প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয় *শেখ হাসিনা কেনো বার বার ওয়া’ন ই’লেভেনের কথা বলছেন?*

*শেখ হাসিনা কেনো বার বার ওয়া’ন ই’লেভেনের কথা বলছেন?*

145
*শেখ হাসিনা কেনো বার বার ওয়ান ইলেভেনের কথা বলছেন?*

*বাংলাদেশের রাজনীতি নিয়ে যারা গবেষণা বা পর্যালোচনা করেন তারা জানেন শেখ হাসিনার প্রত্যেকটা কথাই গুরুত্বপূর্ণ, অর্থবহ এবং তাৎপর্যপূর্ণ। তিনি কারণ ছাড়া কোনো কথা বলেন না। আর তার প্রতিটি কথারই একটা সুদূরপ্রসারী রাজনৈতিক তাৎপর্য রয়েছে।*
*সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন বক্তৃতায় তিনি অনেকগুলো গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন। বিজয় দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগের আলোচনা সভায় তিনি প্রশ্ন তোলেন, এত বড় দল, এত বড় সংগঠন জাতির পিতার মৃত্যুর পর তারা কোথায় ছিল? তারা কেনো প্রতিবাদ করতে পারলো না? এই প্রশ্নটা তাকে বার বার বিদ্ধ করে। তার এই বক্তব্য ছিল খুবই ইঙ্গিতবাহী। দু:সময়ে যে আওয়ামী লীগের নেতারা দাঁড়াতে পারেন না সেই আত্মসমালোচনা করার সাহস এবং দৃঢ়তা একমাত্র শেখ হাসিনাই দেখাতে পারেন।*

*সাম্প্রতিক সময়ে কয়েকটি বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা ওয়ান ইলেভেন প্রসঙ্গটি আনছেন। কেন তিনি ওয়ান ইলেভেন প্রসঙ্গটি আনছেন এ নিয়ে রাজনৈতিক বিশ্লেষণের দাবি রাখেন। প্রধানমন্ত্রী গত ৭ জানুয়ারি জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ দেন। জাতির উদ্দেশ্যে দেওয়া তার এই ভাষণে ২০০১ সালে বিএনপি-জামাতের অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতার বর্ণনা দেওয়া হয়। সেখানে বলা হয় “হাওয়া ভবন খুলে অবাধে চলতে থাকা রাষ্ট্রীয় সম্পদের লুটপাট” এর অবিসম্ভাবী পরিণতি ২০০৭ সালে সামরিক বাহিনী নিয়ন্ত্রীত তত্ত্বাবধায়ক সরকার। যে সরকার বিনা কারণে আমাকে প্রায় এক বছর কারাবন্দী রাখা হয়।*

*আজ জাতীয় সংসদে শোক প্রস্তাবের উপর আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওয়ান ইলেভেনের প্রসঙ্গটি আবার উত্থাপন করেন। সাবেক মহিলা এমপি অ্যাডভোকেট ফজিলাতুন্নেছা বাপ্পির ওপর আলোচনা করতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওয়ান ইলেভেনের প্রসঙ্গ আনেন। তিনি বলেন, ওয়ান ইলেভেনের সময় যখন আমাকে বন্দী করা হয় তখন আমার সবগুলো মামলাতেই বাপ্পির সরব উপস্থিতি ছিল।*

*উল্লেখ্য শেখ হাসিনা কি কেবল আলোচনার প্রসঙ্গেই ওয়ান ইলেভেনের প্রসঙ্গটি আনছেন। নাকি এর পেছনে সুদূরপ্রসারী কোনো রাজনৈতিক তাৎপর্য এবং ইঙ্গিত রয়েছে। অবশ্য আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাম্প্রতিক সময়ে ওয়া’ন ইলে’ভেন প্রসঙ্গটি এনেছিলেন আরো আগে। সেপ্টেম্বরে তিনি শুদ্ধি অভিযান শুরু করেন। শুদ্ধি অভিযান শুরু করে তিনি জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যোগ দেওয়ার জন্য নিউইয়র্কে যান। সেখানে সাধারণ অধিবেশন শেষে তিনি গণমাধ্যমের সঙ্গে এক সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, দেশে ওয়ান ইলেভেন লাগবে না। আমিই শুদ্ধি অভিযান করবো। এরপরই শুদ্ধি অভিযান গতি পায়। আওয়ামী লীগের অনেক হেভিওয়েট নেতা এই শুদ্ধি অভিযানের কারণে গ্রেপ্তার হন এবং পদ হারান। এখন শুদ্ধি অভিযানে যারা আটক হয়েছে তাদের বিচার প্রক্রিয়া চলছে।*

*আওয়ামী লীগ সভাপতির এই ও’য়ান ইলে’ভেন প্রসঙ্গ আনার সুনির্দিষ্ট রাজনৈতিক তাৎপর্য রয়েছে বলে বিশ্লেষকরা মনে করেন। টানা তৃতীয় মেয়াদে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় রয়েছে। তৃতীয় মেয়াদে এসে আওয়ামী লীগ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে অস্বস্তির মধ্যে রয়েছে। যদিও কোন রাজনৈতিক চাপ নেই। কিন্তু দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি, সামাজিক নিরাপত্তাসহ বিভিন্ন মেয়াদে গত দুই মেয়াদে সরকার যেমন স্বস্তিতে ছিল সেরকম স্বস্তির মধ্যে নেই। সাম্প্রতিক সময় আওয়ামী লীগ কাউন্সিল করেছে, দলের ত্যাগী পরীক্ষিত নেতাকর্মীদের স্থান করে দেওয়ার সুস্পষ্ট নির্দেশনা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।*

*তৃতীয় মেয়াদে তিনি ক্ষমতায় এসে বারবার দুর্নী’তির বি’রুদ্ধে কথা বলছেন। অনিয়ম এবং দু’বৃত্তায়নে না জড়ানোর জন্য নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দিচ্ছেন। আওয়ামী লীগ সভাপতি সবসময় একটি কথা বলেন, বিএনপি- জামা’তের অনিয়ম দুর্নী’তি, দুর্বৃ’ত্তায়ন, স্বেচ্ছাচারিতার অনিবার্য পরিণতির হিসেবেই ওয়া’ন ইলে’ভেন এসেছিল। এরকম একটি পরিস্থিতি যেন না হয়, সেজন্যই কি আওয়ামী লীগ সভাপতি বারবার সে সময়ের কথা স্বরণ করিয়ে দিচ্ছেন?*

*একটি রাজনৈতিক সরকার যখন দুর্নীতিতে নিমজ্জিত হয়, নে’তাকর্মীরা যখন টেন্ডা’রবাজি, চাঁ’দাবাজি করে তখনই ওয়ান ইলেভেনের মত অগণতান্ত্রিক ব্যবস্থার পথ খুলে যায়। জাতির উদ্দেশ্যে কথিত ভাষণে আওয়ামী লীগ সভাপতি একটি ধারাবাহিকতার প্রেক্ষিতেই ও’য়ান ইলে’ভেন প্রসঙ্গটি এনেছিলেন। এখন আওয়ামী লীগের সতর্ক হওয়ার সময় এই বার্তাটি কি শেখ হাসিনা দিচ্ছেন? আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা যদি সৎ না থাকে, দায়িত্ববান না হয় এবং দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়ে তাহলে আবার একটি ওয়ান ইলেভেন আসতে পারে এরকম বার্তার ইঙ্গিতই কি আওয়ামী লীগ সভাপতি বারবার দিচ্ছেন?*