প্রচ্ছদ রাজনীতি “আওয়ামী লীগে হাইব্রিডদের দাপট, ত্যাগীরা কোণঠাসা”

“আওয়ামী লীগে হাইব্রিডদের দাপট, ত্যাগীরা কোণঠাসা”

98
আওয়ামী লীগে হাইব্রিডদের দাপট, ত্যাগীরা কোণঠাসা

*২০১৩ সালে সরকারবিরোধী আন্দোলনের সময় হরতালের সমর্থনে নগরীর সাগরদী বাজারে বিএনপির মিছিল থেকে গ্রেফতার হয়ে ছয় দিন কারা ভোগ করেছিলেন হামিদ খান সড়কের বাসিন্দা বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী জিয়াউল হাসান। ওই সময় নগরীর ২৪ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রদলের প্রস্তাবিত কমিটির সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী ছিলেন তার ভাই রাশেদুল হাসান। দুই ভাই ছিলেন ছাত্রদলের সক্রিয় কর্মী। কিন্তু ২০১৪ সালে ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে আওয়ামী লীগ টানা দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতা গ্রহণের পরপরই মহানগর আওয়ামী লীগের এক নেতার ছত্রচ্ছায়ায় ক্ষমতাসীন দলের বনে যান তারা দুই ভাই। এর পর থেকেই ওই নেতার ছত্রচ্ছায়ায় সাগরদী এলাকায় চাঁ’দাবাজি, ছি’নতাই, মা’দক সেবন ও বিক্রির অভিযোগ ওঠে নব্য আওয়ামী লীগার দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে। তাদের য’ন্ত্রণায় অতিষ্ঠ নগরীর সাগরদী মাদ্রাসা এলাকার ব্যবসায়ীসহ স্থানীয়রা।

*এ নিয়ে স্থানীয় দৈনিকগুলোতে একাধিকবার সংবাদ প্রকাশিত হলেও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ কিংবা প্রশাসনের তরফ থেকে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। এখনো আওয়ামী লীগের ছত্রচ্ছায়ায় বীরদর্পে অ’পকর্ম করার অভিযোগ রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে। একইভাবে ২০১৩-১৪ সরকারবিরোধী আন্দোলনের সময় নগরীর রূপাতলী বাস টার্মিনালের অভ্যন্তরে একটি বাস পোড়ানো মামলার আসামি নগরীর ২৫ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রদল এবং পরে জেলা ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক মিজানুর রহমান মামুন মোল্লা বিগত সিটি নির্বাচনের রাতারাতি আওয়ামী লীগার বনে যান। তার ভাই জাহিদুর রহমান মনির মোল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং ই’য়াবা মামলার আসামি। ভাইয়ের হাত ধরেই আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশ করা মামুন মোল্লার বিরুদ্ধে নগরীর রূপাতলী বাস টার্মিনাল ও স্থানীয় বাজারসহ আশপাশ এলাকায় চাঁদাবাজি এবং ইয়াবা ব্যবসার অভিযোগ রয়েছে।

*একসময় একটি অখ্যাত ওষুধ কোম্পানিতে বিক্রয় প্রতিনিধির চাকরি করতেন বরিশালের উজিরপুর উপজেলা সদরের বালীবাড়ির বাসিন্দা উপজেলা ছাত্রসমাজের (জাপার সহযোগী সংগঠন) সভাপতি মনির বালী। পরে উজিরপুর পৌরসভার ৪ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক হন তিনি। কয়েক বছর আগে হঠাৎ আওয়ামী লীগার বনে যান তিনি। উপজেলা পর্যায়ের আওয়ামী লীগ নেতাদের ছত্রচ্ছায়ায় স্থানীয় সেটেলমেন্ট ও সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে চাঁদাবাজিসহ প্রভাব বিস্তারের অভিযোগ রয়েছে মনির বালীর বিরুদ্ধে। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট তালুকদার মো. ইউনুস এবং মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাডভোকেট গোলাম আব্বাস চৌধুরী দুলাল দুজনই অকপটে স্বীকার করেছেন আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশের কথা।

*সাবেক এমপি ইউনুস বলেন, যারা সুবিধাবাদী, তারা সব সময়ই সুবিধা নেওয়ার চেষ্টা করে। আওয়ামী লীগে কিছু লোকের অনুপ্রবেশ ঘটলেও দল তাদের ব্যাপারে সজাগ রয়েছে।
গোলাম আব্বাস চৌধুরী বলেন, প্রশাসন, সরকারি চাকুরে, শিক্ষক, চিকিৎসক অনেকেই আওয়ামী লীগ পরিচয় দিয়ে চলতে চান। বিরোধী দলের শক্তিশালী রাজনীতি না থাকায় এমনিতেই নেতা-কর্মীদের মধ্যে গা ছাড়া ভাব। এর ওপর অনুপ্রবেশকারীদের দাপটে নিবেদিত পোড় খাওয়া আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা কোণঠাসা। তাদের হাত থেকে পরীক্ষিতদের রক্ষা করা উচিত।
৪ জুলাই বরিশালে আওয়ামী লীগের বিভাগীয় প্রতিনিধি সভায় জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ বলেন, আওয়ামী লীগে কোনো হাইব্রিড নেই। যদি কেউ থেকেও থাকে তাদের কোনোভাবেই আশ্রয়-প্রশ্রয় দেন না তারা।

*এদিকে বিভাগীয় সদর বরিশালে ২০১৬ সালের পয়লা অক্টোবর আবুল হাসানাত আবদুল্লাহকে সভাপতি ও তালুকদার মো. ইউনুসকে সাধারণ সম্পাদক করে গঠিত হয় জেলা কমিটি। একই বছরের ১৯ অক্টোবর গোলাম আব্বাস চৌধুরী দুলালকে সভাপতি ও এ কে এম জাহাঙ্গীরকে সাধারণ সম্পাদক করে গঠিত হয় মহানগর কমিটি। এ দুই কমিটির তিন বছর মেয়াদ শেষ হওয়ার পথে। কিন্তু দীর্ঘ তিন বছরেও জেলার ১০ উপজেলা ও ৬ পৌর এবং মহানগরীর ৩০টি ওয়ার্ডে কমিটি হালনাগাদ করতে পারেননি তারা।

*জেলায় আগৈলঝাড়া উপজেলা, গৌরনদী পৌরসভা এবং কাজীরহাট থানা কমিটি বাদে ৯ উপজেলা ও ৫ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের কমিটি দীর্ঘদিন ধরে মেয়াদোত্তীর্ণ।
এ বিষয়ে জেলার সাধারণ সম্পাদক তালুকদার মো. ইউনুস বলেন, শোকের মাসের পরপরই সবগুলো ইউনিটের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি সম্মেলনের মাধ্যমে হালনাগাদ করা হবে।

*মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি সাবেক মেয়র শওকত হোসেন হিরণের মৃত্যুর পর তার অনুসারীদের অনেকেই ভিড়েছেন সিটি মেয়র সাদিক আবদুল্লাহর পক্ষে। হিরণপত্নী সাবেক এমপি জেবুন্নেছা আফরোজের বলয়ে কিছু নেতা-কর্মী থাকলেও রাজনীতির মাঠে তার অনুপস্থিতিতে সেই বলয় নিশ্চিহ্নের পথে।
আওয়ামী লীগ করেও যারা সাদিক আবদুল্লাহর আনুগত্য নেননি একটি অংশ এবং বিলুপ্ত হিরণ বলয়ের অনেকে সাম্প্রতিক সময়ে ভিড়েছেন জেলা আওয়ামী লীগ সহসভাপতি পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক শামীমের দিকে।