প্রচ্ছদ আইন-আদালত “র’হস্য: গু’ম হয়, ফিরে আসে না, এলেও কথা বলে না”

“র’হস্য: গু’ম হয়, ফিরে আসে না, এলেও কথা বলে না”

35

*২০১৭ সালের ৪ ডিসেম্বর। ছোট মেয়ে সামিহা জামানকে আনতে ধানমণ্ডির বাসা থেকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের উদ্দেশে বের হন সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ জামান। কিছুক্ষণ পর বাসার ল্যান্ড ফোনে ফোন করেন তিনি। জানান, বাসায় কয়েকজন লোক আসবেন, যারা তার ব্যবহৃত ইলেকট্রনিক ডিভাইসগুলো নিয়ে যাবেন। কিছুক্ষণ পর কালো টিশার্ট পরা, মাথার টুপি নাক পর্যন্ত নামানো সুঠামদেহী তিন ব্যক্তি বাসায় গিয়ে সাবেক এ কূটনীতিকের ফোন, ল্যাপটপ ইত্যাদি নিয়ে যায়।

*এর পর থেকে নিখোঁ’জ মারুফ জামান। দিন যায়, মাস পেরিয়ে বছর গেলেও তিনি আর ফিরে আসেন না। নিখোঁ’জ বাবার জন্য হৃদয়ে জমা শো’ক নিয়ে ‘মায়ের ডাক’ নামে একটি সংগঠনে যুক্ত হন সামিহা জামান। যারা গু’ম হয়েছেন, তাদের স্বজনদের নিয়ে গড়া এ সংগঠনের কার্যক্রমে সো’চ্চার হয়ে ওঠেন তিনি।

*অবশেষে নিখোঁ’জ হওয়ার ৪৬৬ দিন পর হঠাৎ ফিরে আসেন মারুফ জামান। তার এ ফিরে আসায় অনেকের মনে অনেক প্রশ্ন জাগলেও তিনি কিন্তু নির্বাক, একদমই মুখ খু’লছেন না। শুধু তিনিই নন, তার স্বজনরাও মুখ খু’লতে নারা’জ। নি’রুদ্দেশ বা গু’ম হয়ে যাওয়ার পর ফিরে আসছেন যারা, তাদের প্রত্যেকের ক্ষেত্রে একই ঘ’টনা ঘ’টছে। মারুফ জামানের মতোই তারা মুখ খু’লছেন না; তাদের স্বজনরাও তা-ই। কিন্তু গু’ম বা নি’রুদ্দেশ হওয়ার পর বছরের পর বছর পেরিয়ে গেছে; কিন্তু ফেরেননি, এমন লোকের সংখ্যাও কম নয়। যদিও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল মনে করেন, গু’ম বলে কিছু নেই। কেউ হয়তো অ’পহৃত হন; কেউবা প্রেমসংক্রান্ত বা ব্যক্তিগত কোনো কারণে আত্মগো’পনে থাকেন।

*মানবাধিকার কর্মীরা বলছেন, মু’ক্তিপণ বা ব্যক্তিস্বা’র্থের দ্ব’ন্দ্বে অপহ’রণের কিছুদিন পর অপরা’ধীরা দাবি আ’দায় করে ভু’ক্তভোগীকে মুক্তি অথবা লা’শ ফে’লে দেন। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ত’দন্তে এসব অপ’রাধী চক্র ধ’রাও পড়ছে। কিন্তু দীর্ঘ সময় বা অনির্দিষ্টকালের জন্য গু’ম বা তুলে নেওয়ার ক্ষম’তা সবার থাকে না। এ ক্ষেত্রে নিজের বা পরিবারকে বিপদ থেকে দূরে রাখতে অদৃ’শ্য শক্তি’ধর ব্যক্তি বা গো’ষ্ঠীকে আ’ড়াল করতে বা’ধ্য হচ্ছেন ফিরে আসা ব্যক্তিরা।

*এমন পরিস্থিতিতেই সারা বিশ্বের মতো আজ শুক্রবার বাংলাদেশেও পালিত হবে আন্তর্জাতিক গু’ম প্রতি’রোধ দিবস। দিনটি উপলক্ষে বাংলাদেশেও আজ কর্মসূচি পালন করা হবে। সংবাদ সম্মেলন করবে গু’ম হওয়া মানুষের স্বজনদের নিয়ে গঠিত প্লাটফর্ম ‘মায়ের ডাক’। প্রতি বছরের মতো এবারও সেখানে তুলে ধ’রা হবে গু’ম হওয়া ব্যক্তির স্বজনদের ভাষ্য ও অভিযোগ। তুলে ধ’রা হবে প্রিয়জন না থাকায় তাদের ক’ষ্টের অনুভূ’তিগুলো এবং প্রিয়জনকে ফিরে পেতে সরকারের সহায়তা কামনা করা হবে এবং সম্মিলিতভাবে এর প্রতি’কার দাবি করা হবে।

