয় যে তাঁদের সম্পত্তি বৈধ নয়, বরং তাঁরা রাজনীতিকে হাতিয়ার বানিয়ে এসমস্ত সম্পদের মালিক হয়েছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে যেন ব্যবস্থা গ্রহণে যেন কোন কার্পণ্য না করা হয় সে ব্যাপারে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।*
*সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, আওয়ামী লীগ সভাপতি বারবার করে বলছেন যে, রাজনীতি একটি পবিত্র জিনিস, রাজনীতি মানুষের সেবা করার বিষয়। রাজনীতিকে কেউ যদি বিত্তশালী হবার সিঁড়ি হিসেবে ব্যবহার করে তবে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতেই হবে। কারণ রাজনীতি কলুষিত হলে, সবথেকে বেশি কলুষিত হবে আওয়ামী লীগ।*