প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয় *টি’আইবির সংবাদ বি’জ্ঞপ্তি: কাদেরের দামি ঘড়ির ব্যাখ্যা প্র’শ্নবিদ্ধ-অ’পর্যাপ্ত*

*টি’আইবির সংবাদ বি’জ্ঞপ্তি: কাদেরের দামি ঘড়ির ব্যাখ্যা প্র’শ্নবিদ্ধ-অ’পর্যাপ্ত*

73
*টিআইবির সংবাদ বিজ্ঞপ্তি: কাদেরের দামি ঘড়ির ব্যাখ্যা প্রশ্নবিদ্ধ-অপর্যাপ্ত*

*নিজের দামি ঘড়ির বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের যে ব্যাখ্যা দিয়েছেন, তা প্রশ্নবিদ্ধ ও অপর্যাপ্ত বলে জানিয়েছে ট্রান্সপা’রেন্সি ইন্টার’ন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআ’ইবি)। মন্ত্রীর ওই ঘড়িগুলো কেন রাষ্ট্রীয় তো’শাখানায় জমা হলো না, তা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছে সংস্থাটি।*
*গতকাল শুক্রবার এক সংবাদ বিজ্ঞ’প্তিতে টিআ’ইবির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান এ প্রশ্ন তোলেন।*

*সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ঘড়ি নিয়ে সম্প্রতি একটি প্রতি’বেদন প্রকাশ করে সুইডেন’ভিত্তিক নি’উজ পো’র্টাল নেত্র নিউ’জ। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, মন্ত্রীর ব্যবহৃত রোলে’ক্স ডে-ডে’ট প্রেসি’ডেন্ট ম’ডেলের ওই ঘড়ির দাম ২৮ লাখ ৮৬ হাজার টাকা। ওই নিউ’জে মন্ত্রীর আরও কয়েকটি দামি ঘড়ির কথা তুলে ধরা হয়েছিল।*

*বিষয়টি নিয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মে’লনে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমার যত ঘড়ি আছে একটাও আমার নিজের না, পয়সা দিয়ে কেনা নয়। আপনি বিদেশে গেলেন, এসে আমাকে একটা ঘড়ি দিলেন, আমি নিলাম। এই রকম আপনি যদি নিয়ে আসেন, আমাকে উপহার দেন, আমি কী করব। এটা গিফট আইটেম, এটা আমার নিজের নয়।’*

*তবে ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদকের দামি ঘড়ি সংগ্রহের বিষয়ে দেওয়া ব্যাখ্যাকে প্রশ্নবিদ্ধ ও অপর্যাপ্ত বলছেন টিআই’বির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান। তিনি বলেন, ‘এসব সামগ্রী কেন যথানিয়মে ও যথাসময়ে রাষ্ট্রীয় তোশাখানায় জমা দেওয়া হলো না, তা দেশবাসীকে জানানো প্রয়োজন।’*
*এ সময় মন্ত্রীর সংগৃহীত এ ধরনের উপহার কি ঘড়িতেই সীমাবদ্ধ, এরূপ সংগ্রহ কি শুধু সড়ক ও সেতুমন্ত্রীরই, নাকি এর স্বরূপ ও বিস্তৃতি আরও ব্যাপক ও গভীর, তা খ’তিয়ে দেখে দেশবাসীকে জানাবার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।*

*টি’আইবি বিবৃতিতে বলেছে, মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের উপহারসমূহ যেভাবেই পেয়ে থাকুন; ২০১২ সালের জুনে হালনাগাদকৃত তো’শাখানা বি’ধি ১৯৭৪ অনুযায়ী উপহারসমূহ যথাসময়ে তোশাখানায় জমা দেওয়া হলো না কেন? জমা না দেওয়ার সিদ্ধান্ত যেহেতু তিনি নিয়েছেন সেহেতু সংশ্লিষ্ট ধা’রা অনুসরণ করে উপহার প্রাপ্ত বস্তুর প্রকৃত মূল্য অনুযায়ী অর্থ রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা দেওয়া হয়েছে কী না? এ ধরনের প্রশ্নের সুনির্দিষ্ট উত্তর জানার অধিকার জনগণের রয়েছে বলেও বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়।*
*টিআ’ইবির নির্বাহী পরিচালক প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘সরকারের অন্যতম প্রভাবশালী মন্ত্রী এবং ক্ষ’মতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক অবস্থানে থেকে তিনি কি অন্যদের স্থাপিত দৃষ্টান্ত অনুসরণ করলেন, নাকি অন্যদের জন্য অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করলেন?’*

*কোনো কন্ট্রা’ক্টরের কাছ থেকে ওবায়দুল কাদের উপহার নেন না। বরং তার কার্যালয়ে কোনো কন্ট্রাক্ট’রকে বসতেও দেন না বলে গতকালের সংবাদ সম্মে’লনে জানান। এ বিষয়ে প্রশ্ন উত্থাপিত হওয়া অমূলক নয় মন্তব্য করেন ইফতেখারুজ্জামান। তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘ঠিকাদারেরা নির্বাচনের সময় “একটা এমা’উন্ট” দিতে চেয়েছিল, যা তিনি গ্রহণ করেননি। তার মতো গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানে থেকে সেসব ঠিকা’দারদের এ ধরনের অনৈতিকতা ও দুর্নী’তির চর্চা প্রতিরোধে কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে? কাউকে কী তা’লিকাভুক্ত করা হয়েছে? না কী কমপক্ষে জনস্বার্থে তাদের তা’লিকা প্রকাশ করা হবে?’*

*টিআ’ইবির নির্বাহী পরিচালক আরও বলেন, ‘বিষয়গুলো মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘো’ষিত দুর্নী’তির বিরুদ্ধে শূন্য সহনশীলতা এবং নিজের দলের নেতাকর্মীসহ কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না-এই অঙ্গীকারের সঙ্গে কি সামঞ্জস্যপূর্ণ বিবেচিত হবে?’ তিনি মনে করেন, এসব প্রশ্নের জবাব দেওয়ার মতো সৎ সাহসের দৃষ্টান্ত সরকারের প্রতি জনগণের আস্থা সৃষ্টিতে সহায়ক হবে।*
*ইফতেখারুজ্জামান বলেন, বঙ্গবন্ধু শতবর্ষ উদ্যাপন কার্যক্রমের শুরুর লগ্নে স্মরণ করা অযৌক্তিক হবে না, তো’শাখানা বিধি জাতির পিতার নেতৃত্বাধীন সরকার কর্তৃক প্রণীত হয়েছিল, বর্তমান সরকারের আমলে হালনাগাদ হয়েছে, আর নভেম্বর ২০১৮ সালে তোশা’খানা জা’দুঘর উদ্বোধন করা হয়েছিল।*