প্রচ্ছদ কৃষি, প্রাণী ও পরিবেশ *আঘা’ত হা’নার পর দু’র্বল এখন বুলবুল, নি’হত ৩*

*আঘা’ত হা’নার পর দু’র্বল এখন বুলবুল, নি’হত ৩*

56
*আঘাত হানার পর দুর্বল এখন বুলবুল, নিহত ৩*

*দুর্বল হয়ে আ’ঘাত হা’নলেও ঘূর্ণি’ঝড় ‘বুলবুল’ থা’বা বসি’য়েছে উপকূলীয় এলাকায়। প্রচ’ণ্ড ঝ’ড়ো-হাওয়ায় বাড়িঘর ও গাছপালার ব্যা’পক ক্ষ’তি হয়েছে। পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জে এক বৃদ্ধের মৃ’ত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এছাড়া ভারতে পশ্চিমবঙ্গে অন্তত দুজনের মৃ’ত্যুর খবর পাওয়া গেছে।*
*’বুলবুল’ ক্রমশ দু’র্বল হয়ে রোববার (১০ নভেম্বর) সকালে পুরোপুরি প্র’বেশ করে বাংলাদেশে। এটি ক্রমশ দুর্ব’ল হচ্ছে। দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃ’ষ্টি ও ঝো’ড়ো হওয়া বইছে। পরিস্থি’তি স্বাভা’বিক হতে দুই দিনের মতো সময় লেগে যাবে বলে জানিয়েছে আব’হাওয়া অফি’স।*

*বুলবুলের প্র’ভাবে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা, মেদিনিপুর, কলকাতা এবং ওড়িষ্যা রাজ্যের উপকূ’লীয় এলাকায় ভা’রী বৃ’ষ্টি ও দ’মকা হাওয়ায় বহু গাছ উ’পড়ে গে’ছে, ক্ষ’তিগ্রস্ত হয়েছে ঘরবাড়ি। অনেক এলাকা বি’দ্যুৎ বিচ্ছি’ন্ন হয়ে পড়েছে।*
*ঘণ্টায় ১১৫ কি’লোমিটার থেকে ১২৫ কিলো’মিটার বাতাসের গতি নিয়ে বাংলাদেশ সময় শনিবার রাত ৯টায় পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার সাগর দ্বী’প উপকূলে আ’ঘাত হা’নে বুলবুল। এরপর প্রায় ৩ ঘণ্টা ঝ’ড়টি পুরোপুরি স্থলভাগে উঠে সুন্দরবনের ভারতীয় অংশের কাছ দিয়ে পশ্চিমবঙ্গ উপ’কূল অতি’ক্রম করে। এরপর ঘূর্ণিঝ’ড়টি ক্রমশ দুর্ব’ল হতে হতে পূর্ব-উত্তরপূর্ব দিকে এগিয়ে বাংলাদেশ সীমানায় প্রবেশ করে।*

*বাংলাদেশ সময় রাত ২টায় ঘূর্ণি’ঝড়ের কেন্দ্র ছিল ভারতের ‘সুন্দরবন ন্যা’শনাল পা’র্কের’ ১৫ কিলো’মিটার দক্ষিণপশ্চিমে পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা ও তৎ’সংলগ্ন বাংলাদেশের উপ’কূলীয় এলাকায়। রোববার ভোররাত সোয়া ৩টার দিকে ‘বুলবুল’ বাংলাদেশের সাতক্ষীরা উপ’কূল অ’তিক্রম করে। এসময় বৃষ্টি ও হালকা দ’মকা হাওয়া বয়ে যায়। ঘূর্ণি’ঝড় ‘বুলবুল’ আরও সামান্য উত্তর-পূর্ব দিকে অ’গ্রসর হয়ে ভোর ৫টায় সুন্দরবনের নিকট দিয়ে পশ্চিমবঙ্গ-খুলনা উপ’কূল অ’তিক্রম শেষ করেছে।*

*খুলনার কয়রা উপজেলা পরি’ষদের ক’ন্ট্রোল রু’মের দায়ি’ত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. জাফর রানা বলেন, মূল ঝ’ড়ের আ’ঘাত ভোররাত সাড়ে ৪টা থেকে শুরু হয়। এতে কয়রা উপজেলার অনেক ঘরবাড়ি ভে’ঙেছে, গাছপালা উপ’ড়ে প’ড়েছে। জোয়ারের পানি স্বাভাবিকের চেয়ে দুই ফুট বেশি ছিল। এছাড়া খুলনা সদরে গাছপালা ও ঘরবাড়ি বি’ধ্বস্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।*
*ঘূর্ণি’ঝড়ের কারণে পটুয়াখালীর মির্জাগ‌ঞ্জের উত্তর রামপুরা গ্রা‌মে হামেদ ফকির (৬৫) নামে এক বৃদ্ধ মা’রা গেছেন। ভোরে ঘরের ওপর গাছ পড়ে তিনি মা’রা যান বলে জানা গেছে।*

