প্রচ্ছদ মুক্ত মতামত “বাংলাদেশের সিরিয়াল মূর্তি ভা’ঙ্গার শরৎকাল এসে গেছে”

“বাংলাদেশের সিরিয়াল মূর্তি ভা’ঙ্গার শরৎকাল এসে গেছে”

সুষুপ্ত পাঠক

330

*শরৎকাল এসে গেছে, তবু এখনো মূর্তি ভা’ঙ্গা উৎসব শুরু হয়নি কেন ভাবছিলাম। খোঁ’জ নিয়ে জানলাম হিন্দুদের দূর্গা পূজার মাস খানেক বাকি বা তার কিছু কম। তার মানে এখনি বাংলাদেশী মুসলমানদের মূর্তি ভা’ঙ্গা উৎসব শুরু হবার কথা। ফেইসবুকে নিউজ সাইটগুলোর পেইজে সি-ফাস্ট দিয়ে রাখায় সব আপগ্রেট নিউজ ফেইসবুকে ঢু’কলেই চলে আসে। সেরকমই একটা নিউজ চোখে পড়ল, ময়মনসিংহের ফুলতলীর কালিবাড়ী মন্দিরে হা’মলা চা’লিয়ে চারটি মূর্তি ভা’ঙ্গা হয়েছে। দ্বিতীয় ঘটনাটি হবিগঞ্জে, দুর্গা প্রতীমা নির্মাণের শুরুতেই ভে’ঙ্গে ফে’লা হয়েছে।… যাক বাবা নিশ্চিন্ত হলাম! ইট বালু সিমেন্টের শহরে কাশফুল দেখে শরৎকে মনে পড়ার জো নেই। একমাত্র বাংলাদেশের সিরিয়াল মূর্তি ভা’ঙ্গার খবর আসলেই বুঝতে পারি শরৎকাল এসে গেছে…।

*আমি আজ পর্যন্ত শরৎকালীন মূর্তি ভা’ঙ্গা নিয়ে কোন টকশো অনুষ্ঠিত হতে দেখিনি। ব্যারিস্টার সুমনকে কখনো দেখেছেন মন্দিরের মূর্তি ভা’ঙ্গা নিয়ে কোন লাইভ করতে? এই যে প্রিয়া সাহা ঘ’টনায় যেসব প্রগতিশীলের লুঙ্গি খু’লে গিয়েছিলো, তাদের কাউকে কোনদিন দেখেছেন শরৎকালীন মূর্তি ভা’ঙ্গা উৎসব নিয়ে কিছু বলতে? বাংলাদেশের বামপন্থিদের আপনি কোনদিন দেখেছেন এই ইস্যু নিয়ে কর্মসূচি দিতে? আমাদের ফেইসবুক মার্কসবাদী বিপ্ল’বীদের একজনকেও দেখেছেন কথা বলতে? দেখননি।

*তাদের সমস্ত দৃষ্টি মুসলিম জাহান নিয়ে। সাম্রাজ্যবাদীরা কিভাবে তেলের লোভে মুসলমানদের পাখির মত গু’লি করে মা’রছে…। নিজ দেশে হিন্দু পাহাড়ী আদিবাসীদের পরবাসীর মত বসবাস নিয়ে এরা নিশ্চু’প। উ’ল্টো বলে বাংলাদেশে নাকি হিন্দুরা নয় মুসলমানরাই বেশি নির্যা’তিত। আমাতী বুদ্ধিজীবীরা তো বলেই দিয়েছে নির্যা’তন হা’মলা ভাং’চুরের পর যারা দাঁ’ত কা’মড়ে পড়ে থাকবে- তারাই প্রকৃত দেশপ্রেমিক সংখ্যালঘু…।

*আসন্ন দুর্গাপূজায় নিশ্চিত করেই গণভবনে শুভেচ্ছা নিতে যাবে হিন্দু হো’মড়া-চো’মড়ারা। তারা কোনদিনই প্রধানমন্ত্রীর সামনে গিয়ে শরৎকালীন মূর্তি ভা’ঙ্গা উৎসব নিয়ে কিছু বলে না। তারা মনে করে, কি দরকার জলে বাস করে কুমিরের সঙ্গে বি’বাদ করে। আছিই তো কিছুদিন, তারপর সব বেচে’বুচে… সল্টলেকে তো বাড়ি করাই আছে, চ’লে যাবো! এটা মুসলমানদের দেশ হবে সেটা তো সেই ৫০ বছর আগেই গণভোটে ঠিক হয়েছিলো…। …এইসব ক্রিমখো’র ধনী আর পলিটিক্স করা হিন্দুরা বাংলাদেশে ১ পার্সেন্টও নয়। বাকী হিন্দুদের সবাই নিম্নবিত্ত। এরা কোলকাতায়ও যা বাংলাদেশেও তাই। এরা চিরকাল বাংলাদেশকেই নিজের দেশ ভাবে। এখানেই দাঁ’ত কা’মড়ে থাকতে চায়।

