প্রচ্ছদ শিক্ষাঙ্গন “২ কোটি টাকা ভাগাভাগি’ নিয়ে উপাচার্য-ছাত্রলীগ পাল্টা’পাল্টি অভি’যোগ”

“২ কোটি টাকা ভাগাভাগি’ নিয়ে উপাচার্য-ছাত্রলীগ পাল্টা’পাল্টি অভি’যোগ”

125

*জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) অধিকতর উন্নয়নের জন্য প্রথম ধাপের ৪৫০ কোটির মধ্যে ২ কোটি টাকা ভাগা’ভাগি নিয়ে পাল্টা’পাল্টি অভি’যোগে করছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য এবং কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক।

*জানা যায়, কিছুদিন আগে গণমাধ্যমে প্রকাশ হয়, জাবি উপাচার্যের নে’তৃত্বে ও তার পরিবারের সদস্যদের উপস্থিতিতে মেগাপ্রকল্পের ৪৫০ কোটির মধ্যে ২ কোটি টাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের মধ্যে ভাগা’ভাগি করে দেওয়া হয়। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা হলের জায়গা পরিবর্তনসহ উপাচার্যের বিরু’দ্ধে দুর্নী’তির বিষয়ে ত’দন্ত কমিটি গঠনের জন্য আ’ন্দোলনে নামেন। আন্দো’লন বে’ড়ে গেলে তাদের দা’বি মেনে নেওয়ার আশ্বাস দেন উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম। পরে জাবি উপাচার্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্বিক পরি’স্থিতি ব্যাখ্যা করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করতে যান।

*প্রধানমন্ত্রীর কাছে জাবি উপাচার্য অভি’যোগ করে বলেন, ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী তার কাছে প্রকল্প বরাদ্দের চার থেকে ছয় শতাংশ টাকা দা’বি করেছে। টাকা দিতে রা’জি না হওয়ায় তারা উপাচার্যের সঙ্গে খা’রাপ আ’চরণ করে।

*উপাচার্যের ওই অভিযো’গের বিষয়ে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী বলেন, ‘আমাদের বি’রুদ্ধে যে অভিযো’গ আনা হয়েছে তা সত্য নয়। উপাচার্য ম্যাম ঈদের আগে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগকে ১ কোটি ৬০ লাখ টাকা দেন। তার একটি টাকাও আমাদের ছিল না।’

*রাব্বানী আরও বলেন, ‘উপাচার্য ম্যামের স্বামী ও ছেলে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগকে ব্যব’হার করে কাজের ডি’লিংস করে মোটা অঙ্কের কমিশন বাণিজ্য করে।’
এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম বলেন, ‘ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক তাদের বিরু’দ্ধে অভি’যোগের জবাব দিতে গিয়ে আমার পরিবারের সদস্যদের জ’ড়িয়ে যে তথ্য উপস্থাপন করেছে, তা উদ্দে’শ্যমূলক এবং মান’হানিকর।’