প্রচ্ছদ রাজনীতি *শেখ সেলিমের হাতে যুব’লীগের চা’বি রয়ে যাচ্ছে?*

*শেখ সেলিমের হাতে যুব’লীগের চা’বি রয়ে যাচ্ছে?*

332
*শেখ সেলিমের হাতে যুবলীগের চাবি রয়ে যাচ্ছে?*

*বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কং’গ্রেস অনু’ষ্ঠিত হচ্ছে আগামীকাল। এই কং’গ্রেসের মধ্যে দিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ নতুন নেতৃ’ত্ব পাবে। যদি বড় ধরনের কোনো পরি’বর্তন না ঘ’টে তাহলে যুবলীগের প্রতি’ষ্ঠাতা শেখ ফজলুল হক মনি’র ছেলে শেখ ফজলে শামস পরশের হাতে যাচ্ছে যুবলীগের নে’তৃত্ব। এ নিয়ে কোনো দ্বিধা’দ্বন্দ্ব এখন নেই।*

*জানা গেছে যে, প্রধানমন্ত্রী আজ এ ব্যাপারে দ’লের সাধারণ সম্পা’দক ওবায়দুল কাদেরকে তার নি’র্দেশনা জানিয়ে দিয়েছেন। যুবলীগের যে ক’লংক, ইমে’জ সং’কট, যুব’লীগের বিরু’দ্ধে যে সমস্ত অভি’যোগ- তা মোকা’বেলার জন্য শেখ ফজলে শামস পরশ কি সফল হবেন? তার পিতার সংগ’ঠনের ইমে’জ কি পুন’রুদ্ধার করতে পারবেন?*

*পরশ যদি যুবলী’গের চেয়া’রম্যান নির্বাচিত হন, তাহলে যুব’লীগের প্রতিষ্ঠার ৪৭ বছর পর আবার শেখ ফজলুল হক মনি’র র’ক্তের কাছেই যুব’লীগ এলো। অবশ্য শেখ ফজলুল হক মনি’র মৃ’ত্যুর পর শেখ সেলিমই শেখ মনি’র দুই শিশুসন্তানকে লাল’নপালন করে বড় করেছেন। তাপস আর পরশ শেখ সেলিমের নিজের সন্তানের মতোই আ’দরে, য’ত্নে মানুষ হয়েছে। শেখ সেলিমের একটি বড় কৃ’তিত্ব এই দুই ভাইকে তিনি যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলেছেন। তাপস একজন প্রথি’তযশা আইনজীবী। পরশও একজন বি’জ্ঞ গবে’ষক এবং শিল্প’মনস্ক তরুণ।*

*কিন্তু আওয়ামী লীগের অনেকের মধ্যেই প্রশ্ন উঠেছে যে, শেখ পর’শের নেতৃ’ত্ব গ্রহণের মধ্যে দিয়েই কি শেখ সেলিমের হাতে যুবলী’গের চা’বি থাকলো? কারণ শেখ সেলিম পর’শের চাচা হন। শুধু চাচাই নন, তিনি পিতৃতূল্য চাচা। আওয়ামী লীগের অনেকেরই অভি’যোগ যে, যুব’লীগ সবসময় শেখ সেলিমের মু’ঠোর মধ্যে থাকে এবং কমি’টি থেকে শুরু করে বিভিন্ন নীতি’নির্ধারণী সিদ্ধা’ন্তে শেখ সেলিমের ভূ’মিকা আর প্র’ভাব সবচেয়ে বেশি। বিশেষ করে শেখ সেলিমের পর যখন জাহাঙ্গীর কবির নানক যুব’লীগের চেয়া’রম্যান হয়েছিলেন, তখন শেখ সেলিমের ক’র্তৃত্বে যুব’লীগ চলতো।*

*কারণ জাহাঙ্গীর কবির নানক শেখ সেলিমের বে’তনভূক্ত কর্ম’চারী, তিনি বাংলার বাণীতে চাক’রি করতেন। যার ফলে সেই সময়েই ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট, খালেদ মাহমুদ ভূইয়ার মতো দু’র্বৃত্তদের যুবলীগে প্র’বেশ ঘটে। সেসময় সরকার’বিরোধী আন্দো’লনে ছিল বিশেষ করে ছিল আওয়ামী লীগ। এদের তখন কোনো অপ’কর্ম করার সুযো’গ ছিল না।*
*২০১০ সাল থেকেই সম্রাট, খালেদের আধি’পত্যের যুগ শুরু হয়। সেসময়ও জাহাঙ্গীর কবির নানক যুব’লীগের চেয়া’রম্যান ছিলেন। কিন্তু নানক চেয়ার’ম্যান থাকলেও যুব’লীগের যাবতীয় নী’তিনির্ধারণী বিষয়গুলো শেখ সেলিমের ইঙ্গি’তে হতো বলেই যুবলী’গের একাধিক নে’তা জানিয়েছেন।*

*এরপরে আসেন ওমর ফারুক চৌধুরী, যিনি শেখ সেলিমের বোনের জামাই। এই সময়ে যু’বলীগের দু’র্বত্তরা বেপ’রোয়া হয়ে উঠতে থাকে। অনেকেই অভি’যোগ করেন যে, শেখ সেলিমের প্রত্য’ক্ষ মদ’দে এবং আ’নুকূল্যে তারা লা’গামহীন হয়ে উঠেছিলেন। আর এজন্যই যখন যুবলীগে শু’দ্ধি অভি’যান শুরু হয়, তখন শেখ সেলিমকে যু’বলীগের নে’তৃত্বের কথা বলেছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুব’লীগের কেউ কেউ। যখন যুবলীগে ওমর ফারুক চৌধুরীকে অব্যা’হতি দেওয়া হলো, শেখ সেলিমের ছোট ভাই শেখ মারুফকে গ’ণভবনে প্রবেশে নিষে’ধাজ্ঞা জা’রি করা হয়, তখন অনেকে মনে করেছিল যে সেলিম ব’লয় থেকে বোধহয় যুব’লীগ এবার বেরি’য়ে যাচ্ছে। এমনকি যুবলীগে এখনো শেখ সেলিমের দুইপুত্র শেখ নাঈম এবং শেখ ফাহিমও যুব’লীগে সক্রি’য় রয়েছেন।*

*এছাড়াও যুবলীগের কমি’টিতে পরশের ভাই তাপসের নামও উঠে এসেছিলো। তবে এখন পরশের নাম যখন নিশ্চিত, তখন রাজ’নীতিতে প্রথম প্রশ্ন হলো পরশ কি শেখ সেলিমের গ’ণ্ডি থেকে বেরিয়ে নিজের স্বাত’ন্ত্র এবং নে’তৃত্বে নিজেকে পরিচা’লিত করতে পারবে? নাকি তিনি শেখ সেলিমের নির্দে’শিত পথেই চল’বেন? এই প্রশ্নের উত্তর এখনই পাওয়া যাবে না। এই প্রশ্নের উত্তর খুঁ’জতে হবে পরশ দা’য়িত্ব নেওয়ার পর তিনি কীভাবে যুব’লীগকে এগিয়ে নিয়ে যান তার ওপর। তবে পরশকে যারা চেনেন, তারা বলছেন যে, শেখ সেলিমের প্রতি তার শ্র’দ্ধা রয়েছে, তবে শেখ সেলিমের কথায় তিনি চলবেন, এমনটি ভা’বার কোনো কারণ নেই। কেননা পরশ একজন বিনয়ী, ব্যক্তি’ত্ববান মানুষ।*