প্রচ্ছদ মুক্ত মতামত “সৌদি শেখের লালসা ও হজ পালনরত পাকিপিতার প্রত্যাখ্যান”

“সৌদি শেখের লালসা ও হজ পালনরত পাকিপিতার প্রত্যাখ্যান”

কায়সার আহমেদ

89

*একজন পরিচিত পাকিস্তানী ভাই খুব দুঃখ করে বললেন সৌদি আরবের খবিশদের কথা। তিনি গত বছর হজ্বে গিয়েছেন চার সন্তান এবং বিবিসহ। তার বড়ো কন্যার বয়স মাত্র সতেরো বছর। ঘটনা হলো, হজ্বের অনুষ্ঠান পালনরত সময়ে তিনার পরিচয় হয় এক সৌদি শেখের সাথে। সৌদি শেখ (বকরী) তিনার কন্যাকে দেখার পরে “বেহুশ”। আমি অবশ্য পাকি ভাইয়ের কন্যাকে কখনো দেখিনি। তবে কন্যা যে খুব ‘সুন্দরী’ হবে সেটি পিতাকে দেখে অনুমান করা যায়। কারণ পাকি ভাই অত্যন্ত সুদর্শন একজন পাঠান পাকিস্তানী।

*যাউকগা, জিলকদ মাসের দশ তারিখ “বড়ো শয়তান”কে পাথর মেরে আসার পথে এরাবিয়ান এই শেখের সাথে পাকি ভাইয়ের পরিচয় হয়। পরিচয়ের মাত্র আধাঘন্টার ভিতরেই সৌদি বকরী তিনার কন্যাকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে বসেন।

*পাকি ভাই এতে ভীষণ ক্ষুব্ধ হন এবং বলেন, “আমার কন্যা তোমার মেয়ের বয়সী, তুমি এসব কি বলছো?” সৌদি বকরী বলেন, “আমার অনেক টাকা পয়সা আছে, তুমি কত চাও বলো? তোমার জীবন বদলে দেব, তবুও তোমার কন্যাকে আমাকে দাও।” পাকি ভাই বলেন, “তোমার কি বিবি বাচ্চা নাই?” সৌদি বকরী বলেন, “আছে, আমার তিনজন বিবি এবং সন্তান ৮ জন। তোমার কন্যাকে চার নম্বর স্ত্রী হিসাবে বিয়ের প্রস্তাব দিচ্ছি! ভেবে দেখো ভাই, তোমাকে আমি খুশি করে দেব।”

*পাকি ভাই বলেন, “ঠিক আছে, তুমি যদি বাকি তিন বিবিকে তালাক দাও এবং সম্পত্তির অর্ধেক আমাকে দিয়ে দাও, আমার কন্যাকে দিয়ে দেব।” সৌদি বকরী এতে ভীষণ ক্ষিপ্ত হয়ে পাকি ভাইকে শয়তান, মিসকিন ইত্যাদি গালি দিতে দিতে গোৎ গোৎ করে স্থান ত্যাগ করিলেন।’…

*ইসলামী পোশাক ও জাকির নায়েকের ভণ্ডামি

*উসমান ইবনে আবু শায়েবা থেকে বর্ণিত হাদিস, “রাসূলপাক (স) বলেছেন, যে মুসলমান অন্য কওমের (মুশরিক ইহুদি খ্রিস্টান) পোশাক পরিধান করবে, সে তাদেরই দলভুক্ত হবে।” (সুনান আবু দাউদ, ‘সহীহ’ হাদিস, নং ২৭/৩৯৮৯)।

*ইবনে আব্বাস থেকে বর্ণিত আরেকটি হাদিস, “রাসূলপাক (স) বলেছেন, তোমরা সর্বদা সাদা পোশাক পরিধান করবে, কারণ কাফনের কাপড় সাদা এবং আমি নিজেও সাদা পোশাক পছন্দ করি।” (সুনান আবু দাউদ, ‘সহীহ’ হাদিস, নং ২৭/৪০১৭)।

*উপরের দুইটি হাদিস থেকে প্রমাণিত হয়, সাদা জোব্বা শুধু আরবীয় পোশাক নয়, এটি হাদিসে বর্ণিত মুসলমানদের পোশাকও বটে। এবং যারা বিধর্মীদের পোশাক (কোট টাই) পরবে, তারা সেই দলের ‘অন্তর্ভুক্ত’ হবে।

*ছবিতে সৌদি বাদশাহ ‘শতভাগ’ খাঁটি ইসলামিক পোশাক পরেছেন। মাশাল্লাহ! তবে ভণ্ড জুকার নায়েক ইহুদি খ্রিস্টানের কোট-টাই পরে পুরস্কার নিচ্ছেন। অর্থাৎ নবীর বিধানমতে, তিনি হলেন ইহুদী নাসারাদের দলের ‘অন্তর্ভুক্ত’ লোক। অথচ গোজামিল বাবা সবসময় চেলেঞ্জ ছুড়ে বলেন, “ইসলামের কোথাও নাই স্যুট-টাই পরা যাবে না!” জাকের নায়েক নিজেকে একজন ‘খাঁটি’ মুমিন দাবি করেন এবং ইসলাম ধর্মের শ্রেষ্ঠ প্রচারক হিসাবে বক্তৃতা দেন। নাউজুবিল্লাহ।…