প্রচ্ছদ রাজনীতি “এরশাদের আসনে জমজমাট লড়াইয়ের ময়দানে যারা”

“এরশাদের আসনে জমজমাট লড়াইয়ের ময়দানে যারা”

25

*সদ্য প্রয়াত সংসদ সদস্য এইচ এম এরশাদের মৃত্যুতে শূন্য ঘোষিত রংপুর-৩ আসনের উপনির্বাচনে অংশ নিচ্ছে কোন কোন রাজনৈতিক দল। মনোনয়নই বা পাচ্ছেন কারা- এ নিয়ে আলোচনা শুরু হয় এরশাদের মৃত্যুর পরপরই। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জাতীয় পার্টির দুর্গ বলে পরিচিত এ আসনে প্রার্থী চূড়ান্ত করতে হিমশিম খাচ্ছে এরশাদের হাতে গড়া এই দলটি। এবার জাপাকে ছাড় দিতে নারাজ ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। আর বিএনপিও ইতিমধ্যে এই উপনির্বাচনে অংশ নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। এ ছাড়া আরও অন্তত ১৫টি রাজনৈতিক দল নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে। সব মিলিয়ে এই নির্বাচনকে ঘিরে সরগরম জাতীয় সংসদের রংপুর-৩ আসন।

*প্রার্থী চূড়ান্তে হিমশিম জাপা: জানা গেছে, পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ চাইছেন এরশাদ-রওশন দম্পতির ছেলে শাদ এরশাদকে মনোনয়ন দিতে। কিন্তু সাদের রংপুরে নিয়মিত যাতায়াত না থাকায় তাকে গ্রহণ করছেন না স্থানীয় জাপা নেতা-কর্মীরা। অনেকে এরশাদের আমেরিকা প্রবাসী ছোট ভাই ড. হুসেইন মুর্শেদের কথা বললেও তিনি কোনো আগ্রহ দেখাননি। এরশাদের আরেক ভাতিজা জাপা থেকে বহিষ্কৃত আসিফ শাহরিয়ার মনোনয়ন চাইলেও রংপুর জেলা জাপার নেতারা তাকে মেনে নিচ্ছেন না। স্থানীয় নেতারা এরশাদ পরিবারের বাইরে রংপুর মহানগর সাধারণ সম্পাদক এস এম ইয়াসিরকে এক নম্বর পছন্দের তালিকায় রেখেছেন।

*ছাড় দিচ্ছে না আ’লীগ: জাতীয় পার্টি আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোটগতভাবে ভোট করায় এইচ এম এরশাদ জোটগত মনোনয়ন পেয়েছিলেন। এই উপনির্বাচনে আর জাপাকে ছাড় দিতে চাইছে না আওয়ামী লীগ। আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও রংপুর মহানগর কমিটির ১ নম্বর সদস্য চৌধুরী খালেকুজ্জামান জানান, অবশ্যই আওয়ামী লীগ প্রার্থী দেবে। তিনি নিজেই মনোনয়নপ্রত্যাশী। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা দেশে ফিরলেই এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। চৌধুরী খালেকুজ্জামান ছাড়াও জেলা আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট রেজাউল ইসলাম রাজু মনোনয়নের জন্য মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন।

*অংশ নেওয়ার ঘোষণা বিএনপির: সোমবার রাতে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সভায় এরশাদের শূন্য আসনে ভোট করার ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি। বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশী যুগ্ম মহাসচিব ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি হাবিবুন নবী খান সোহেল জানান, দল এ আসনে অংশ নেওয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সোহেল ছাড়াও জেলা বিএনপি নেতা মুক্তিযোদ্ধা মোজাফ্ফর হোসেন দল থেকে মনোনয়ন চাইবেন বলে জানা গেছে।

*এ ছাড়াও পিপলস পার্টি অব বাংলাদেশের চেয়ারম্যান রিটা রহমান, ইসলামী আন্দোলনের আমিরুজ্জামান পিয়াল, পিডিপির সাব্বির আহমেদ, বাসদের আনোয়ার হোসেন বাবলু, জাকের পার্টির আলমগীর হোসেন আলম, খেলাফত মজলিসের তৌহিদুর রহমান মন্ডলের নামও প্রার্থী হিসেবে আলোচনায় রয়েছে। এইচ এম এরশাদ ১৪ জুলাই মারা গেলে ১৬ জুলাই আসনটি শূন্য ঘোষণা করে সংসদ সচিবালয়। শূন্য ঘোষণার দিন থেকে পরবর্তী ৯০ দিনের মধ্যে রংপুর-৩ সদর আসনে নির্বাচন সম্পন্ন করবে নির্বাচন কমিশন। আসনটি রংপুর মেট্রোপলিটন সিটি ছাড়াও বেশ কয়েকটি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। ভোটার ৪ লাখ ৪২ হাজার ১৪৯ জন। এর মধ্যে নারী ভোটার ২ লাখ ২০ হাজার ৭১৫ জন এবং পুরুষ ২ লাখ ২১ হাজার ৪৩৪ জন।