প্রচ্ছদ বিশ্ব “আসামে ‘অ’বৈধ’দের জন্য নির্মিত হচ্ছে ব’ন্দিশিবির”

“আসামে ‘অ’বৈধ’দের জন্য নির্মিত হচ্ছে ব’ন্দিশিবির”

32

*চূড়ান্তভাবে যারা ভারতীয় নাগরিক বলে গণ্য হবেন না তাদের জন্য আসামের গোয়ালপাড়ায় প্রথম ‘এক্সক্লুসিভ ডিটেনশন সেন্টার’ নির্মাণ শুরু হয়েছে। এটি নির্মাণে খরচ পড়বে ৪৫ কোটি রুপি। ধারণ ক্ষম’তা হবে ৩০০০ ব’ন্দির। আসামে এমন ১১টি ব’ন্দিশিবির বানানোর পরিকল্পনা রয়েছে। বাকিগুলো নির্মাণ করা হবে বারপেটা, দিমা, হাসাও, কামরূপ, করিমগঞ্জ, লক্ষ্মীপুর, নগাঁও, নালবাড়ি, শিবসাগর ও সোনিতপুরে। সূত্রমতে, একেকটি ব’ন্দিশিবিরের ধারণ ক্ষ’মতা হবে কমপক্ষে ১০০০। এসব ব’ন্দিশিবির নির্মাণে মোট খরচ ধরা হয়েছে ১০০০ কোটি রুপি। ভারতের অনলাইন নিউজ ১৮ এ খবর দিয়েছে। এতে আরো বলা হয়, আসামে বর্তমানে ৩১টি জে’লখানা আছে।

*এর ধারণক্ষ’মতা মোটামুটি ৯০০০। এসব জে’লে অতিরিক্ত ব’ন্দি রাখার জন্য সরকার জে’লখানাকে সম্প্রসারণ করতে পারে।
*৩১শে আগস্ট চূড়ান্ত নাগরিকপঞ্জী বা এনআরসি থেকে যারা বা’দ পড়েছেন তারা ফরেনার্স ট্রাইব্যুনালে আবেদন করতে পারবেন। এসব আবেদন যাচাই বাছাই করার জন্য রাজ্য সরকার অতিরিক্ত ২০০ ফরেনার্স ট্রাই’ব্যুনাল স্থাপন করছে। আরো ২০০ এমন ট্রা’ইব্যুনাল স্থাপন করা হবে আগামী তিন মাসের মধ্যে। এনআরসি থেকে যারা বা’দ পড়েছেন তাদের ‘বিদেশি’ও বলা যাবে না, আবার তাদের গ্রেপ্তারও করা যাবে না- যতক্ষণ পর্যন্ত এ বিষয়ে আদালতে ফয়সালা না হয়।

*নিউজ ১৮ লিখেছে, রাজ্যের ৬টি ব’ন্দিশিবিরে ‘বিদেশি’ ঘো’ষিত অনেক ব’ন্দি অবস্থান করছেন। তিন বছরের জে’ল সম্পন্ন করার পর সুপ্রিম কোর্ট শর্তসাপেক্ষে তাদের মুক্তি দেয়ার নি’র্দে’শ দিয়েছে। তা সত্ত্বেও ওইসব ব’ন্দি জে’লেই রয়েছেন। মে মাসে সুপ্রিম কোর্ট নি’র্দেশ দেয় যে, আসামে যেসব অ’বৈধ ‘বিদেশি’ শা’স্তি হিসেবে তিন বছরের জেল খেটেছেন তাদেরকে এক লাখ রুপি ব’ন্ডের বিনিময়ে শর্তসাপেক্ষে মুক্তি দেয়া যেতে পারে। এক্ষেত্রে তার জি’ম্মাদার হতে হবে দু’জন ভারতীয়কে এবং তার থাকতে হবে একটি বৈধ ঠিকানা। আদালত আরো নি’র্দেশ দেয় যে, সব বন্দির বায়োমেট্রিক বিস্তারিত এবং ফটো ধারণ করতে হবে। তা জমা রাখতে হবে ডাটাবেজে। মুক্তি পাওয়া ব্যক্তিদের প্রতি সপ্তাহে অবশ্যই পুলিশে রি’পোর্ট করতে হবে।

*এখন পর্যন্ত ফরেনার্স ট্রাইব্যুনাল কমপক্ষে এক লাখ মানুষকে ‘বিদেশি’ হিসেবে ঘো’ষণা করেছে। তার মধ্যে ২০১৩ সাল থেকে এ পর্যন্ত মাত্র চারজনকে বহি’ষ্কার করা হয়েছে। রাজ্য সরকারের হিসাবে, কমপক্ষে ৯০০ ব্যক্তি এখন জে’লে আছে। অন্যদের বেশির ভাগই রয়েছে পলা’তক।