প্রচ্ছদ স্পটলাইট “সিনহার পর প্রিয়াকে অ*স্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছে জামায়াত?”

“সিনহার পর প্রিয়াকে অ*স্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছে জামায়াত?”

171
সিনহার পর প্রিয়াকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছে জামায়াত?

নিউইয়র্কে বাংলাদেশের সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার সঙ্গে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে বিতর্কিত বক্তব্য দেওয়া প্রিয়া সাহার বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। যুদ্ধাপরাধের দায়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত মীর কাসেমের ছেলের মধ্যস্থতায় দুজনার মধ্যে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় বলে নিউইয়র্ক থেকে একাধিক দায়িত্বশীল সূত্রে জানা গেছে। তারা দুজনেই একটি নৈশ ভোজে যান। সেখানে তাদের মধ্যে একাধিক বিষয়ে কথা হয়।

এই বৈঠকের আয়োজন করে মীর কাশেমের পুত্র। সূত্রমতে এই বৈঠকে বাংলাদেশ বিরোধী প্রচারণায় প্রিয়া সাহা কীভাবে আরও সক্রিয় হতে পারে এবং সুরেন্দ্র কুমার সিনহা বাংলাদেশে কথিত সংখ্যালঘু নির্যা*তনের কিছু তথ্য উপাত্ত প্রিয়া সাহার কাছে দেন যেগুলো তিনি যেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন মহলে দেন সেগুলোর জন্য সিনহা অনুরোধ করেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, প্রিয়া সাহার এই বক্তব্যের পিছনে জামাতের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে জামাত অন্তত তিনটি লবিস্ট ফার্মকে নিয়োগ করেছে যারা বাংলাদেশ বিরোধী প্রচারণার কাজ করে আসছে। এই তিনটি লবিস্ট ফার্ম কংগ্রেসম্যান, সিনেটর সহ প্রভাবশালী মহলে বাংলাদেশ বিরোধী বক্তব্য এবং বাংলাদেশ বিরোধী নানারকম মনগড়া তথ্য সরবরাহ করছে।

সূত্রমতে, প্রিয়া সাহাকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আনা এবং মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সাক্ষাৎ করানো, তাঁর রাজনৈতিক আশ্রয় প্রক্রিয়া এগুলো সবই করছে জামাতের লবিস্ট ফার্ম তিনটি। প্রিয়া সাহার যাওয়া আসার টিকেট সবই এই তিনটি লবিস্ট ফার্ম থেকে সরবরাহ করা হয়েছে বলে একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রমতে, জামায়াতের মূল লক্ষ হলো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ভারতকে সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষেপিয়ে তোলা এবং সেখানে সংখ্যালঘুর আবেগকে কাজে লাগিয়ে এই কাজটি অনেক সহজ বলে তাঁরা মনে করছে। সেইক্ষেত্রে সুরেন্দ্র কুমার সিনহার পর তাঁরা এখন প্রিয়া সাহাকে অ*স্ত্র হিসেবে ব্যবহার করছে?