প্রচ্ছদ খেলা ক্রিকেট *এত এত অপরাধ করেও ধোনি-সুজনদের বিচার হয় না কেনো?*

*এত এত অপরাধ করেও ধোনি-সুজনদের বিচার হয় না কেনো?*

82
এত এত অপরাধ করেও ধোনি-সুজনদের বিচার হয় না কেনো?

*বাংলাদেশের ক্রিকেট প্রথম খু’ন করেছিল খালেদ মাহমুদ সুজন। একাধিকবার মো. আশরাফুল সাংবাদিকদের কাছে বলেছিলেন যে তাকে জুয়া’ড়ীদের সাথে পরিচিত করিয়ে দিয়েছিলো খালেদ মাহমুদ সুজন। সেই সুজন এখন দশ থেকে বারটা পদ বগলদাবা করে বসে আছেন। অথচ আশরাফুল লোকান্তরে।*
*হতেও তো পারতো আজ টেস্ট দলে আশরাফুল থাকতেন, নিজের অধারাবাহিক ক্যারিয়া’রটাকে ধারাবাহিক করেও নিতে পারতেন।*

*অন্তত সাকিব পূর্ববর্তী যুগে তার ব্যাট কথা বললেই বাংলাদেশ জয়ের সম্ভাবনা তৈরী করতো। তার পুনর্বাসনের জন্য বিসিবি কোনদিনই সেই উদ্যোগ নেয়নি যেটা মোহাম্মদ আমিরের জন্যে পিসিবি নিয়েছিলো।*
*পৃথিবীর তাবৎ জুয়াড়ীর ৯০ ভাগ ভারতীয়। এই ব্যাপারে আইসিসি ভারতীয় বোর্ডকে কি কি শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে বলেছে বা নিদেন পক্ষে সতর্ক করেছে? কেউ জানেন? না! কারন আইসিসি ইন্ডিয়া সহ আরো দুইটা দেশের অর্থের ঝনঝনানির কাছে একটা ব্যালে ড্যান্সার ছাড়া আর কিছুই না।*

*ভারতের মহেন্দ্র সিং ধোনীর চেন্নাই সুপারকিংস অগনিত ম্যাচ ফি’ক্সিং করেছে। যা ভারতীয় মিডিয়ায় নিয়মিত এসেছে। এই ধোনীর সাথে ভারতীয় সাবেক বোর্ড প্রধান এন শ্রীনিবাসন এবং তার জামাই ও জড়িত ছিলো। আইপিএল এ অগনিত ম্যাচ ফি’ক্সিং এ তাদের নাম এসেছে। তার সাথে ধোনীর স্ত্রী এবং অভিনেতা দারা সিং এর ছেলেও জড়িত ছিলো একেবারে প্রমাণসাপেক্ষ ভাবে। তাদের শাস্তি কোথায়?*

*তাসকিনকে চা’কার ডেকে টি ২০ ওয়ার্ল্ডকাপের মাঝখানে ভারত থেকে ফেরত পাঠানোর ঘটনা ভুলে গেছেন? তাসকিনকে ফেরত পাঠানো হয় ঠিক বাংলাদেশ ভারত ম্যাচের আগে। কেন? বাংলাদেশকে মানসিকভাবে নড়বড়ে করে দেয়া! আর কি!*
*এই সিরিজে সাকিব আল হাসান থাকলেও বাংলাদেশ যে খুব হাতিঘোড়া মেরে ফেলবে তা কিন্তু না। কিন্তু ওই যে সেই সাম্রাজ্যবাদী মানসিকতা! যা এদের রক্তে মিশে আছে। সেটা তো এরা ছাড়তে পারে না।*

*সাকিবের চাওয়াতেই ভারত সফরের আগে ‘নি’ষিদ্ধ’*
*সাকিব আল হাসানের ইস্যু নিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট অঙ্গনে বিস্তর আলোচনা চলছে। তাঁর মত একজন ক্রিকেটার এমন ভুল করতে পারেন সেটি কেউ ভাবতেই পারেনি। তবে এ সময়ে নিষিদ্ধ হওয়াতে অনেকেই এর পেছনে বিসিবির দিকে আঙুল তুলছেন। আবার অনেকেই ভারত ক্রিকেট বোর্ড, বিসিসিআইয়ের দিকেও আঙুল তুলছেন। অনেকেই তো বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসানের দিকেও তুলছেন।*