*টাই’মস অ’ফ ইন্ডি’য়া ও পি’টিআই জানায়, ঘূর্ণি’ঝড়ের আঘাতে পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা জেলার কাকদ্বীপ ও বকখালি এবং পূর্ব মেদিনিপুরের খেজুরি, নন্দগ্রাম, নয়াচর ও রামনগর এলাকা সবচেয়ে বেশি ক্ষতি’গ্রস্ত হয়েছে। উপ’কূলীয় এসব এলাকায় ঝ’ড়ো বাতাসে গাছ উপ’ড়ে পড়ে’ছে, অনেক ঘরের চাল উ’ড়ে গেছে, ক্ষতি’গ্রস্ত হয়েছে দোকানপাট। অনেক এলাকা বিদ্যুৎ সং’যোগ বিচ্ছি’ন্ন হয়ে পড়েছে, নিচু এলাকাগুলোতে জলাব’দ্ধতার সৃ’ষ্টি হয়েছে। এরমধ্যে কলকাতা শহরের একটি নামকরা ক্লা’বে একজনের মৃ’ত্যু হয়েছে। ওড়িষ্যায় একজনের মৃ’ত্যুর খবর পাওয়া গেছে। ঝ’ড়ের কারণে কলকাতা বিমাবন্দরের সব কার্যক্রম ১২ ঘণ্টার জন্য ব’ন্ধ রাখা হয়েছে।*

*পশ্চিমবঙ্গের উপ’কূলবর্তী এলাকা থেকে ১ লাখ ৬৫ হাজার মানুষকে নিরা’পদ জায়গায় সরিয়ে নেয়া হয়েছে। তাদের মধ্যে ১ লাখ ১২ হাজার ৩৬৫ জনকে আশ্র’য়কেন্দ্রে রাখা হয়েছে।*
*আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, ঘণ্টায় ৫ থেকে ৭ কিলোমিটার গতিতে এগোচ্ছে ঘূ’র্ণিঝড় বুলবুল। প্রবল ঘূর্ণি’ঝড় কেন্দ্রের ৬৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৯০ কি’লোমিটার যা দম’কা অথবা ঝো’ড়ো হাওয়ার আকারে ১১০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃ’দ্ধি পাচ্ছে। আজ সারাদিন বৃ’ষ্টিপাত হবে।*

*সাগর উত্তা’ল থাকায় মোংলা ও পায়রা বন্দরকে ১০ নম্বর মহাবি’পদ সং’কেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। আব’হাওয়া অধি’দফতরের সর্বশেষ বুলে’টিনে বলা হয়, উপ’কূলীয় জেলা ভোলা, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা এবং এসব জেলার অদূরবর্তী দ্বীপ ও চ’রগুলোও এই মহা’বিপদ সংকে’তের আও’তায় থাকবে।*

*এছাড়া চট্টগ্রাম সমুদ্র ব’ন্দর ও উপকূ’লীয় জেলা চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর এবং এসব জেলার অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরগুলো ৯ নম্বর ম’হাবিপদ সং’কেত এবং কক্সবাজার সমুদ্র বন্দরকে ৪ নম্ব’র স্থানীয় হুঁ’শিয়ারি সং’কেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।*
*এদিকে, ঘূর্ণিঝড় আঘা’ত হা’নার আগে বাংলাদেশের মোংলা, চট্টগ্রামসহ সব সমুদ্র’বন্দরে কাজ ব’ন্ধ রাখা হয়েছে। সারা দেশে সব ধরনের নৌযান চলাচল পরবর্তী নি’র্দেশ না দেয়া পর্যন্ত ব’ন্ধ রাখতে বলেছে অভ্যন্তরীণ নৌপ‌রিব’হন কর্তৃপ‌ক্ষ। ঘূর্ণিঝ’ড়ের ক্ষ’য়ক্ষতি এড়াতে দেশের উপকূলীয় অঞ্চলে ৫ হাজার ৫৮৮টি আ’শ্রয় কেন্দ্রে ২১ লাখ ৬ হাজার ৯১৮ জন লোককে নেয়া হয়েছে।*

*ঘূর্ণি’ঝড় প্র’স্তুতি কর্ম’সূচির (সিপি’পি) ৫৬ হাজার স্বেচ্ছাসেবীকে প্র’স্তুত রাখা হয়েছে উ’দ্ধার ও জ’রুরি ত্রাণ তৎপর’তার জন্য। পাশাপাশি উপকূলীয় সেনা ক্যা’ম্পগুলোকে সত’র্ক রাখা হয়েছে। প্রতিটি জেলায় খোলা হয়েছে নিয়’ন্ত্রণ ক’ক্ষ।*
*আ’শ্রয় কে’ন্দ্রগুলোতে ২০০০ প্যা’কেট করে শুকনো খাবার পৌঁছে দেয়া হয়েছে। সচেতনতা সৃষ্টির জন্য স্বেচ্ছা’সেবকরা মাই’কে এবং ২২টি কমি’উনিটি রে’ডিওর মাধ্যমে সত’র্কবার্তা প্র’চার করছে।*

*উপ’কূলীয় ১৩ জেলার কর্ম’কর্তা-কর্ম’চারীদের ছুটি বা’তিল করে তাদের কর্মস্থলে উপস্থিত থাকতে নি’র্দেশ দেয়া হয়েছে। এসব জেলার সব কর্মীদের ছুটি বা’তিল করেছে স্বাস্থ্য বিভাগ। গঠ’ন করা হয়েছে ১ হাজার ৫৭৭টি মেডি’কেল টি’ম।*
*ঝ’ড় এগিয়ে আসায় পিছিয়ে দেয়া হয়েছে শনিবারের জুনি’য়র স্কু’ল সার্টিফি’কেট (জেএ’সসি) ও জুনি’য়র দা’খিল সার্টিফি’কেট (জেডি’সি) পরীক্ষা। শনিবার আরেক ঘো’ষণায় সোমবারের পরীক্ষাও স্থ’গিত করা হয়েছে। ঘূর্ণি’ঝড়ের কারণে জাতীয় বিশ্ব’বিদ্যালয়ের শনিবারের সব পরী’ক্ষাও স্থ’গিত করা হয়েছে।*