প্রচ্ছদ রাজনীতি *আওয়ামী যুবলীগের ব’দলে যাচ্ছে অনেক কিছুই*

*আওয়ামী যুবলীগের ব’দলে যাচ্ছে অনেক কিছুই*

252
*আওয়ামী যুবলীগের বদলে যাচ্ছে অনেক কিছুই*

*যুবলীগের গঠন’তন্ত্রে সং’শোধন আসছে, ফলে ব’দলে যাচ্ছে সংগঠনের ঢাকা মহান’গরের (উত্তর ও দক্ষিণ) সাংগ’ঠনিক মান’চিত্র। যুবলীগ সূ’ত্রে জানা গেছে, এবার স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় প্রণীত ঢাকার দুই সি’টির গেজে’ট অনুসা’রেই করা হচ্ছে যুবলীগের সাংগ’ঠনিক মানচিত্র। যুবলীগ সূ’ত্র জানিয়েছে, যুবলীগের গঠন’তন্ত্রে সভাপতির এক’চ্ছত্র ক্ষম’তা আছে কি না তা খতি’য়ে দেখা হচ্ছে। সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের ক্ষম’তার ক্ষেত্রে যেন ভার’সাম্য থাকে। তবে যুবলীগের গঠন’তন্ত্রে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের মধ্যে ক্ষ’মতার ভার’সাম্য রয়েছে বলেই মনে করেন সংগঠনের গঠনতন্ত্র উপ-কমিটির সংশ্লি’ষ্টরা।*

*১৯৭২ সালের ১১ নভেম্বর প্রতি’ষ্ঠিত হয় যুবলীগ। সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শেখ ফজলুল হক মণি। সংগঠনটির প্রতিষ্ঠা’লগ্ন থেকে ৬টি জাতীয় কংগ্রে’স অনুষ্ঠিত হয়েছে। সংগঠনটির সর্বশেষ কংগ্রে’স অনুষ্ঠিত হয় ২০১২ সালে। আগামী রোববার (২৩ নভেম্বর) সংগঠনের ৭ম জাতীয় কং’গ্রেস অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।*
*যুবলীগ সূত্রে জানা গেছে, আগে নির্বাচন কমি’শনের সীমানা অনুসারে সংগঠনের ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের সীমানায় কয়েকটি ও’য়ার্ড ঠিক ছিল না। কিন্তু এবার স্থা’নীয় সরকার মন্ত্র’ণালয়ের গে’জেটে দেয়া ঢাকার দুই সি’টি কর্পো’রেশনের সীমা’না অনুসারে যুবলীগের সাংগ’ঠনিক সীমা’না নির্ধা’রণ করা হচ্ছে। সেই হিসাবে হাজারীবাগ থা’নার কিছু অংশ উত্তরে ছিল, কিন্তু তাকে দক্ষিণে নিয়ে আসা হচ্ছে। রামপুরা থা’নার অংশ দক্ষিণে থাকলেও এবার তা উত্তরে চলে যাচ্ছে।*

*যুবলীগ সূ’ত্র জানিয়েছে, সংগঠনের নির্ধারিত বয়সসীমা ‘৫৫ বছর’ গঠন’তন্ত্রে নিয়ে আসা হবে। দলীয় প্রধানের সঙ্গে আলো’চনা সা’পেক্ষে এ বিষয়টি আসন্ন জাতীয় সম্মে’লনেই চূ’ড়ান্ত করা হবে। যুবলীগের শীর্ষ নে’তাদের সঙ্গে সম্প্রতি আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বৈঠকে বয়সসীমা ৫৫ বছর বেঁধে দেয়া হয়। যা চলতি মাসে সংগঠনের কেন্দ্রীয় সম্মে’লনে উত্থা’পন করা হবে। এর আগে যুবলীগের গঠনত’ন্ত্রে বয়স’সীমার বিষয়টি ছিল না।*

