প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয় *পরিবহন খাতে অস’ন্তোষে ক’লকাঠি না’ড়ছে ৩ দলের ৩ নে’তা!*

*পরিবহন খাতে অস’ন্তোষে ক’লকাঠি না’ড়ছে ৩ দলের ৩ নে’তা!*

1165
*পরিবহন খাতে অসন্তোষে কলকাঠি নাড়ছে ৩ দলের ৩ নেতা!*

*নতুন সড়ক আ’ইন কার্য’কর হওয়ার পরপরই সারাদেশে সড়’ক পরিবহনে অ’সন্তোষ সৃ’ষ্টি হয়েছে। পরিকল্পি’তভাবে সড়’ক পরিব’হন ব্যবস্থাকে ব’ন্ধ করে দেওয়ার ষড়’যন্ত্র চলছে। সংশ্লি’ষ্ট সূ’ত্রগুলো বলছে, প্রধান তিনটি দলের তিন নে’তার এ ব্যাপারে সম্পৃ’ক্ততা রয়েছে বলে স’ন্দেহ করা হচ্ছে।*
*সন্দে’হের তী’র যাদের দিকে তারা মধ্যে রয়েছেন- আওয়ামী লীগের এম’পি এবং সাবে’ক মন্ত্রী শাহজাহান খান, জাতীয় পা’র্টির মহা’সচিব ও সাবে’ক প্রতিমন্ত্রী মসিউর রহমান রাঙ্গা আর বিএনপির স্থায়ী ক’মিটির সদ’স্য মির্জা আব্বাস। এই তিনজনই পরিব’হন খাতে প্রভা’বশালী। শাহজাহান খান সড়ক পরিবহন শ্রমিকদের প্রধান নে’তা হিসেবে পরিচিত। পরিবহন শ্রমিকদের নিয়ন্ত্র’ণ তার হাতেই রয়েছে বলে সং’শ্লিষ্ট সূ’ত্রগুলো মনে করে।*

*অন্যদিকে মসিউর রহমান রাঙ্গা এবং মির্জা আব্বাস পরি’বহন খা’তের প্রভাব’শালী মালিক। কিছুদিন আগেই শহীদ নূর হোসেনকে নিয়ে আপ’ত্তিকর মন্ত’ব্য করে বি’পাকে পড়েন রাঙ্গা। সং’সদ সদ’স্য প’দ থেকে তাকে অপসার’ণেরও দা’বি ওঠে। এমন অবস্থা থেকে পরিত্রা’ণ পেতেও তিনি পরি’বহন শ্রমি’কদের অস’ন্তোষ উ’স্কে দিচ্ছেন বলে অনেকে মনে করেন।*

*অনুস’ন্ধানে দেখা যায় যে, যতবারই সড়’ক পরিব’হন খাতে কোনো সং’স্কার এবং পরিব’হন খা’তে বি’শৃংখলা ব’ন্ধ করার জন্য সরকার উদ্যো’গ নেয়, তখনই অদৃ’শ্য ই’শারায় সেগুল বা’তিল করার জন্য তৎ’পরতা শুরু হয়। সেখানে আওয়ামী লীগ, বিএনপি এবং জাতীয় পা’র্টি একাকার হয়ে যায়। এরা সম্মিলি’তভাবে শ্রমিক এবং পরিব’হন মা’লিকদেরকে সরকারের বিরু’দ্ধে অব’স্থান গ্রহণ করায়। ফলে সরকারকে পি’ছু হট’তে হয়। যদিও সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গতকাল সংবাদ সম্মে’লনে বলেছেন যে নতুন আইন বা’নচাল করার কোনো চ’ক্রান্ত হলে সেটা ব’রদাশত করা হবে না। তিনি এ নিয়ে ষড়’যন্ত্র না করারও জন্যেও অনু’রোধ করেন। কিন্তু সেতুমন্ত্রীর অনুরো’ধের পরও ধীরে ধীরে পরিবহন খাত অশা’ন্ত হয়ে উঠছে। সেখানে সন্দে’হের তীর এই তিন নে’তার দিকেই যাচ্ছে।*

