প্রচ্ছদ আইন-আদালত “১৪ কোম্পানির নিষেধাজ্ঞার ওপর স্থগিতাদেশ: দুধ উৎপাদনে বাধা নেই”

“১৪ কোম্পানির নিষেধাজ্ঞার ওপর স্থগিতাদেশ: দুধ উৎপাদনে বাধা নেই”

16
১৪ কোম্পানির নিষেধাজ্ঞার ওপর স্থগিতাদেশ: দুধ উৎপাদনে বাধা নেই

*বাজারে বিদ্যমান পাস্তুরিত তরল দুধের ১৪ ব্রান্ডের উৎপাদন ও বিক্রিতে হাইকোর্টের দেয়া নিষেধাজ্ঞার ওপর স্থগিতাদেশ দিয়েছে চেম্বার জজ আদালত। এরফলে এসব দুধ উৎপাদন ও বিক্রিতে আইনগত আর কোনও বাধা থাকল না।
বুধবার (৩১ জুলাই) ১১টি ব্রান্ডের নিষেধাজ্ঞার ওপর স্থগিতাদেশ দেয়া হলে আইনজীবীরা এসব কথা বলেন।

*এর আগে মঙ্গলবার (৩০ জুলাই) প্রাণ ও ফার্মফ্রেশ দুধের উৎপাদন এবং বিক্রির নিষেধাজ্ঞা স্থগিত করে আপিল বিভাগের চেম্বার আদালত। তারও আগে সোমবার (২৯ জুলাই) মিল্কভিটার ওপর থাকা নিষেধাজ্ঞা স্থগিত করেছিল একই আদালত। বিচারপতি মো. নূরুজ্জামানের চেম্বার জজ আদালত আদেশগুলো দেয়।
দুধ কোম্পানির পক্ষে চেম্বার আদালতে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। সঙ্গে ছিলেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মুরাদ রেজা।

*বুধবারের ১১টি ও আগের তিনটি মিলে বিএসটিআই অনুমোদিত ১৪টি কোম্পানির সবগুলোকেই পাঁচ সপ্তাহ দুধ উৎপাদন ও বিক্রি বন্ধ রাখতে বলেছিল হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ।
এর আগে সোমবার (২৯ জুলাই) মিল্কভিটার ক্ষেত্রেও হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা চেম্বার আদালত আট সপ্তাহের জন্য স্থগিত করেন।

*মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর উপাদান থাকায় রোববার (২৮ জুলাই) বিএসটিআইয়ের লাইসেন্সধারী ১৪টি কোম্পানির পাস্তুরিত দুধ উৎপাদন ও বিপণন পাঁচ সপ্তাহের জন্য বন্ধের নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট। একই সঙ্গে বাজারে থাকা এসব দুধ কেনা-বেচায় সতর্ক থাকতেও বলেন আদালত। বিচারপতি সৈয়দ রেফাত আহমেদ ও বিচারপতি ইকবাল কবিরের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দিয়েছিলেন।

*গত ১৪ জুলাই (রোববার) এক আদেশে বিএসটিআইয়ের লাইসেন্সধারী সব ব্র্যান্ডের পাস্তুরিত দুধে অ্যান্টিবায়োটিক ও ডিটারজেন্টসহ বিভিন্ন ক্ষতিকর উপাদান আছে কি না, তা এক সপ্তাহের মধ্যে পরীক্ষা করতে চারটি ল্যাবকে নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট।