প্রচ্ছদ মুক্ত মতামত *কাদি’য়ানীদের লা’শ নদীতে ফে’লার ঘো’ষণা ও দিল্লি সংঘ’র্য*

*কাদি’য়ানীদের লা’শ নদীতে ফে’লার ঘো’ষণা ও দিল্লি সংঘ’র্য*

সুষুপ্ত পাঠক

216
*কাদিয়ানীদের লাশ নদীতে ফেলার ঘোষণা ও দিল্লি সংঘর্য*

*বাংলাদেশে এখন পৌষ মাস। সাম্প্র’দায়িক কী’টদের পৌষমাসের উত্তাপে না জানি কার ঘরে আ’গুন লাগে। সাম্প্র’দায়িক আগু’নের ভ’য়ে ভী’ত ঘরপো’ড়া মানুষজন। এদেশের সাম্প্র’দায়িক লোকজন এখন অসাম্প্রদায়িক সাজছে। মোদি সাম্প্রদায়িক মুসলিমবি’রোধী, তাই তাকে বাংলাদেশে ঢু’কতে দেয়া হবে না। কয়েকদিন আগে আহমদ শফি কাদি’য়ানীদের লা’শ কবর থেকে তুলে নদীতে ফে’লে দেয়ার ঘো’ষণা করেছিলো। কাদিয়া’নী গোষ্ঠিদের উপর হে’ফাজত ইসলামের উশ’কানিতে ঠিক ভারতের মুসলিমদের মতই ভী’তি ছড়িয়েছিলো। তখন কি ভি’পি নূর, আসিফ নজরুলরা ঘোষ’ণা দিয়েছিলো আহমদ শফিকে ঠে’কাতে হবে? তারা কি বলেছিলো তার মাহ’ফিল যেভাবেই হোক ঠে’কাতে হবে? বলে নাই।*

*কারণ কাদি’য়ানীদের তারাও সহি মুসলমান বলে মনে করে না। আহমদ শফি যখন হিন্দুদের চোর বলেছিলো, হেফাজত ইসলাম যখন নাসিরনগরে হা’মলা চালিয়ে ছিলো, তখন কি কেউ হেফাজত ইসলামকে ঠে’কানোর ঘোষ’ণা দিয়েছিলো? দেয়নি। কারণ হিন্দুদের বিষয়ে মুসলমানদের মাথা ব্যথা নেই।*
*এই যে দিল্লির ঘটনায় ইমরান খান অসাম্প্রদায়িক সাজছে তাও কম কৌতুককর নয়। যার দেশে কদিন আগেই আসিয়া বিবিকে দেশ ছাড়তে হলো ব্লা’সফেমির কারণে। যার দেশে হিন্দু মেয়েদের জো’র করে উঠিয়ে বিয়ে করে মুসলিম বানানো হয়। হিন্দু সম্পত্তি দখ’ল করা হয়। সেই ইমরান খান বলছে দিল্লির ঘট’না নিয়ে বিশ্বনে’তাদের হস্তক্ষেপ করতে! তার সেনাবাহিনী যে বেলুচদের ঘরে ঢুকে ঢুকে নারীদের ধ’র্ষণ করে, পাকিস্তান দখ’লকৃত কাশ্মিরীদের উপর জু’লুম করে তা সেখানে কে হস্তক্ষেপ করবে?*

*দিল্লির দাঙ্গায় মুসলিম লাশের সঙ্গে হিন্দুর লা’শও হিমঘরে গিয়ে পড়ছে। আমরা এতখানি অসভ্য হয়ে যাচ্ছি যে লা’শেরও সাম্প্রদায়িক পরিচয় করিয়ে দিতে হচ্ছে। কারণ বাংলাদেশের মূলধারার মিডিয়ার অনলা’ইন সংস্করণে উশকানিমূলক শিরোনাম হচ্ছে। ‘দিল্লিতে বেছে বেছে মুসলিমদের হ’ত্যা করা হচ্ছে’ এই শিনোরাম কি বলে দিল্লিতে দা’ঙ্গায় হিন্দুও ম’রছে?*
*বলেনি। ঘটনা হচ্ছে এখন পর্যন্ত ১২ জন মুসলিম লা’শের বিপরীতে ৭ জন হিন্দুর লা’শও পড়েছে। কিন্তু এরকম শিরোনাম বাংলাদেশী সাম্প্রদায়িক মুসলিমদের উশ’কানি দিতে পারে। বাংলাদেশের ঘরপোড়া হিন্দুরা এখন ভী’ত-শং’কিত।*

