প্রচ্ছদ জীবন-যাপন *গা’ড়িচালকের মেয়ে পাপিয়া ও গানের শিক্ষকের ছেলে সুমন*

*গা’ড়িচালকের মেয়ে পাপিয়া ও গানের শিক্ষকের ছেলে সুমন*

656
*গাড়িচালকের মেয়ে পাপিয়া ও গানের শিক্ষকের ছেলে সুমন*

*নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক শামিমা নূর পাপিয়া। বাবা ছিলেন অ’টো গ্যা’রেজের মালিক। এক সময় তেমন কিছুই ছিল না তাদের। কিন্তু গত পাঁচ বছরে অর্থবিত্ত অর্জন করে আঙুল ফুলে গলা গাছ বনে গেছেন। গাড়ি, বাড়ি, ফ্ল্যা’ট কিনে হয়েছেন শত কোটি টাকার মালিক। দেশে গাড়ির ব্যবসার পাশাপাশি বিদেশে দিয়েছেন বার। সবই করেছেন অন্যায় ও অপ’কর্মের ওপর ভর করে। ধনাঢ্য ব্যবসায়ীদের ব্লা’কমেইল, চাঁ’দাবাজি, মা’দক ব্যবসা ও দে’হ ব্যবসাই তাদের মূল পেশা।*

*জানা যায়, নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক শামিমা নূর পাপিয়া ওরফে পিউ। নরসিংদীর বাগদী এলাকায় পে’ট্রোবাংলার অবসরপ্রাপ্ত গা’ড়িচালক সাইফুল বারীর মেয়ে। বর্তমানে তার বাবার নিজ এলাকায় একটি অ’টোর গ্যা’রেজ রয়েছে। সেখানে বেশ কয়েকটি অ’টো গাড়ি ভাড়া দিয়ে চলে তাদের সংসার।
সম্প্রতি পাপিয়া দোতলাবিশিষ্ট আধুনিক একটি বাড়ি করেছেন। তার স্বামী মফিজুর রহমান চৌধুরী সুমন গানের শিক্ষক মতিউর রহমান চৌধুরীর বড় ছেলে। মতিউর রহমান স্থানীয় নজরুল এ’কাডেমির অধ্যক্ষের দায়িত্বে রয়েছেন। একসময় সুমনেরও তেমন কিছুই ছিল না। আধাপাকা টি’নশেড ঘরেই কেটেছে তার শৈশব। এস’এসসির গণ্ডি পার হওয়ার পর থেকেই তার অপকর্মের সূত্রপাত।*

*২০০০ সালের দিকে নরসিংদী শহর ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক মফিজুর রহমান চৌধুরী সুমনের উত্থান শুরু। শৈশব থেকেই চাঁ’দাবাজি স’ন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ও ব্ল্যা’কমেইল ছিল সুমনের প্রধান পেশা। দূরদর্শী, চতুর ও মাস্টার’মাইন্ড সুমন রাজনীতিবিদদের সঙ্গে সখ্য গড়ে তোলেন। ২০০১ সালে পৌরসভার কমি’শনার মানিক মিয়াকে যাত্রা প্যা’ন্ডেলে গিয়ে হ’ত্যার পর তিনি আলোচনায় আসেন। এরই মধ্যে পাপিয়া চৌধুরীকে বিয়ে করেন সুমন। এরপর তার স্ত্রী পাপিয়াকে রাজনীতিতে কাজে লাগান।*

*পাপিয়ার বিলাসী জীবন, অপ’কর্মের সঙ্গী স্বামী সুমন*
*শামীমা নূর পাপিয়া ওরফে পিউ- যুব মহিলা লীগের এই নেত্রীর ছবিতে এখন সয়লাব সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম। কোনো ছবিতে চুল উঁচু করে বেঁধে নরম সোফায় বেতের লাঠি হাতে বসে আছেন। আবার কোনো ছবিতে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের সঙ্গে হাসিমুখে দাঁড়িয়ে আছেন তিনি। রাজনীতির মাঠে তিনি সক্রিয়। দলীয় সব কর্মসূচিতে তাকে দেখা যেত।*

*অত্যন্ত বিলাসবহুল জীবনযাপনে অভ্যস্ত পাপিয়া ফা’ইভ স্টা’র হো’টেল ওয়ে’স্টিনের বিলাসবহুল কক্ষ ‘প্রেসি’ডেনশিয়াল স্যু’ইট’ ভাড়া নিয়ে ‘অসামাজিক কার্যকলাপ’ চালাতেন। যে আয় করতেন, তা দিয়ে হো’টেলে বি’ল দিতেন কোটির টাকার উপরে। গত ১২ অক্টোবর থেকে ১৩ ফেব্রুয়ারি- এই ৫৯ দিনে তিনি ৮১ লাখ ৪২ হাজার টাকা নগদ পরিশোধ করেছেন। ব্যবহার করতেন ৫টি গাড়ি। তার কালো ও সাদা রঙের দুটি হায়েস মাইক্রো’বাস, একটি হ্যা’রিয়ার, একটি নো’য়া ও একটি ভি’জেল কা’র আছে।*
*র‌্যাব কর্মকর্তাদের ধারণা, মাদ’ক-অ’স্ত্র চোরা’চালান, জমি দ’খল করিয়ে দেয়া, হোটেলে নারীদের দিয়ে যৌ’ন বাণিজ্য থেকে মোটা অঙ্কের অর্থ আসত ক্ষমতাসীন দলের সহযোগী সংগঠনের এই নে’ত্রীর হাতে।*

*শনিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) ভারত যাওয়া সময় বিমানবন্দরে গ্রেফতার হন পাপিয়া, তার স্বামী নরসিংদীর সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মফিজুর রহমান ওরফে সুমন চৌধুরী ওরফে মতি সুমন এবং তাদের সহযোগী সাব্বির খন্দকার (২৯) ও শেখ তায়্যিবা (২২)। সেসময় তাদের কাছ থেকে ৭টি পাসপোর্ট, ২ লাখ ১২ হাজার ২৭০ টাকা, ২৫ হাজার ৬০০ টাকার জাল নোট, ৩১০ ভারতীয় রুপি, ৪২০ শ্রীলঙ্কান রুপি ও ৭টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়।*
*জানা গেছে, সব পাঁচ তারকা হোটেলেই ছিল পাপিয়ার এসকর্ট ব্যবসা। দেশের অভিজাত কিছু মানুষ ও বিদেশিরাই এর গ্রাহক। ইন্টা’রনেটে এস’কর্ট সা’র্ভিস খুলে খদ্দেরদের কাছে তাদের চাহিদামতো সুন্দরী তরুণী পাঠাতেন।*

*রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে পাপিয়া শিক্ষিত সুন্দরী তরুণীদের সংগ্রহ করতেন। একপর্যায়ে তাদেরকে ধনাঢ্য ব্যক্তিদের শয্যাসঙ্গী হতে বাধ্য করতেন পাপিয়া। এরইমধ্যে পাপিয়ার কাছ থেকে গোপন ক্যামেরায় ধারণকৃত অনেক ধনাঢ্য ও প্রভাবশালী ব্যক্তির অন্তরঙ্গ দৃশ্যের ভি’ডিও ক্লি’প উদ্ধার করেছেন র‍্যা’ব কর্মকর্তারা। গোপন ক্যা’মেরায় মেয়েদের ছবি ধারণ করে তাদের নিয়মিতভাবে ব্ল্যা’কমেইল করতেন তিনি। পাপিয়ার কাছ থেকে উদ্ধারকৃত একটি ভি’ডিও ক্লি’পে দেখা যায়- পাপিয়া বসে আছেন বাই’জিবাড়ির সর্দারনির মতো। তার হাতে মোটা একটি বেতের লাঠি। তার কব্জায় থাকা মেয়েরা কথা না শুনলে পেটাতেন।*

*র‌্যাব-১ এর উপঅধিনায়ক সাফাত জামিল ফাহিম জানান, ভারতে যাওয়ার সময়ও পাপিয়া ও’য়েস্টিন হোটে’লের প্রেসি’ডেনসিয়াল স্যুই’টের বু’কিং বাতিল করেননি। যার একটি কক্ষের প্রতি দিনের ভাড়া ২০ হাজার টাকার বেশি। গত বছরের ১২ অক্টোবর তিনি প্রথম হোটেল ওয়ে’স্টিনের প্রেসিডে’নসিয়াল স্যুই’টটি ভাড়া নেয়। গ্রেফতারের পূর্ব মুহূর্ত পর্যন্ত তার নামেই ছিল এই স্যু’ইট। তবে মাঝে বেশ কিছুদিন ছিলেন না।*
*সাফাত জামিল জানান, এই স্যু’ইটে মোট চারটি কক্ষ। তবে আরও দুটো কক্ষ ভাড়া নেয়া ছিল পাপিয়ার নামে।*

*পাপিয়ার বিরুদ্ধে যে মাম’লাগুলো হয়েছে, তার বিবরণ অনুযায়ী মোট ৫১ দিন তিনি ওই কক্ষ ছিলেন। আর এ জন্য বিল মিটিয়েছেন ৮১ লাখ ৪২ হাজার ৮৮৭ টাকা। আর এই হো’টেলে এই সময়ের জন্য অবস্থানকালে বারবার ব্যবহারের জন্য ব্যয় করেছেন ১ কোটি ২৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা। প্রতিদিন হো’টেল বেয়া’রাদের টি’পস দিতেন নগদ ৮-১০ হাজার টাকা।*

