প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয় “সাধনা নিজেই ওয়েভ ক্যামেরা স্থাপন করে ডিসিকে ফাঁ’সিয়েছেন?”

“সাধনা নিজেই ওয়েভ ক্যামেরা স্থাপন করে ডিসিকে ফাঁ’সিয়েছেন?”

474

*ভিডিও ভাইরা’লের পর অফিস সরকারী নারীর সাথে কি আপনার যোগাযোগ হয়েছে? এমন এক প্রশ্নে জামালপুরের সাবেক ডিসি আহমেদ কবির বলেন, হ্যাঁ, আমার সাথে ওনার পরিবার ও ওনার কথা হয়েছে।
তিনি থানায় একটি সাধারণ ডা’য়েরি (জিডি) করেছেন। তিনিও এই ঘট’নার সু’ষ্ঠু ত’দন্ত চান। জেলা প্রশাসকের বাইরে আপনি একটি পরিবারের অবিভাবক। এই ঘট’নার পর আপনার পরিবারে কি কোন ধরনের আঘা’ত প’ড়েছে?

*না, আমার পরিবারে কোন ধরনের আঘা’ত প’ড়েনি। আমার পরিবারকে বুঝিয়েছি বিষয়টি। প্রশাসনিকভাবে কি আপনার সাথে যোগাযোগ করা হয়েছ? এই ঘট’নার কি ত’দন্ত হবে?
আমার সাথে বিভিন্ন উপর ম’হল থেকে যোগা’যোগ করা হয়েছে। জানতে চেয়েছেন। আমি সঠিকটি বলেছি।এরপর কোন ধরনের তদ’ন্ত হবে কিনা আমি বলতে পারছি না।
তিনি জানান, ফেসবুক আইডি ব্যবহারকারীরা গত ১২দিন ধরে আমার কাছে প্রথমে ৫০০ ডলার, এরপর বাংলা টাকা ১ লাখ দা’বি করে। আমি টাকা দিতে অস্বী’কার করি। এরপর ভিডিওটি প্র’কাশ করে দেওয়া হয়।

*যে ভিডিওটি প্র’কাশ হয়েছে সেটা কি জেলা প্রশাসকের আওতাধীন? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, না, এটা আমাদের আওতাধীন না। সেখানে কি করে সিসি ক্যামেরা আসলো আমি বলতে পারবো না। আমার অফিসের কেউ ষড়’যন্ত্র করেছে আমার বি’রুদ্ধে। আমি এর সুষ্ঠু ত’দন্ত চাচ্ছি।
জামালপুরের জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রাজীব কুমার সরকার বলেন, এই ঘট’নার পর থেকে বিভিন্ন মহ’ল থেকে আমারা যারা চাকরিতে কর্মরত রয়েছি তাদের কাছে ফোন আসছে, জানতে চা’ওয়া হচ্ছে।যেটা আমাদের জন্য ল’জ্জাজনক। আমরা বিব্র’তকর পরিস্থি’তি পড়েছি। এমন ঘ’টনা আমাদের জন্য কাম্য ছিল না।

*এদিকে বৃহস্পতিবার দুপুর পৌনে ২টার দিকে ডিসির সভাকক্ষ থেকে বের হয়ে আগামী রোববার থেকে নতুন করে পাঁচদিনের ছুটির আ’বেদন করেন সাবেক ডিসির প্রেমিকা সাধনা।
অবশ্য বেশি দিনের ছুটি পাওয়ার জন্য সাধনা এর আগে ঘ’টিয়েছেন অন্য এক কা’ণ্ড। তলপে’টের ব্য’থার কথা বলে চিকিৎসকের কাছ থেকে মেডিকেল সনদ নিতে ব্য’র্থ হয়েছেন তিনি।
এতে তিনি চিকিৎসকের ওপর ভী’ষণ ক্ষি’প্ত হয়েছেন। রা’গে-ক্ষো’ভে চিকিৎসককে দেয়া ৫শ’ টাকা ফিস ফে’রত নিয়েছেন তিনি। বেশ কয়েকদিন ধরেই দেশজুড়ে আলো’চনার কেন্দ্রবি’ন্দুতে রয়েছেন জামালপুরের সাবেক জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীরের সঙ্গে আপ’ত্তিকর অ’বস্থায় ভিডিও ভাই’রাল হওয়া সাধনা।