*আমাদের টেলিভিশন টকশোতে সেসব নিয়ে মাথাব্যথা নেই। আগেই বলেছি যদি সত্যিকারের অসাম্প্রদায়িক উদ্দেশ্য থাকত তাহলে আহমদ শফিকে ঠেকানোর আওয়াজ উঠত। মোদির বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িকতার ঝান্ডা তুলছে বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িকরাই। কাদিয়ানী গোষ্ঠির বিরুদ্ধে হেফাজত ইসলামের দেশব্যাপী ঘৃণা উশকানির জন্য সলিমুল্লাহ খান কি বলেছিলেন বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক চেহারা বেরিয়ে গেছে? বলেনি। পাকিস্তানে চীনের প্রেসিডেন্টের সফর হলে কি সলিমুল্লাহ খান বলেন, বেলুচদের উপর জুলুম, পাকিস্তানী হিন্দু খ্রিস্টানদের উপর সাম্প্রদায়িক অত্যাচারকে চীনের এই সফর বৈধতা দিয়েছে। বলেননি। কিন্তু ট্রাম্পের ভারত সফর নিয়ে তিনি সরব।*

*বাংলাদেশের দিল্লির ইস্যু নিয়ে আগামীকাল মোল্লারা পরিস্থিতি ঘোলা করতে চাইবে। উশকানি দিবে বাংলাদেশের সংখ্যালঘুদের উপর নির্যাতন ঘটাতে। বাংলাদেশ সরকার কি প্রস্তুত আছে? বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সারাদেশের নেতাকর্মীদের ফেইসবুক ওয়াল ঘুরে আসলেই বুঝতে পারবেন এরা সকলেই স্থানীয় হেফাজত ইসলামের প্রতি কতখানি অনুগত। কাজেই সংগঠনিকভাবে সরকারী দলের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষার কোন সম্ভাবনাই নেই। পুলিশ র‌্যাব দিয়ে কখনই অসাম্প্রদায়িকতা আনা যায় না যদি সেটা জনগণের হৃদয় থেকে না আসে।*

*বিগত ১২ বছরে এই সরকার দেশে অসাম্প্রদায়িক চেতনা জেগে উঠবার মত কি এমন কোন কর্মসূচী গ্রহণ করেছে যা দেশে অসাম্প্রদায়িক চেতনা জেগে উঠবে? রাষ্ট্রীয়ভাবে নিজেদের ‘মুসলমান’ বলে বারবার অভিহত করে এখন বাংলাদেশে বসবাসকৃত সব জাতি সম্প্রদায়কে কিভাবে একটি জাতি সত্ত্বা বলে অভিহত করা যাবে?
ভারতের দিল্লির মুসলিমদের উপর হামলা হলে সেটা নিন্দনীয় কিন্তু তার কারণে আমাদের দেশের হিন্দুরা যে কিছুতে তার জন্য দায়ী নয় সেটা বুঝার মত শুভবুদ্ধির মানুষ আমরা বানাতে পারিনি। কারণ মুসলিম উম্মাহ হিসেবে আমরা রাষ্ট্রীয়ভাবেই অবস্থান নিয়েছি। এই উম্মাহ জাতীয়তাবাদই কেবল বিশ্বের দূরতম কোন স্থানে কোন মুসলমান আক্রান্ত হলে প্রতিশোধ হিসেবে নিজ দেশের ভাইকেই শত্রু বলে জ্ঞান করতে শেখায়।*

*ধর্মীয় পরিচয় রেখে সম্প্রীতি আশা করা মূর্খদেরই কাজ নয় ভণ্ডদেরও মেকি আশাবাদ। আমাদের কেবলই মানুষ হিসেবে মানুষের বেঁচে থাকার অধিকারকে স্বীকার করতে হবে। বাংলাদেশের সকল মানুষের অধিকারে বিশ্বাস করতে হবে। সাম্প্রদায়িক কুমিরগুলোর বিরুদ্ধে সজাগ হয়ে বাংলাদেশের সকল জাতি সম্প্রদায়ের সম্প্রীতির পক্ষে প্রচার চালান। ঘৃণ্য সাম্প্রদায়িক কীটদের বিরুদ্ধে লিখুন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অসাম্প্রদায়িক বার্তা মানুষের মনে জাগিয়ে তুলুন। আমাদের শেষ চেষ্টা করে যেতে হবে…।*
*সুষুপ্ত পাঠক: প্রবাসী ব্লগার*