*র‍্যাব জানায়, পাপিয়া এবং তার স্বামীর মালিকানায় ইন্দি’রা রো’ডে দুটি ফ্ল্যা’ট, নরসিংদীতে দুটি ফ্ল্যা’ট ও ২ কোটি টাকা দামের দুটি প্লট, তেজগাঁওয়ে এফডিসি ফট’কের কাছে ‘কার এক্সচেঞ্জ’ নামের গাড়ির শোরুমে ১ কোটি টাকার বিনিয়োগ ও নরসিংদী জেলায় ‘কেএ’মসি কার ওয়া’শ অ্যা’ন্ড অ’টো সলি’উশন’ নামের প্রতিষ্ঠানে ৪০ লাখ টাকা বিনিয়োগ আছে। নরসিংদী শহরের ভাগদী এলাকায় পাপিয়াদের দোতলা বাড়ি। সুমনের বাড়ি পশ্চিম ব্রাহ্মন্দী এলাকায়।*

*স্থানীয়রা জানান, ২০০৬ সালে নরসিংদী সরকারি কলেজে পড়ার সময় পাপিয়ার সঙ্গে সুমনের সম্পর্ক হয়। ২০০৯ সালে তারা বিয়ে করেন। বিয়ের পর থেকেই তারা স্থানীয় রাজনীতিতে সক্রিয় হয়ে ওঠেন। ২০১০ সালে নরসিংদী শহর ছাত্রলীগের আহ্বায়ক করা হয় পাপিয়াকে। সর্বশেষ ২০১৮ সালে তাঁকে জেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক করা হয়।*
*পাপিয়ার সব কর্মকাণ্ডের অন্যতম অংশীদার তার স্বামী সুমন চৌধুরী। সুমন বেশিরভাগ সময় থাইল্যান্ডে অবস্থান করলেও গত থার্টিফার্স্ট নাইটে রাজধানীর একটি পাঁচ তারকা হোটেলে অবস্থান করেন। ওই রাতে তার কক্ষেও চার-পাঁচ জন সুন্দরী নারী ছিল বলে গোয়েন্দাদের কাছে তথ্য রয়েছে।*

*নরসিংদী শহর ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক মফিজুর রহমান চৌধুরী সুমন। প্রয়াত মেয়র লোকমান হোসেনের দ্বারা রাজনীতিতে হাতেখড়ি। শৈশব থেকেই সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন সুমন। ২০০১ সালে পৌরসভার কমিশনার মানিক মিয়াকে যাত্রা প্যান্ডেলে গিয়ে হত্যার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। ওই হ’ত্যাকাণ্ডের এজাহারভুক্ত আসামি সুমন ওরফে মতি সুমন। হত্যাকাণ্ড ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের ওপর ভর করে তার উত্থান।*

*বছর দশেক আগে প্রেমের সম্পর্কের পর পাপিয়া চৌধুরীকে বিয়ে করেন সুমন। লোকমান হত্যাকাণ্ডের পর বর্তমান মেয়র কামরুজ্জামানের সঙ্গে সখ্য গড়ে তোলেন। মেয়রের ক্যা’ডার হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন। বছর তিনেক পর পাপিয়া চৌধুরীর ওপর স’ন্ত্রাসী হা’মলা হয়। ওই সময় পাপিয়াকে গুলি করে সন্ত্রাসীরা। এরপর তারা নরসিংদী ছেড়ে ঢাকায় পাড়ি জমান। ঢাকায় এমপি সাবিনা আক্তার তুহিনের সঙ্গে সখ্য গড়ে ওঠে। এর পর থেকে পাপিয়া ও সুমন রাজধানীর সাবেক এক সংরক্ষিত এমপির আস্থাভাজন হয়ে ওঠেন। ওই এমপির সঙ্গে তার গাড়ির ব্যবসা আছে বলে জানা গেছে।*

*নরসিংদীতে রয়েছে সুমন ও পাপিয়ার বিশাল কর্মীবাহিনী। নরসিংদী কলেজ শাখা ছাত্রলীগ ও জেলা ছাত্রলীগের অনেক নেতাকর্মী যারা তার অনুসারী তারা ‘কিউ অ্যান্ড সি’ ট্যাটু ব্যবহার করেন। মাঝেমধ্যেই তারা বিশাল শোডাউন দেন আওয়ামী লীগের মিছিল-মিটিংয়ে। মাস্টারমাইন্ড সুমনের সন্ত্রাসের পাশাপাশি অস্ত্র ব্যবসার সঙ্গেও সম্পৃক্ত থাকার অভিযোগ রয়েছে।*
*নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক পাপিয়াকে গ্রেফতারের পর সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। জাল টাকা সরবরাহ, মা’দক ব্যবসা, অনৈতিক কাজ, অবৈধ অ’স্ত্র ও মা’দক রাখার অভিযোগে পাপিয়াসহ ৪ জনের প্রত্যেককে ৩ মামলায় ১৫ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। দলীয় পরিচয়ের কারণে তিনি ছাড় পাবেন না বলেও প্রতিশ্রুতি এসেছে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের কাছ থেকে।*