*গু’ম হওয়া কোনো ব্যক্তি ফিরে এলে কেন মুখ খু’লছেন না? এমন প্রশ্নে মানবাধিকারকর্মী নূর খান লিটন বলেন, তারা আ’টক অব’স্থায় এমন কিছু ভ’য়াবহ পরি’স্থিতি বা অভি’জ্ঞতা অর্জন করেন এবং তাদের এমনভাবে ভ’য় প্রদ’র্শন করা হয়, যাতে ফিরে এসে কোনোভাবেই মুখ না খোলেন। এটি তখনই সম্ভব হয় যখন গু’ম হওয়া মানুষগুলো কোনো সুশৃঙ্খল গো’ষ্ঠীর হাতে ব’ন্দী থাকে এবং এই গো’ষ্ঠী রাষ্ট্রের ক্ষ’মতাকে ব্যবহার করতে পারে।

*তিনি বলেন, এ অভিজ্ঞতা ও প’রিস্থিতিতে এটি স্পষ্ট যে, তারা আসলে কাদের দ্বারা অ’পহৃত-গু’ম হয়েছিল। কথা বলতে না পারার মতো একটা ভয়া’নক পরিস্থি’তি সৃ’ষ্টি করতে পারাই বলে দেয়, আসলে তারা কোন গো’ষ্ঠীর হাতে ব’ন্দী ছিল। ২০১৩ সালের পর বাংলাদেশে আনুমানিক ৭০০ জন গু’মের শি’কার হলেও জী’বিত ফেরা কিংবা তাদের লা’শের সন্ধান পাওয়া গেছে, এমন মানুষের সংখ্যা অর্ধেকেরও কম।

*আন্তর্জাতিক গু’ম প্রতিরোধ দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ পরিস্থিতি নিয়ে গতকাল একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে এশিয়ান হিউম্যান রাইটস কমিশন। প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০০৯ সালের জানুয়ারি থেকে এ বছরের জুলাই পর্যন্ত বাংলাদেশে ৫৩২ জন গু’ম হয়েছেন। ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে জাতিসংঘে অনুষ্ঠিত হিউম্যান রাইটস কাউন্সিলের ৩৯তম সভায় ৪৩২ জন গু’ম হওয়া ব্যক্তির কথা উল্লেখ করে সংস্থাটি। সেই হিসাবে ৩৯তম সভার পর অর্থাৎ গত এক বছরে এ দেশে শতজন গু’ম হওয়ার ঘ’টনা ঘ’টেছে।

*এশিয়ান হিউম্যান রাইটসের প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, গু’ম হওয়া ব্যক্তিদের স্বজনরা বরাবরই আইনশৃঙ্খলা র’ক্ষাকারী বা’হিনী ও গো’য়েন্দা সংস্থাগুলোর ওপর দা’য় চা’পাচ্ছে। গু’ম হওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে যারা ফিরে এসেছেন, তারা পরিবারের কাছে বলছেন, আইনশৃঙ্খলা র’ক্ষাকারী বা’হিনীসহ গো’য়েন্দা সংস্থাগুলোর নির্জন কা’রাবাসে রাখার গল্প। এ নির্জন কারাগারগুলো ‘সেফ হাউস’ নামে পরিচিত। ঢাকা শহরেই রয়েছে এসব সেফ হাউসের অধিকাংশ। একাধিক ভু’ক্তভোগী বলেছেন, তাদের এক সেফ হাউস থেকে অন্য সেফ হাউসে স্থা’নান্তরও করা হয়েছিল।

*আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসক) তথ্য মতে, ২০১৪ সাল থেকে চলতি বছরের জুলাই মাস পর্যন্ত ৩৪৪ জন গু’ম হয়েছেন বলে ভুক্ত’ভোগীদের পরিবার ও স্বজনরা অ’ভিযোগ তুলেছেন। তাদের মধ্যে পরবর্তী সময়ে ৪৪ জনের লা’শ উদ্ধার হয়েছে; ৬০ জনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে এবং ৩৫ জন ফেরত এসেছেন।

