প্রচ্ছদ শিক্ষাঙ্গন “শিক্ষার্থীরা ঘুমান গণরুমে, ডাকসু জিএসের কক্ষে এসি”

“শিক্ষার্থীরা ঘুমান গণরুমে, ডাকসু জিএসের কক্ষে এসি”

48

*ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের একটি বড় অংশের রাত কাটে গণরুমে। ঘিঞ্জি পরিবেশে ছারপোকার কা’মড় তাদের নিত্যসঙ্গী। এই পরিবেশে থেকে অনেকেই অসু’স্থ হয়ে পড়েন। তবুও রেহাই নেই গণরুম থেকে। ছাত্রনেতারা দ’খল করে রাখেন আবাসিক হলের কক্ষগুলো। সেখানে ক্রীয়াশীল ছা্ত্র সংগঠনগুলোর প্রভাব’শালী নেতা ও তাদের ভাবশীষ্যরা আ’য়েশী জীবন যাপন করেন। এদিকে গণরুমে সাধারণ শিক্ষার্থীদের প্রা’ণ যায় যায় অ’বস্থা।

*এই পরি’স্থিতি থেকে রে’হাই দেয়ার প্রতিজ্ঞা করে ছাত্রসংসদ নির্বাচন করে ছাত্রলীগ। তিন দশক পর অনুষ্ঠিত ডাকসু নির্বাচনে দুই পদ ছাড়া বাকি পদগুলোতে জয় পায় ছাত্রলীগ। এরপর গণরুমে থাকা শিক্ষার্থীরা অ’ভিশপ্ত গণরুম প্র’থা থেকে মুক্তির স্বপ্ন দেখে। কিন্তু ডাকসু গঠন হওয়ার ছয় মাস পরও এ অভি’শাপ থেকে মুক্ত হতে না পেরে শিক্ষার্থীরা হ’তাশ।

*শিক্ষার্থীদের গণরুম সমস্যার সমাধানে কোনো উদ্যোগ নেয়নি ডাকসু। উ’ল্টো দেখা যায়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সাধারণ সম্পাদক (জিএস) গোলাম রাব্বানীর ডাকসুর নিজ অফিস কক্ষে কয়েক সপ্তাহ আগে নতুন শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত যন্ত্র (এসি) লাগানো হয়। এতে শিক্ষার্থী ও ছাত্রপ্রতিনিধিদের ক্ষো’ভ প্র’কাশ করেছেন।

*সাধারণ শিক্ষার্থীদের ক্ষো’ভের সঙ্গে একা’ত্মতা প্রকাশ করেছেন ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুর। তিনি জিএসের রুমে এসি লাগানোর বিষয়ে বলেন, যেখানে ছাত্ররা গণরুমে পঁ’চে ম’রছে, একরুমে ঠা’সাঠাসি করে ২০ জন থাকছে, কোনো সিলিং ফ্যান নেই। সেখানে একজন ছাত্র প্রতিনিধি হিসেবে জিএস রাব্বানী তার অফিস কক্ষে কোনোভাবেই এসি লাগাতে পারেন না। এটি আমি নৈ’তিকভাবে স’মর্থন করি না।

*এদিকে কিছুদিন আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) গণরুমে থাকা এক শিক্ষার্থীর ছা’রপোকার কাম’ড়ে পিঠে ক্ষ’ত সৃ’ষ্টি হয়। ক্ষ’তের ছবি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফেসবুক গ্রুপে পোস্ট দেয়ার পর তা ভা’ইরাল হয়ে যায়। তো’লপাড় সৃ’ষ্টি হয় ক্যাম্পাসে। শিক্ষার্থীরা গণরুমের আরও নৃ’শংসতার কথা ও চিত্র তুলে ধরেন ফেসবুকে।

*এ বিষয়ে জানতে নির্বাচনের আগে শিক্ষার্থীদের কাছে বিলি করা রাব্বানির নম্বরে ফোন করে কোনো সা’ড়া পাওয়া যায়নি। তবে তার ঘনিষ্ঠ এক ছাত্রলীগ নেতা জানিয়েছেন, রাব্বানী বিশ্ববিদ্যালয় কিংবা ডাকসুর অর্থে এসি লাগাননি। জিএসের অফিস কক্ষে এসি লাগিয়েছেন একজনের গিফট পেয়ে।