প্রচ্ছদ রাজনীতি *লাল কার্ড খেয়ে রাজনীতির মাঠ থেকে বিদায় নিচ্ছেন যারা*

*লাল কার্ড খেয়ে রাজনীতির মাঠ থেকে বিদায় নিচ্ছেন যারা*

2718
*লাল কার্ড খেয়ে রাজনীতির মাঠ থেকে বিদায় নিচ্ছেন যারা*

*আওয়ামী লীগের প্রধান ৩টি অঙ্গ সহযোগি এবং ভ্রাতৃপ্রতীম সংগঠন এখন নেতৃত্বশূন্য। ৩টি সংগঠনই এখন ভারপ্রাপ্ত নেতৃত্ব দিয়ে চলছে। এর মধ্যে দুটি সংগঠনের সম্মেলনের দিন তারিখ চূড়ান্ত হয়েছে। কিন্তু বাকি সংগঠনের সম্মেলনের ব্যাপারে আলাপ গুঞ্জন কিছুই নেই।*
*সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে যে, ছাত্রলীগের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদককে ইতিমধ্যে তাদের সংগঠন থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তাদের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ কি তা এখন অনিশ্চিত। রাজনৈতিক কোন কর্মসূচীতে তাদের দেখা যাচ্ছে না। দলের নেতাকর্মীরাও তাদের এড়িয়ে যাচ্ছেন। এ অবস্থায় তারা রাজনীতিতে থাকবেন কি থাকবেন না তা নিয়ে নানা রকম প্রশ্ন রয়েছে। শেষপর্যন্ত তারা রাজনীতিতে থাকলেও তাদের অবস্থান কি হবে তা অনিশ্চিত। শোভন-রাব্বানী দুজনেই রাজনীতিতে ফিরতে চান কিন্তু আওয়ামী লীগ তাদেরকে শেষ পর্যন্ত নেবে কিনা সেটা অনিশ্চিত।*

*আওয়ামী লীগের সবচেয়ে প্রভাবশালী এবং শক্তিশালী সংগঠন হিসাবে পরিচিত ছিল বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ। বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরীকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। আগামী ২৩ নভেম্বর বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কংগ্রেস (সম্মেলন) ডাকা হয়েছে। যুবলীগের কংগ্রেসে নতুন নেতৃত্ব দেওয়া হবে বলেও আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে ঘোষ’ণা করা হয়েছে। শুদ্ধি অভিযান শুরুর পর থেকেই ওমর ফারুক চৌধুরী পর্দার আড়ালে চলে গেছেন। দৃশ্যত তিনি স্বেচ্ছা গৃহব’ন্দি অবস্থায় আছেন।*

*ইতোমধ্যে তার স্ত্রী এবং তিন পুত্রের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট জ’ব্দ করা হয়েছে। তিনি বাড়িতেই অবস্থান করছেন। যুবলীগের কংগ্রেসে তার কোন ভূমিকাই নেই। একাত্তর বছর বয়সী সাবেক এই যুবলীগ চেয়ারম্যানের রাজনৈতিক ভবিষ্যত অনিশ্চিত। শেষপর্যন্ত তিনি রাজনীতিতে থাকবেন কি থাকবেন না তা কেউ বলতে পারেন না। দলের কেন্দ্রীয় নেতারা তার ব্যাপারে মুখে কুলুপ এটেছেন।*

*স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি মোল্লা আবু কাউসারকে সংগঠনের কার্যক্রম থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। দলের সাধারণ সম্পাদক পঙ্কজ দেবনাথকে বলা হয়েছে দলের সম্মেলন থেকে নিজেকে যেন গুটিয়ে রাখে। তাকে অব্যাহতি অপসারণ বা বহি’ষ্কার করা হয়নি। বহি’ষ্কার না করা হলেও এই দুই নেতারই রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত। মোল্লা আবু কাউসার স্বেচ্ছাসেবক লীগ থেকে অব্যাহতি পাওয়ার পর এখন তিনি কি রাজনীতি করবেন তার ভবিষ্যৎ রাজনীতির গতিপথ কিভাবে নির্ধারণ হবে তা অনিশ্চিত। দলের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ তাদের এড়িয়ে চলছেন। দলের চেইন তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করছে না। এরকম পরিস্থিতিতে শেষ পর্যন্ত মোল্লা কাউসারের রাজনৈতিক পরিসর কি হবে তা কেউ জানে না। এমনকি জানেন না তিনি নিজেও।*

*অন্যদিকে পঙ্কজ দেবনাথ এখন নির্বাচিত এমপি। এই শুদ্ধি অভিযানে তিনি বিত’র্কিত হওয়ার পর তারও রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ অনিশ্চয়তায় ঢাকা পড়ে গেছে। এলাকায় যেমন তার অবস্থান নড়বড়ে হয়ে গেছে তেমনি দলের মধ্যেও তিনি তার গ্রহণযোগ্যতা হারিয়েছে। এরকম অবস্থায় তার রাজনীতিতে টিকে থাকা একটা বড় চ্যালেঞ্জ হয়েছে। এছাড়াও শুদ্ধি অভিযানে যারা অভিযুক্ত হয়েছেন এবং গা ঢাকা দিয়েছেন। তাদের সবারই রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত বলে আওয়ামী লীগের একাধিক দায়িত্ব সূত্র নিশ্চিত করেছে।*

*নুরুন্নবী শাওন ইতিমধ্যেই গা ঢাকা দিয়েছেন। এমপি হওয়ার পরও এখন তার রাজনীতিতে কোন পজিশন নেই বলে আওয়ামী লীগের একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র দাবি করেছে। একইভাবে আওয়ামী লীগের আরেক এমপি নজরুল ইসলাম বাবু এবং চট্টগ্রামের হুইপ সামশুল হক চৌধুরীর মতো অনেক নেতার ভবিষ্যৎ অন্ধকা’রাচ্ছন্ন হয়ে পড়েছে বলে জানা গেছে।*
*অবশ্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের মনে করছেন, যারা বি’তর্কিত, তাদের রাজনীতি থেকে অপসারিত করলে বা রাজনীতি থেকে তারা দূরে সরে গেলে দলের কোনো ক্ষতি হবে না। তখন দল বরং শক্তিশালী হবে।*