*আওয়ামী লীগের দলীয় সূ’ত্রে জানা গেছে, যুবলীগের অব্যা’হতি পাওয়া চেয়ারম্যান সংগঠনে অধিক ক্ষ’মতার প্রয়োগ করেছিলেন- এ অভি’যোগের প্রেক্ষি’তেই সংগঠনের গঠন’তন্ত্রে চেয়ার’ম্যানের ক্ষ’মতা খতি’য়ে দেখা হচ্ছে। যুবলীগের গঠন’তন্ত্রে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের ক্ষম’তায় ভার’সাম্য যেন ঠিক থাকে। আওয়ামী লীগ নে’তারা মনে করেন, চলমান ক্যাসি’নোকাণ্ডে যুবলীগ বেশ দু’র্নাম কুড়িয়েছে। যা থেকে সংগঠনটিকে সুনা’মে ফিরি’য়ে আনা প্রয়োজন। যার জন্য যুবলীগের আ’সন্ন সম্মে’লনে নে’তৃত্ব বাছা’ইয়ে কড়া’কড়ি আনা হয়েছে, ক্লি’ন ইমে’জের নেতৃ’ত্বের সঙ্গে সংগঠনে দুর্দি’নের নে’তাদের নে’তৃত্বে আসার মধ্য দিয়েই যুবলীগকে আবার সু’নামে ফি’রিয়ে আ’না সম্ভব হবে। সেই সঙ্গে যুবলীগের গঠনত’ন্ত্রও ভালভাবে খতি’য়ে দেখা হচ্ছে। কোনো অস’ঙ্গতি পাওয়া গেলে তা যেন সং’শোধন করা যায়।*

*তবে গঠন’তন্ত্র উপ-ক’মিটির আহ্বায়ক ও যুবলীগ প্রেসিডি’য়াম সদ’স্য অ্যাড’ভোকেট সাইদুর রহমান শহীদ বলেন, আমাদের গঠন’তন্ত্রে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ও কার্যনি’র্বাহী কমি’টির প্রত্যেকের মধ্যে ক্ষ’মতার সুন্দর একটি ভার’সাম্য তৈরি করা আছে। কোথাও কাউকে অ্যা’বসল্যুট (অ’বাধ ক্ষম’তা দেয়া নেই। আমি মনে করি, যতগুলো সহ’যোগী সংগঠন রয়েছে, এর মধ্যে সবচেয়ে স্ব’চ্ছ ও সুন্দর গঠ’নতন্ত্র হল যুবলীগের।*
*উল্লেখ্য, রোববার (১৭ নভেম্বর) বিকালে নয়াপ’ল্টন, সি’টি হা’র্ট, ৫ম তলার হল’রুমে গঠনতন্ত্র উপ-কমি’টি স’ভা অনু’ষ্ঠিত হয়। গঠনত’ন্ত্র উপ-ক’মিটির আহ্বায়ক ও যুবলীগ প্রেসি’ডিয়াম স’দস্য অ্যাড’ভোকেট সাইদুর রহমান শহীদ সভাপতিত্ব করেন।*

*যুবলীগ সূ’ত্রে জানা গেছে, যুবলীগের গঠন’তন্ত্র সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও কার্যনির্বা’হী কমি’টির প্রত্যেকের মধ্যে একটা ভা’রসাম্য রাখা আছে। কিন্তু সংগঠনের অব্যা’হতি পাওয়া চেয়ার’ম্যান আলহাজ ওমর ফারুক চৌধুরী কিছু ক্ষেত্রে ক্ষম’তার এক’ক ব্যবহার করেছিলেন। ক্ষ’মতার এমন এক’ক প্রয়োগের কারণেই সংগঠনের গঠন’তন্ত্রের প্রতিটি লাইন খুঁ’জে দেখা হয়েছে।*

*যুবলীগের ভেতরেই অভি’যোগ রয়েছে, দীর্ঘ ৭ বছর সংগঠন এক’কভাবে চালিয়েছেন ওমর ফারুক চৌধুরী। যুবলীগে তার কথাই ছিল শেষ কথা। তার ইচ্ছায় চলত সংগঠ’নটির কা’র্যক্রম। কেন্দ্র থেকে তৃণমূল, সব জায়গায় গঠনত’ন্ত্রের তোয়া’ক্কা না করে স্বেচ্ছা’চারিতার মাধ্যমে যুবলীগের কর্ম’কাণ্ড চালি’য়ে আসছিলেন ওমর ফারুক। কার্যনি’র্বাহী বা সভাপতিম’ণ্ডলীর বৈঠ’কও হতো তার খেয়াল’খুশি মতো।*

*যুবলীগ সূত্রে জানা গেছে, গঠনতন্ত্র অনু’যায়ী আওয়ামী যুবলীগে চেয়ার’ম্যানই এ’কক ক্ষম’তার অধি’কারী এমন দা’বি করে আসছিলেন সংগ’ঠনের নে’তারা। সংগঠ’নের গঠন’তন্ত্রের কারণেই ওমর ফারুক চৌধুরী আরও বেশি স্বৈরা’চারী আচ’রণ করতে পেরেছিলেন বলে যুবলীগ নে’তারা মনে করেন। গঠন’তন্ত্রে চেয়ার’ম্যানকে অনেক বেশি ক্ষ’মতা দেয়া আছে বলেও মনে করেন যুবলীগ নেতা’রা। এ জন্য আ’সন্ন জা’তীয় কং’গ্রেসে যুবলীগের গঠন’তন্ত্র সংশো’ধনের মাধ্যমে ক্ষম’তার ভারসা’ম্যের দা’বি আরও আগেই উঠেছিল।*
*যুবলীগের গঠনত’ন্ত্রের সাধারণ সম্পাদকের অনুচ্ছে’দে বলা আছে, চেয়ারম্যানের পরাম’র্শক্রমে তিনি কার্যনি’র্বাহী ক’মিটি, কেন্দ্রীয় ক’মিটি ও সভাপতিমণ্ড’লীর সভার আহ্বান করবেন এবং স্বীয় দায়ি’ত্ব পা’লনে চেয়ারম্যা’নের পরামর্শ গ্রহণ করবেন।*

*তবে গঠ’নতন্ত্র উপ-কমি’টির আহবায়ক ও যুবলীগ প্রেসিডিয়া’ম সদ’স্য অ্যাড’ভোকেট সাইদুর রহমান শহীদ বলেন, সংগঠনে সভাপতিকে একচ্ছ’ত্র ক্ষম’তা দেয়া নেই। সর্বো’চ্চ দেখা গেছে, যে সভাপতি সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে আলো’চনা করে অথবা কার্য’নির্বাহী কমিটির অনু’মোদন সাপে’ক্ষে যে কোনো কাজ করবেন। সভাপতি সকল কাজই সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে পরাম’র্শক্রমে করবেন। কিন্তু ক্ষম’তা প্রয়ো’গের ক্ষে’ত্রে গিয়ে দেখা গেছে, সভাপতি এক’চ্ছত্র ক্ষম’তা ব্যবহার করেছেন। সাধারণ সম্পাদক তার যে দায়িত্বটা ছিল- কার্যনি’র্বাহী কমি’টির সঙ্গে ভাগা’ভাগি করা অথবা সভাপতি যদি কোনো অনি’য়ম করে সেখানে প্রতি’বাদ করা, সেটা করেননি। এটা হলো দা’য়িত্ব ও কর্ত’ব্যে অব’হেলা।*

*যুবলীগের গঠন’তন্ত্রে ২৫ এর (চ) ধা’রায় বলা আছে, সংগঠ’নের একই স্তরে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক যে কোনো প’দে ২ বার অথবা উভয় প’দে ১ বার করে মোট ২ বার দা’য়িত্ব পালনের পর কোনো ব্যক্তি ৩য় মেয়াদের জন্য ঐ স্তরের কোনো প’দে প্রা’র্থী হতে পারবেন না। তবে সংগঠনের বৃহ’ত্তর স্বা’র্থে ২ বার দা’য়িত্ব পালন’কারী ব্যক্তিকে তার আ’বেদনের প্রেক্ষিতে সংগঠ’নের চেয়ার’ম্যান বিশেষ বিবে’চনায় তৃতীয় মেয়াদে প্রা’র্থী হওয়ার অ’নুমতি প্র’দান করতে পারেন।*
*তবে যুবলীগ সূত্র’ জানিয়েছে, এটা এবার পরিবর্ত’ন হয়ে যাচ্ছে। এই ক্ষম’তা সংগঠ’নের সভাপতির সঙ্গে সাধারণ সম্পাদককে অংশী’দার করা হচ্ছে।*