প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয় *খালেদা জিয়া বাংলাদেশে সন্ত্রা’সের গড’মাদার: প্রধানমন্ত্রী*

*খালেদা জিয়া বাংলাদেশে সন্ত্রা’সের গড’মাদার: প্রধানমন্ত্রী*

192
*খালেদা জিয়া বাংলাদেশে সন্ত্রাসের গডমাদার: প্রধানমন্ত্রী*

*আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া জেলে থাকায় দেশ এখন ভালো আছে।*
*বুধবার (৪ ডিসেম্বর) গণভবনে আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সভায় তিনি এ কথা বলেন।*
*আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, বাংলাদেশে স’ন্ত্রাসের গড’মাদার হচ্ছে খালেদা জিয়া। জীব’ন্ত মানুষকে পুড়ি’য়ে মেরেছে। এর চেয়ে বড় সন্ত্রা’স আর কী হতে পারে?*

*প্রধানমন্ত্রী বলেন, হ’রতাল-অ’বরোধ দিয়ে খালেদা জিয়া মানুষকে পুড়ি’য়ে হ’ত্যা করেছে। সেই অবরোধ-হর’তাল এখনও ভুলেনি। তার হু’কুমে কত মায়ের কোল খালি হয়েছে, কত বোন বিধবা হয়েছে। সে তো জেলে আছে, দেশ ভালো আছে। তার জন্য আবার কারও কারও মায়াকান্নাও দেখি।*

*তিনি আরও বলেন, সন্ত্রা’সের গড’মাদারই হচ্ছে খালেদা জিয়া। সে এই বাংলা ভাই সৃষ্টি থেকে শুরু করে আগুন দিয়ে মানুষ পু’ড়িয়ে মা’রা, ঠা’ণ্ডা মাথায় হরতা’ল অব’রোধ ডেকে মানুষ পুড়ি’য়ে হ’ত্যা করেছে। এতিমের নামে টাকা এসেছে, সে টাকা সে চুরি করছে। আর সে মা’মলা দিয়েছে তারই প্রিয় ব্যক্তিরা, যারা ক্ষমতায় ছিল। তার বিরু’দ্ধে রয়েছে গ্যাটকো মাম’লা, নাইকো মা’মলা।*

*তিনি আরও বলেন, একে তো ভোটচুরি, মানুষ হত্যা, আ’গুন দিয়ে পোড়া’নো, এতিমের অর্থ আত্ন’সাৎ, দুর্নীতি, ২১ আগস্টের গ্রে’নেড হাম’লায় আইভী রহমানসহ মানুষ হ’ত্যা অর্থাৎ জিয়া যেমন খু’নি ছিল, খালেদা জিয়াও আরেক খু’নি, তার ছেলেও খুনি। এই পরিবারটাই খু’নের পরিবার। মানুষ খু’ন করা, দুর্নী’তি করা, অর্থ আত্মসাৎ করা ছাড়া আর কিছুই জানে না।*

*শেখ হাসিনা বলেন, খালেদা জিয়ার জন্য অনেকের মায়াকান্না দেখি। খালেদা জিয়া যে মানুষকে পুড়িয়ে পুড়ি’য়ে হ’ত্যা করলো এটা তারা ভুলে যায় কেন? মানুষকে কীভাবে তারা অত্যা’চার করেছে সেটা ভুলে যায় কেন? তার হু’কুমে কত মায়ের কোল খালি হয়েছে, কত বোন বিধবা হয়েছে, কত বোন আগু’নে পু’ড়ে বি’কৃত চেহারা হয়েছে। ছাত্র, ছাত্রী, শিক্ষক, আইনজীবি কেউ তো বাদ যায় নি। সে বীভ’ৎস অবস্থাটা নিয়ে মানুষ বেঁচে আছে। তারপর এই দরদটা যারা দেখায়-তাদের আবার আগু’নে পো’ড়া মানুষের চেহারাটা একটু দেখে আসা উচিত।*

*দেশের কথা বলার অধিকার নেই বলে যারা সরকারের সমালোচনা করেন তাদের উদ্দেশে সরকার প্রধান বলেন, টক শোতে যেয়ে টক মিষ্টি কথা বলার কত সুযোগ মানুষ পাচ্ছে। টক টক কথা তো বলেই যাচ্ছে। আজকে মানুষের এত কথা বলার সুযোগ। অত কথা বলার পরেও বলবে-এ সরকারের আমলে কথা বলার অধিকার নেই। বলে যাচ্ছে কিন্তু। আসলে এ ধরনের পরচর্চা করা এটা তাদের অভ্যাস।*

*আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পরেই দেশের মানুষের উন্নতি হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এর আগে অনেকে অনেক কিছুই বলতে পারে। এটা হয়েছে ওটা হয়েছে, ও এনজিও করেছে, তার জন্য দেশ উন্নতি হয়েছে। কিন্তু উন্নতি যদি হতো তাহলে দারিদ্যের হার কমেনি কেন? প্রবৃদ্ধির হার বাড়েনি কেন? মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নতি হয়নি কেন? একমাত্র আওয়ামী লীগ যখন সরকারে এসেছে, তখন হয়েছে। আজকে আমরা ৮ দশমিক ১৩ ভাগ প্রবৃদ্ধি অর্জন করতে পেরেছি। মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি পেয়েছে। গ্রামে-গঞ্জে মা-বোন থেকে শুরু করে প্রত্যেকের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হয়েছে।*

*জাতীয় কমিটির সভায় আবুল মাল আবদুল মুহিত, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, বেগম মতিয়া চৌধুরী, কাজী জাফরউল্লাহ, লে. কর্ণেল (অব.) ফারুক খান, নূরুল ইসলাম নাহিদ, আবুল হাসনাত আবদুল্লাহ, ওবায়দুল কাদের, মাহবুব-উল আলম হানিফ, আবদুর রহমান, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, বি এম মোজাম্মেল হক, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, আজমত উল্লাহসহ আরও অনেকে উপস্থিত আছেন।*