*জামালপুর জেনারেল হাসপাতালের ওই চিকিৎসক নাম প্রকাশ না করা শ’র্তে তিনি জানান, গত বুধবার (২৮ আগস্ট) তলপে’টে ব্য’থার সমস্যা নিয়ে তার কাছে যান সাধনা।
এই অসুস্থতার জন্য তিনি ১৫ দিন তাকে রেস্টে থাকতে হবে এই মর্মে একটি মেডিকেল সার্টিফিকেট দা’বি করেন। চিকিৎসক এ সময় তাকে প্রাথমিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখেন, তার পে’টে ব্য’থা হওয়ার কোনো লক্ষণ নেই।
যেকারণে তিনি সাধনাকে ওই সার্টিফিকেট দেননি। এ জন্য তার ওপর বেশ ক্ষি’প্ত হন সাধনা। পরে সার্টিফিকেট না পেয়ে চিকিৎসককে দেয়া ভিজিটের ৫শ’ টাকা ফে’রত নেন তিনি।

*অপরদিকে আহমেদ কবীরের যৌ’ন কেলে’ঙ্কারির খবর জা’নাজানির পর থেকেই জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের অফিস সহায়ক (পিয়ন) সানজিদা ইয়াসমিন সাধনাকে নিয়ে কথা বলতে ডিসি অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সাহ’সী হতে শু’রু করেছেন।
ডিসি ও সাধনার ভাই’রাল হওয়া ভিডিও যারা দেখছেন, তারা বলছেন, সাধনা নিজেই ওয়েভ ক্যামেরা স্থাপ’ন করে ডিসিকে ফাঁ’সিয়েছেন।

*যে ভিডিওটি ভাইরা’ল হয়েছে বলে বলা হচ্ছে, সেই ভিডিওটি পর্য’বেক্ষণ করলে দেখা যায়, হিজাব পরা নারীটি বার বার দেয়ালের দিকে তাকিয়ে দেখছে ক্যামেরা ঠিকঠাক মতো চ’লছে কিনা। সাধনার সঙ্গে ডিসি অফিসের কতিপয় কর্মচারীও এ কাজে জ’ড়িত বলা তারা বলছেন।
সাধনা যে একটা সংঘ’বদ্ধ প্রতা’রক চক্রের সঙ্গে জ’ড়িত তার বড় প্র’মাণ হিসেবে সে ডিভিওটি প্রথমে সাংবাদিকদের ম্যাসেঞ্জারের মাধ্যমে ছ’ড়িয়ে দেয়। বিদেশি পপুলার প’র্ণ সাই’টে আপ’লোড করা হয়। এ কাজটা তার একার পক্ষে করা সম্ভব হয়নি।

এর সঙ্গে ক্রাই’ম জগতের লোকদের হাত রয়েছে অনেকে ধারণা করছে। বিটিআরসি প’র্ণ সাইট ল’ক করে দেওয়ায় এটি বাংলাদেশ থেকে দেখা যায় না। তখনই এই ভিডিওটি একটি ফে’ক আ’ইডিতে আ’পলোড করা হয়।
তার আগে ডিসির কাছে মোটা অঙ্কের টাকা দা’বি করা হয় বলে গুঞ্জ’ন রয়েছে। কিন্তু তাতে সা’ড়া দেননি ডিসি। সঠিক ত’দন্ত করলেই বিষয়টি বেরিয়ে আসবে বলে বিভিন্ন ম’হল থেকে বলা হচ্ছে।