*দ্বিতীয় দিনের মতো দক্ষিণাঞ্চলের ৫ জেলায় বাস ধ’র্মঘট*
*নতুন সড়’ক আই’নের প্রয়োগ শুরু হয়েছে গতকাল সোমবার থেকে। রাজধানীসহ সারাদেশের বিভাগীয় অঞ্চ’লে ভ্রাম্য’মাণ আদাল’তের মাধ্যমে নতুন সড়’ক আই’নে মাম’লা প্রয়োগ ও জরি’মানা করা হচ্ছে। এ কারণে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের ৫ জেলায় বাস ধর্ম’ঘট আজ মঙ্গলবারও দ্বিতীয় দিনের মতো অব্যা’হত রয়েছে। জেলারগুলোর মধ্যে রয়েছে- খুলনা, কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা, ঝিনাইদহ ও সাতক্ষীরা।*

*স’ড়ক পরি’বহন আই’ন সং’শোধনের দা’বিতে এ ৫ জেলায় দ্বিতীয় দিনের মতো ধর্ম’ঘট অব্যা’হত রয়েছে। বাস মালিক ও শ্রমিকদের দা’বি একটাই নতুন সড়ক পরিবহন আ’ইন সং’শোধন করা।*
*সোমবার রাজধানীর ৮টি স্প’টে ভ্রাম্য’মাণ আদালতের মাধ্যমে বিভিন্ন রু’টে চলাচ’লকারী বাসসহ ব্যক্তিগত গা’ড়ির ফি’টনেস, রু’ট পার’মিট, ট্যা’ক্স টো’কেন, চালকের লাই’সেন্স ইত্যাদি পরীক্ষা করা করে ভ্রাম্যমাণ মোবা’ইল কো’র্ট। এসময় বিভিন্ন কারণে বেশ কিছু গা’ড়ির মালিক ও চালককে মোট ১ লাখ ২১ হাজার ৯শ টাকা জ’রিমানা করা হয়েছে। দেয়া হয়েছে ৮৮টি মা’মলা। তবে ঢাকা মে’ট্রোপলিটন পু’লিশের (ডিএ’মপি) ট্রা’ফিক বিভাগ কোনো মা’মলা করেনি।*

*রাজধানীর উত্তরা, বনানী, মতিঝিল, মিরপুর, যাত্রাবাড়ী ও মানিক মিয়া এভিনিউ এলাকায় ভ্রাম্য’মাণ আদা’লত বসায় বাংলাদেশ সড়’ক পরিব’হন কর্তৃ’পক্ষ (বিআর’টিএ)।*
*অভি’যানে দেখা হয়, যানবা’হনের ফি’টনেস, রু’ট পার’মিট, ট্যা’ক্স টো’কেন হালনা’গাদ এবং ড্রা’ইভিং লা’ইসেন্স আছে কি না। বিআ’রটিএর পরি’চালক (এনফো’র্সমেন্ট) এ কে এম মাসুদুর রহমান জানান, এখন থেকে প্রতিদিন এই কার্যক্রম পরিচা’লনা করা হবে।*

*এদিকে নতুন সড়’ক পরিব’হন আ’ইন প্রয়োগ শুরু করার পরই চালক ও মালিকদের মধ্যে আত’ঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। বিশেষ করে চালকরা তাদের সামান্য আয়ের টাকা থেকে মোটা অঙ্কের টাকা জরি’মানা গুনতে নারা’জ। এ কারণে নতুন সড়’ক আ’ইন প্রয়ো’গ করার পরই এক শ্রেণির চা’লক ও মালিক তাদের গা’ড়ি ব’ন্ধ রেখেছেন। এরফলে রাস্তায় চলাচলরত গাড়ির সংখ্যা কমে গেছে। আক’স্মিক গা’ড়ি চলাচল কমে যাওয়ায় সাধারণ মানুষের বিড়ম্ব’না বেড়েছে। এমনই খবর পাওয়া দেশের বিভিন্ন বিভাগীয় ও জেলা শহরে থেকে।*
*অন্যদিকে নতুন সড়’ক আ’ইন প্রয়োগ শুরু হলে আক’স্মিক বিভিন্ন জেলায় বাস চলাচল ব’ন্ধ হয়ে গেছে। রাজশাহী, সাতক্ষীরা, মেহেরপুর, খুলনা ও ঝিনাইদহে গতকাল সোমবার সকাল থেকে আজ মঙ্গলবার পর্যন্ত কোনো বাস চলাচল করছে না।*

