প্রচ্ছদ শিক্ষাঙ্গন “ছাত্রলীগ সেক্রেটারির প্রটোকলে না যাওয়া শিক্ষার্থীদের কক্ষে তা’লা”

“ছাত্রলীগ সেক্রেটারির প্রটোকলে না যাওয়া শিক্ষার্থীদের কক্ষে তা’লা”

43
গোলাম রাব্বানী ও শরীফুল ইসলাম শপু (ডানে)

*বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর প্রটোকলে না যাওয়া এবং গেস্টরুম না নেওয়ায় শিক্ষার্থীদের চারটি কক্ষে তা’লা ঝু’লিয়েছে রাব্বানীর অনুসারীরা।
রবিবার রাত ১০টার দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টারদা সূর্যসেন হলে এ ঘট’না ঘ’টে। হল শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ শরীফুল ইসলাম শপুর নেতৃ’ত্বে এটি হয়েছে বলে অভি’যোগ করেছেন ভুক্তভো’গী দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীরা।

*নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হলের একাধিক শিক্ষার্থী জানান, ‘দীর্ঘ দিন যাবত আমরা বিভিন্ন প্রোগ্রাম করে আসছি, কিন্তু আমাদের রাখা হচ্ছে গণ’রুমে। রবিবার দুপুরে রাব্বানী ভাই মধুর ক্যান্টিনে এসেছিলো। আজকে আমরা ইচ্ছা করে কেউ তার প্রটোকলে যাইনি। রাতে গেস্টরুমেও আসিনি। এ কারণে ক্ষি’প্ত হয়ে শপুর নি’র্দেশে তৃতীয় বর্ষের কয়েকজন আমাদের থাকার রুমগুলোতে তা’লা ঝু’লিয়ে দেয়। তালা’বদ্ধ কক্ষগুলো হচ্ছে ২৪৮, ২৩৭, ৪০১ (ক) এবং ৬২৬ (ক)। এই রুমগুলোকে আমরা ৩৪ জন থাকি। আমাদেরকে বলা হয় যেখানে ইচ্ছা সেখানে যে’তে পারিস।

*এ ব্যাপারে শরীফুল ইসলাম শপুর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তারা নিজেদের মধ্যে ঝা’মেলা করেছিলো। আমি তখন হলের বাইরে ছিলাম। কে বা কারা তা’লা লাগি’য়েছিলো আমি জানি না। পরে হলে এসে আমি মিটমা’ট করে তা’লা খু’লে দিয়েছি। রাব্বানী ভাইয়ের প্রটোকলে না যাওয়ায় তা’লা দেওয়ার বিষয়টি ভিত্তি’হীন।
তবে অভিযোগ আছে, প্রোগ্রাম-গেস্টরুম না করতে চাইলে শিক্ষার্থীদের ‘জামায়াত-শিবির’ আ’খ্যা দিয়ে হল থেকে বের করে দেওয়ার হু’মকি দেওয়া হয়। কিছুদিন আগে মহব্বত নামের এক শিক্ষার্থীকে ছাত্রদল আ’খ্যা দিয়ে বে’র করার হু’মকি দে’ওয়া হয়।

*হল প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক মকবুল হোসনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি খোঁ’জ খবর নিচ্ছি। এ ব্যা’পারে পরে জানাবো।
তবে এ ব্যাপারে জানতে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীকে একাধিকবার কল দেওয়া হলেও তিনি কোন সা’ড়া দেননি।