*বিসিবি পরিচালক ও ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির চেয়ারম্যান আকরাম খান জানালেন সাকিবের চাওয়াতেই নাকি এসেছে ভারত সফরের আগে এই নিষে’ধাজ্ঞা!*
*অনেকের ধারণা বিসিবির বিরুদ্ধে ক্রিকেটারদের আন্দোলনের পেছনে সাকিবের অবদান বেশি। যার কারণে সাকিবের উপর চটে গিয়েই বিসিবির এ পরিকল্পনা। ভারতের বিপক্ষে সিরিজের আগে নিষে’ধাজ্ঞা পাওয়াতে বিসিসিআইয়ের দিকে আঙুল তুললেও নিজের অবস্থান পরিস্কার করেছে বিসিসিআই। তবে সেসব বাদ দিয়ে এই ইস্যুতে নতুন তথ্য দিলেন আকরাম খান।*

*সাকিবের চাওয়াতেই নাকি ভারত সফরের আগে এ নিষে’ধাজ্ঞা! একটি বেসরকারী টেলিভিশনে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন তিনি।*
*আকরাম খান বলেন, “আগেও আমরা বলেছি, আমরা কিন্তু কোনকিছু জানতাম না । অনেকে ভাবছেন এ সময়ে কেনো এটি এলো। ওরা সাকিবকে বলেছিল আরও কিছুদিন পর নি’ষিদ্ধ করবে। আসলে এটা এখন না হলে ভারত সফরের মাঝামাঝি সময়ে আসতে পারতো। সেটি গোটা দলের জন্য খারাপ হতো। সাকিবও তা চায়নি। এটি তার মুখেরই কথা। তাছাড়া, আরও কিছুদিন দেরি হলে ২০২০ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ সে মিস করতো। এখন সে সম্ভাবনাটা টিকে আছে।”*

*তিনি আরও যোগ করেন, ‘এখানে সময় তো আর গুরুত্বপূর্ণ না আমাদের কাছে। তার নিষে’ধাজ্ঞা কতদিনের সেটি গুরুত্বপূর্ণ।’*
*প্রসঙ্গত, গত ২৯ অক্টোবর আইসিসি থেকে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা আসে নি’ষিদ্ধ নিয়ে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী বছরের ২৯ অক্টোবর নিষে’ধাজ্ঞার মেয়াদ শেষ হবে সাকিবের।*

*নিষি’দ্ধ হওয়ার পর কেমন কাটছে সাকিবের রাত-দিন?*
*সারারাত কেঁদেছিলাম, রাত দেড়টা নাগাদ সময়ে হটাৎ এপাশ থেকে ওপাশে ফিরে দেখি -শিশিরও কাঁদছে! তাকে আর বিরক্ত করলাম না, কাঁদুক… কাঁদলে মনটা হালকা হবে! আমার মনে হচ্ছিলো আমি কি করলাম? ফিক্সিং না করেও এত বড় একটা শাস্তি কেন পেলাম? এ ধরনের নানা প্রশ্ন ছেদ করছে আমায় প্রতিটি সেকেন্ড। আমি কি করবো কিছু বুঝতে পারছি না.. কাকে গিয়ে বলবো ‘আমি নির্দোষ’ আমি কি সত্যিই নির্দোষ…? [রাত শেষ]*
*আজ ঘুমটা খুব ভোরেই ভেঙেছে, সত্যি বলতে ঘুমটা হয়নি… ঠিক মত হয়নি, অবশ্য এমন করুণ পরিস্থিতিতে কারই বা ভালো ঘুম হবে? ভালো ঘুম না হওয়াটাই স্বাভাবিক!*