*২০১৩ সালের ৪ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় রাজধানীর বসুন্ধরা সিটির সামনে থেকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পরিচয়ে তুলে নেওয়া হয় তেজগাঁওয়ের বিএনপি নেতা সাজেদুল ইসলাম সুমনসহ ৬ জনকে। এর পর সুমনের শাহীনবাগের বাসার সামনে থেকে আরও দুজনকে তু’লে নেওয়া হয়। সুমনের মা হাজেরা খাতুন বলেন, সেদিন তিনটি গাড়িতে করে সুমনকে তু’লে নেওয়া হয়েছিল। তাই আজও মাঝরাতে বাসার সামনের রাস্তার গাড়ির শব্দে ঘুম ভাঙে। স্বপ্ন দেখি, আমার সুমন তাদের (আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর) গাড়ি থেকে নেমে কড়া নাড়ছে, মা আমি ফিরে এসেছি। কিন্তু স্বপ্নগুলো সেখানেই ব’ন্দি থাকে, বাকি রাত দু চোখে পানি ঝ’রে। কিন্তু ছেলে ফেরে না। আর এভাবে বেঁ’চে থাকতে হবে বলেই বেঁ’চে আছি। ৬ বছর হতে চলছে আর পারি না। তবে এখনো আশায় বুক বেঁ’ধে আছি।

*সুমনের বড় বোন মারুফা ইসলাম ফেরদৌসী বলেন, সুমনকে তুলে নেওয়ার ১-২ বছর ধ’রে আশায় ছিলাম। আইনশৃঙ্খলা র’ক্ষাকারী একটি ইউনিট থেকে সুমনকে ফিরিয়ে দেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়। কিন্তু এখন তারা কথাই বলছে না। মাঝে শুনেছি সুমনকে তুলে ভারতের শিলং বা হিমাচলে পাঠানো হয়েছে। ইতোমধ্যে সুমনের দুই মেয়ে হাফসা ইসশার ও আরওয়া বড় হয়েছে। ওরা বাবাকে ফে’রত চাচ্ছে।

*একই সঙ্গে তুলে নেওয়া হয় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র আসাদুজ্জমান রানাকে। তার বড় বোন মিনারা আক্তার বলেন, একটা মানুষ ম’রে গেলে শো’ক-দুঃ’খ করে সব ভুলে যায়। কিন্তু যিনি গু’ম তাকে নিয়ে কেমন অনু’ভূতি হয়। আশা করি প্রধানমন্ত্রী আমাদের ক’ষ্ট বুঝবেন।

*২০১৭ সালের ৫ এপ্রিল যশোরের কোতোয়ালি থানা পুলিশের বিরু’দ্ধে ডে’কে নেওয়ার অভি’যোগ শাওন মির্জা নামে এক গাড়িচালককে। শাওনের বড় ভাই ফয়সাল মির্জা বলেন, আমরা আওয়ামী লীগ করি, ভাই আমার আওয়ামী লীগ নেতার গাড়িচালক। কিন্তু ওর বন্ধু সাঈদের সঙ্গে প্রভা’বশালী কন্যার নারীঘ’টিত বিষয়ে সমস্যা ছিল। তাই পুলিশ সাঈদকে ডেকে নেয়। হয়তো সাঈদকে গু’ম করার সাক্ষী না রাখতেই শাওনকে গু’ম করা হয়েছে অনুমান ফয়সালের।

*২০১১ সালের ২৪ জুলাই উত্তরা থেকে নি’খোঁজ হন স্থানীয় গার্মেন্টস ব্যবসায়ী মাহবুবুর রহমান শিপন। এর পর তার স্ত্রী সামিয়া সুলতানা থানায় মামলা করতে গেলেও পুলিশ মামলার বদলে জিডি (সাধারণ ডায়েরি) গ্রহণ করেন। কিন্তু শিপন বেঁ’চে আছে নাকি ম’রে গেছে সেই প্রশ্ন সামিয়া সুলতানার।

*আসকের নির্বাহী পরিচালক শীপা হাফিজা বলেন, একটা গু’ম হলেও এটা মানবাধিকার লঙ্ঘন। রাষ্ট্রের দায়দায়িত্ব প্রতিটি ঘ’টনায় ত’দন্ত করে ভু’ক্তভোগীদের খুঁ’জে বের করে দেওয়া। কিন্তু যারা ফি’রে এসেছে তারা কথা বলছে না। আশা করছি সরকার আরেকটু তৎ’পর হবে, কারা গু’ম করছে তা খুঁ’জে বের করবে।