*পদপদবী, রাজা উজির নেতানেত্রী যা খুশি যে খুশি হোক, দেশটা মুসলমান হোক, যারাই চালাক- কিচ্ছুতে তাদের কিছু যায় আসে না। নতজা’নু হয়ে, বোবার শ’ত্রু নাই সেজে, সাতেপাচেঁ না থেকে, সবার মন জু’গিয়ে নিরহ ভী’তু গোবে’চারা সংখ্যালঘু হয়ে বাঁচতে চায়- শুধু নিরাপদে নিজেদের মত থাকার গ্যারান্টিটুকুর বিনিময়ে। কিন্তু ১০ পার্সেন্ট সংখ্যালঘু আর আদিবাসীর মিলিত সংখ্যাটা ‘১০০ ভাগ মুসলমানের দেশে কেন শরীয়া চালু হবে না’- বলতে দিচ্ছে না। হিন্দুদের মধ্যে আ’তংক তুলে দিলে এই ছাপোষা নিরহ গরীব মধ্যবিত্ত হিন্দুরা দেশ ছাড়ার কথা সিরিয়াসলি ভাবতে বা’ধ্য হবে। কিন্তু ক্রিমখো’র হিন্দুরা গণভবন অব্দি যেতে পারলেও তারা কোনদিন জিজ্ঞেস করবে না, এদেশে কোনদিন ঈদের দিন নির্বাচন দেবার কথা সরকার চিন্তা করতে পারবে?

*হিন্দুদের দুর্গা পূজার সময় রংপুরে উপনির্বাচন দিয়ে আবার তাদেরকে সংখ্যাল’ঘু ভাবতে না বলাটা কি তামা’শার মত হয়ে গেলো না? দুটো বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা চলবে, পারবেন ঈদের দিন এরকম পরীক্ষা ফেলতে? না, এমন প্রশ্ন না আসবে টেলিভিশন টকশো থেকে, না আসবে নেতাদের কাছ থেকে-। যখন ফেইসবুকে এসব উপস্থাপন করে কিছু বলি, তখন কিছু বিশেষ প্রাণীর বা’চ্চা এসে উল্টো ঘোঁ’ৎ ঘোঁ’ৎ করতে করতে বলবে, যখন ভারতে মুসলমানদের উপর খুব ইয়ে হয় তখন আপনি কোথায় থাকেন…। এই বিশেষ প্রাণীগুলো বামাতী, আমাতী, জামাতী… যেমন পরিচয়েরই হোক না কেন, এক খোয়াড়েই বাস…।

*কারা ভা’ঙ্গে এই মূর্তি? পুলিশ দুই একজনকে কখনো হাতে’নাতে গ্রেফতার করলে জানা যায় এরা ‘দু’র্বৃত্ত’। আশ্চর্য যে টাকা পয়সা জন্য নয়, স্রেফ মাটির একটা মূর্তি ভে’ঙ্গে এইসব দুর্বৃত্তের লাভটা কি? তখন বলা হয় এরা আসলে ‘মা’নসিক রো’গী’! তা মা’নসিক রো’গী কেবল মন্দিরই চেনে আর কিছু চেনে না? আসলে ভাসুরের নাম কেউ মুখে নিতে চায় না। মূর্তি ভা’ঙ্গা মুসলমানদের জন্য একদিক দিয়ে সুন্নত, কারণ নবী এটা ভে’ঙ্গেছেন। অন্যদিক দিয়ে এটা ওয়াজিব, কারণ সক্ষ’মতা থাকলেই এটা ভা’ঙ্গতে হবে। ট্রাম্পের মত লোক থাকলে এরকম সুন্নত পালন করতে গেলে ই’টের বদলে পা’টকেল খেতে হবে। অন্যদিক দিয়ে মূর্তি ভা’ঙ্গাটা আবার ফরজ- কারণ নবী বলেছেন যেখানেই মূর্তি আর মাজার দেখবে, সেখানেই ভে’ঙ্গে মাটির সঙ্গে মিশি’য়ে দিবে…।