*খাট থেকে নেমে বারান্দায় গিয়ে দাঁড়ালাম, বারান্দার টবে ফুল গাছটার পাতাগুলো কেমন যেন ধূসর হয়ে গেছে! সত্যিই হয়তো হয়েছে, নয়`তো বা এসবই আমার ভ্রম! এসব ভাবতে ভাবতে অনেক সময় কেটে গেলো… হটাৎ পেছন দিকে তাকিয়ে দেখি আমার মেয়ে আমার পেছনে মুখ গোমরা করে দাঁড়িয়ে আছে… তাকে উদ্দেশ্য করে একটা হাসি দিয়ে জিজ্ঞেস করলাম কি হয়েছে? জানি না সে কি বুঝে ভ্যালভ্যাল করে কেঁদে ফেললো… ওর কান্না দেখে আমি আর চোখে জল আটকে রাখতে পারলাম না… যাইহোক! নিজেকে বুঝালাম, “আমি ভেঙে পড়লে চলবে না, নিজেকে শক্ত করতে হবে” আর তাই করলাম… মেয়েকে নিয়ে রুমের বাইরে গেলাম, গিয়ে দেখি মা-বাবা মুখ কালো করে ডাইনিং টেবিলে বসে আছে, আমি যাওয়াতে তারা দু-জনেই হেসে ফেললো। তারা ভেবেছে আমি তাদের সন্তান, কিন্তু হয়তো তারা এটা ভুলে গেছে আমি এখন একজন “বাবাও”…*

*আমি সবই বুঝি, সবই জানি! যাইহোক! সবাই মিলে নাস্তা খেলাম! তারপর সাড়ে নয়টার দিকে মিরাজ-সাব্বির এলো.. এসেই মিরাজটা আমাকে জড়িয়ে ধরে দুঃখের গল্প শুরু করে দিলো.. সাব্বির বরাবরের মতন হাসিমুখর! মিরাজকে ছাড়িয়ে তার চোখের দিকে তাকাতেই দেখি তার চোখের নিচের পর্দায় পানি জমা! থাক ওকে আর কিছু বললাম না… (কাঁদুক)।*
*ওদের বসা অবস্থায় একে একে ম্যাশ, মুশি, রিয়াদ ভাই আসলো… সবার একই কথা “মিস ইউ সাকিব”।*

*আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি এই একবছর দেশে থাকবো না! অন্য কোথাও চলে যাবো… এখানে থাকলে আমার বারবার ঐ মাঠে যেতে মন চাইবে! যেখানে চাইলেও যেতে পারবো না… আমার মনে হয় এরচেয়ে আর বেশি কোন কষ্ট আমার হতে পারে না!*
*আমি দুঃখিত আমার সকল ভক্ত, ভালোবাসার মানুষ, সকল শুভাকাঙ্ক্ষীদের কাছে! আমি ভুল করেছি! তোমাদের চাওয়া অনুযায়ী কিছুই দিতে পারিনি! আমায় ক্ষমা করে দিও!*

*একটা কথা বাবা সব সময়ই বলে,”মহান আল্লাহ যা করেন, তা ভালোর জন্যই করেন!” হয়তো আমার জন্য, আমাকে ভালোবাসা মানুষদের জন্য আরো ভালো কিছু অপেক্ষা করছে! আল্লাহ হয়তো আরো ভালো কিছু রেখেছেন আমাদের জন্য!*
*শেষ একটা কথাই বলবে… আবার দেখা হবে… বাঙালির করুণ ২২ গজে! ২৯ শে অষ্টোবর, ২০২০ সাল। অব্যক্ত ব্যাথা!*

*প্রসঙ্গত, ম্যাচ ফি’ক্সিংয়ের তথ্য গোপন করে দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ হয়েছেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। এর মধ্যে এক বছর শা’স্তি স্থগিত রাখা হয়েছে। সাকিবের আচরণ দেখে ওই এক বছরের শা’স্তি বিবেচনা করবে আই’সিসি। গত মঙ্গলবার ২৯ অক্টোবর আই’সিসি কর্তৃক সাকিবের এই শা’স্তির ঘোষণা আসে।*