প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয় *সি’টি নির্বাচনে ভুল কৌশলের মাশুল দিলো বিএনপি*

*সি’টি নির্বাচনে ভুল কৌশলের মাশুল দিলো বিএনপি*

337
*সিটি নির্বাচনে ভুল কৌশলের মাশুল দিলো বিএনপি*

*ঢাকার দুই সি’টি কর্পো’রেশন নির্বাচনে বড় একটি সুযোগ হাতছাড়া করলো বিএনপি। এই নির্বাচনে বিএনপি দীর্ঘদিন পর নির্বাচনী প্রচারণায় সমান সুযোগ পেয়েছিল। তাদের কর্মীদের একাট্টা করতে পেরেছিল এবং নির্বাচনী প্রচারণায় তারা সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছাতে পেরেছিল। কিন্তু রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন ভুল কৌশলের কারণেই নির্বাচনে বিএনপির ভরাডুবি হলো এবং দুই সিটিতেই তারা বিপুল ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হলো।*

*বিএনপির যে কৌশলগুলো ভুল ছিল তার মধ্যে সবচেয়ে বড় ভুল ছিল ভোটারদের মধ্যে ভী’তি সঞ্চার করা। নির্বাচনের শুরু থেকেই বিএনপির বলছিল ভোটারদের ভয় ভী’তি দেখানো হচ্ছে, তাদের নে’তা কর্মীদের গ্রেপ্তার ও হয়রানি করা হচ্ছে ইত্যাদির মাধ্যমে সাধারণ ভোটাররা যারা বিএনপির প্রতি সহানুভূতিশীল তারা নির্বাচনে ভোট প্রদান থেকে বিরত থেকেছেন। কারণ মানুষ কোনো গোলযোগ বা ঝঞ্জাটের মধ্যে যেতে চায় না। এ কারণে তারা ভোট প্রদান থেকে বিরত ছিলেন।*

*বিএনপি যদি এই নির্বাচনে ভোটারদের উৎসাহিত করত এবং তাদের ভোট কেন্দ্র নিয়ে যাওয়ার কৌশল অবলম্বন করতেন তাহলে হয়তো ভোটের হার বাড়ত। আর এটা বিএনপির পক্ষে যেত।*
*বিএনপির দ্বিতীয় ভুল ছিল, ইভি’এম সম্পর্কে বিএনপির নেতাকর্মীরা একটা ভী’তি সঞ্চার করেছে। এর পাশাপাশি ইভি’এমে জাল ভোট দেওয়া সম্ভব, ই’ভিএমে যেখানে ভোট দেওয়া হোক না কেনো সেটা আওয়ামী লীগের পক্ষে চলে যাবে এমনকিছু ধারণা দেওয়ার ফলে সাধারণ ভোটাররা ভোটের উপর উৎসাহ এবং আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছে। তারা মনে করেছে ইভি’এমে ভোট দেওয়াটা একটা জটিল ব্যাপার, ই’ভিএমে ভোট দিয়ে তেমন কোনো লাভ হবে না ইত্যাদি কারণে ভোটাররা ভোট দিতে যায়নি।*

*তৃতীয়ত, বিএনপির এ’জেন্ট নিয়োগের ক্ষেত্রে ভুল কৌশল গ্রহণ করেছিল। প্রথম থেকেই বিএনপির উচিত ছিল প্রতিটি কেন্দ্রে তাদের প্রশিক্ষিত এজে’ন্ট দেওয়া। এমনকি প্রয়োজনে তাদের জন্য প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা। কিন্তু সাংগঠনিক দূর্বলতার কারণেই হোক বা যে কারণেই হোক বিএনপি তাদের নির্বাচনী এলাকাগুলোতে এজেন্ট নিয়োগ করতে পারেনি। বিএনপির আশা করেছিল এজেন্ট না দেওয়ার ফলে তারা এই অভি’যোগ করতে পারবে যে এজে’ন্টদের বের করে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এজে’ন্টদের বের করে দেওয়ার অভি’যোগ হালে পানি পায়নি, কারণ কোথাও এজে’ন্টদের বের করে দেওয়ার মতো ঘট’না ঘটে’নি বা এজ’ন্টেরা এ ধরনের কোনো অভি’যোগও করেনি।*

*চতুর্থত, বিএনপি সাধারণ ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে নিয়ে আসার ক্ষেত্রে যে ধরনের উদ্যোগ তৎপরতা নেওয়ার দরকার ছিল সেই ধরনের কোনো উদ্যোগ বা তৎপরতা নেয়নি। বরং তারা মনে করেছিল ভোটাররা আপনা আপনি ভোট কেন্দ্রে আসবে। কিন্তু নেতিবাচক প্রচার প্রচারণায় কারণে ভোটাররা ভোট কেন্দ্রে যেতে ভ’য় পেয়েছে এবং আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছে।*

*রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন বিএনপির এই ভুল কৌশলের কারণে শুরু থেকেই তারা নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করা, ভোটারদের যে মতামত তা প্রতিফলিত হবে না এ ধরনের মনোভাব জনগণের মধ্যে ঢুকিয়ে দেওয়ার কারণেই এবার সিটি নির্বাচনে বিএনপির আরেক দফা পরাজিত হলো। আর এই পরাজয়ের মধ্যে দিয়ে বিএনপির রাজনৈতিক এবং সাংগঠনিক অস্তিত্ব আরেকটু বিপন্ন হলো।*