*সাতক্ষীরা থেকে আবদুস সাত্তার জানান, সংশো’ধন ছাড়া নতুন স’ড়ক পরিব’হন আ’ইন প্রয়োগে প্রতি’বাদ ও আই’ন সংশো’ধনের দা’বি জানান। এছাড়া সাতক্ষীরার সকল রু’টে বাস চলাচল ব’ন্ধ করে দিয়েছে শ্রমিকরা। সোমবার সকাল থেকে শুরু হওয়া এই ধ’র্মঘটে সাধারণ যাত্রীরা চরম ভো’গান্তিতে পড়েছেন। পরিবহন শ্রমিক নে’তাদের দা’বি, আই’ন সংশো’ধনের পর এটি বাস্তবায়ন করা হোক। এটা না করা পর্যন্ত আমাদের এ ধর্ম’ঘট অব্যাহত থাকবে। হঠাৎ করেই সাতক্ষীরার সব রু’টে বাস চলাচল ব’ন্ধ করে দেয়ায় হাজার হাজার যাত্রী দুর্ভো’গে পড়েছেন। তারা অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে নছিমন, করিমন ও ইজিবা’ইক যোগে গন্তব্যস্থলে পৌঁছানোর চে’ষ্টা করছেন।*

*বাসচাল’কসহ মোটর শ্রমিক নে’তারা জানান, যে আই’ন করা হয়েছে আমাদের এত টাকা দেয়ার সামর্থ্য নেই। একজন চালকের বেতন সর্বোচ্চ ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা। এ কারণেই নতুন পরি’বহন আ’ইন সংশো’ধন করার জোর দা’বি জানান। আর তা না হলে তারা বাস চালাবেন না।*
*জেলা বাস মিনিবাস মালিক সমি’তির প্রাক্তন সভাপতি অধ্যক্ষ আবু আহমেদ জানান, নতুন স’ড়ক পরিব’হন আই’ন বাস্তায়নের প্রতি’বাদে এদের শ্রমিকরা বাস চালানো ব’ন্ধ করে দিয়েছে। তারা চান, আগে এটি সংশো’ধন করা হোক। এরপর এটি বাস্তবায়ন করা হোক। তিনি বলেন, শ্রমিকরা বাস চালানো ব’ন্ধ করে দিলে এতে মালিক পক্ষের তো কিছুই করার থাকে না।*

*মেহেরপুর থেকে বেলায়েত হোসেন জানান, নতুন সড়’ক আই’ন সংশোধ’নের দা’বিতে মেহেরপুর থেকে সকল রু’টে বাস চলাচল ব’ন্ধ করে দিয়েছে মেহেরপুর জেলা বাস শ্রমিক ইউনিয়ন। গতকাল, সোমবার সকাল সাড়ে দশটার দিকে কোন ধরণের ঘো’ষণা ছা’ড়া চালকরা গা’ড়ি চাল’না ব’ন্ধ করে দেন। হঠাৎ করে বা’স ব’ন্ধ হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন সাধারণ যাত্রীরা। সকালে যাত্রীরা বা’স টার্মি’নালগুলোতে এসে বাস না পেয়ে বিভিন্ন অবৈধ যানবাহন করে জীবনের ঝুঁ’কি নিয়ে তাদের গন্তব্যে যাচ্ছেন।*

*ঝিনাইদহ থেকে রাজিব হাসান জানান, নতুন সড়’ক আ’ইন সংশো’ধনের দা’বিতে ঝিনাইদহের স্থানীয় সকল রু’টে বাস চলাচল ব’ন্ধ রেখেছে বাস শ্রমিকরা। সোমবার সকাল থেকে ঝিনাইদহ-যশোর, ঝিনাইদহ-কুষ্টিয়া, মাগুরা ও চুয়াডাঙ্গার অভ্যন্ত’রীণ রু’টে বা’স চলাচল ব’ন্ধ রয়েছে। এতে ভোগা’ন্তিতে পড়েছেন যাত্রীরা। বাস না পেয়ে অনেকে ইজি’বাইক ও মহাসড়কে নি’ষিদ্ধ তিন চাকার যানবাহনে চলাচল করছেন। ঠিক সময়ে গন্তব্যে পৌঁছাতে পারছেন না চাক’রিজীবীরা। স্থানীয় সকল রু’টে বা’স চলাচল ব’ন্ধ থাকলেও ঢাকাসহ দুরপা’ল্লার বাস ও ট্রা’কসহ অন্যান্য পরিবহন চলাচল করতে দেখা গেছে।*
*এদিকে বা’স চালকদের দা’বি, নতুন স’ড়ক আ’ইন সংশো’ধন করা হোক তারপরই বা’স চলবে।*