প্রচ্ছদ রাজনীতি “এরশাদের শূন্য আসনে সম্ভাব্য প্রার্থীরা *দৌড়ঝাঁপ করছেন যারা”

“এরশাদের শূন্য আসনে সম্ভাব্য প্রার্থীরা *দৌড়ঝাঁপ করছেন যারা”

23

জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মৃত্যুর পর রংপুর-৩ (সদর) আসন শূন্য ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। এরপর থেকেই সম্ভাব্য প্রার্থীরা গণসংযোগ ও প্রচারণা শুরু করেছেন। জাপার একাধিক ও আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী *প্রচারণা শুরু করলেও বিএনপির কেউ এখনও মাঠে নামেননি। তবে বিএনপির একাধিক সূত্র জানিয়েছে, প্রচারণায় না থাকলেও তারা প্রার্থী চূড়ান্ত করে রেখেছে।

রংপুর-৩ আসনে জাপার সম্ভাব্য প্রার্থীর তালিকায় যাদের নাম আলোচনায় এসেছে তারা হলেন— দলের মহানগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক এসএম ইয়াসির, জেলা সভাপতি ফকরুল ইসলাম জাহাঙ্গীর ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক। তবে কানাঘুষা আছে— এ আসনে সাদ এরশাদকে প্রার্থী করতে চান দলের সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ। এদিকে, আসনটিতে আওয়ামী লীগ থেকে প্রার্থী হতে পারেন দলের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য চৌধুরী মো. খালেকুজ্জামান। আর বিএনপি এ নির্বাচনে অংশ নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলে প্রার্থী হতে পারেন মহানগর বিএনপির সভাপতি মোজাফফর হোসেন।

রংপুর মহানগর ও জেলা জাপার নেতাকর্মীদের সঙ্গে আলাপে জানা গেছে, তারা আসনটিতে দলের ত্যাগী কোনও নেতাকে দেখতে চান। তবে সাদ এরশাদকে প্রার্থী করার ব্যাপারে তাদের কোনও আগ্রহ নেই। তাদের ভাষ্য— রংপুর হলো জাপার দুর্গ। ১৯৯১ সালের পর যতবার *জাতীয় সংসদ নির্বাচন হয়েছে এ আসন (সদর) থেকে এরশাদই নির্বাচিত হয়েছেন।
তারা আরও বলছেন, এরইমধ্যে সদর আসনে মনোনয়ন পেতে একাধিক প্রার্থী দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন। তারা নির্বাচনি প্রচারণাও চালাচ্ছেন। কেউ কেউ দলীয় মনোনয়ন পেতে নেতাকর্মীদের ‘ম্যানেজ’ করে গ্রুপ ভারীর করার চেষ্টা করছেন।

নেতাকর্মীরা জানান, ১৯৯১ সালের পর সাদ এরশাদ আর কখনও রংপুরে আসেননি। রংপুরবাসী তো দূরে থাক, তাকে দলের জেলা পর্যায়ের নেতাকর্মীরাও দেখেননি। এছাড়া, জীবিত থাকাকালে এরশাদ নিজেও কখনও সাদকে রংপুরে নিয়ে আসেননি। এমনকি, তিনি সাদ সম্পর্কে কোনোদিন একটা বাক্যও উচ্চারণ করেননি। এদিক থেকে এরিক এরশাদকে বরং সহজে গ্রহণ করবে রংপুরের মানুষ। তাকে অনেকবারই এরশাদ রংপুরে নিয়ে এসেছেন। দলের নেতাকর্মীসহ রংপুরের সাধারণ মানুষের সঙ্গে তাকে বারবার পরিচয়ও করিয়ে দিয়েছেন।

মহানগর জাপার যুগ্ম-সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘তৃণমূল নেতাকর্মীরা চাইছেন, এবার সদর আসনে ত্যাগী ও পরীক্ষিত নেতাদের মধ্য থেকে কাউকে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হোক। এক্ষেত্রে তারা এসএম ইয়াসিরের নামও প্রস্তাব করেন। সবার মতামত নিয়ে যোগ্য ও দলের জন্য নিবেদিতপ্রাণ নেতাকে মনোনয়ন দেওয়ার দাবি আমাদেরও।’

এসব ব্যাপারে মহানগর জাপার সাধারণ সম্পাদক এসএম ইয়াসির জানান, তিনি রংপুরের জনগণের পাশে থেকে সবসময় কাজ করেছেন। দলের জন্য সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছেন। নেতাকর্মীরাও তাকে প্রার্থী হিসেবে দেখতে চাইছেন। তিনি নিজেও নির্বাচনের সব প্রস্তুতি নিয়েছেন। বিভিন্ন পর্যায়ে বৈঠক করছেন এবং নির্বাচনি প্রচারণাও চালাচ্ছেন।

জেলা জাপার ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘১৯৮২ সাল থেকে জাপার সঙ্গে আছি। দলের জন্য *জেল-জুলুম-হুলিয়া সহ্য করেছি। এবারের উপ-নির্বাচনে দলের নেতাকর্মীরা চাইছেন, আমি প্রার্থী হই। সে কারণে সিদ্ধান্ত নিয়েছি, দলের কাছে মনোনয়ন চাইবো। দল মনোনয়ন দিলে আমি নির্বাচন করবো।’

জেলা আওয়ামী লীগের দাবি, রংপুরে আগের মতো আর এরশাদের ‘ক্রেজ’ নেই। এরশাদের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ প্রার্থী দেয়নি বলেই তিনি বারবার জয় পেয়েছেন। এবার তারা (আওয়ামী লীগ) প্রার্থী দেবে এবং তাদের প্রার্থীই জয়ী হবেন।
তৃণমূল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা জানান, রংপুর সদর আসনে তিন বার চৌধুরী খালেকুজ্জামানকে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হয়েছিল। জোটের স্বার্থে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে তিনি প্রতিবারই মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন। এবার মনোনয়ন পাওয়ার একমাত্র হকদার তিনি। রংপুরে আন্দোলন-সংগ্রামেও তিনি আওয়ামী লীগের পক্ষে কাজ করেছেন। তার মতো যোগ্য ব্যক্তির মনোনয়ন পাওয়াই উচিত।

রংপুর জেলা কৃষকলীগের সহ-সভাপতি লিচু মিয়া বলেন, ‘রংপুরের কৃতি সন্তান চৌধুরী খালেকুজ্জামান। আমরা সদর আসনে তাকে প্রার্থী হিসেবে চাই। আশা করি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে মনোনয়ন দেবেন।’
এ ব্যাপারে চৌধুরী খালেকুজ্জামান জানান, তিনি রংপুরে এসে গণসংযোগ শুরু করেছেন। সভা-সমাবেশও করছেন। মনোনয়ন পেলে তিনিই জয়ী হবেন।

অন্যদিকে, রংপুর-৩ আসনে উপ-নির্বাচনে বিএনপি অংশ নেবে বলে দলটির জেলা পর্যায়ের একাধিক নেতা জানিয়েছেন। তারা বলছেন, গোপনে *সম্ভাব্য প্রার্থীও ঠিক করা হয়েছে। মহানগর বিএনপির সভাপতি মোজাফফর হোসেনই প্রার্থী হবেন।
তবে এব্যাপারে জেলা বিএনপির সভাপতি সাইফুল ইসলাম জানান, দল এখনও নির্বাচনে অংশ নেওয়ার কোনও সিদ্ধান্ত দেয়নি। দলের নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করা হবে।