প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয় দুদক চেয়ারম্যানের বক্তব্য ও প্রিয়ার অভিযোগ, সরকারে তোলপাড়

দুদক চেয়ারম্যানের বক্তব্য ও প্রিয়ার অভিযোগ, সরকারে তোলপাড়

141
দুদক চেয়ারম্যানের বক্তব্য ও প্রিয়ার অভিযোগ, সরকারে তোলপাড়

‘সরল বিশ্বাসে কোন অপরাধ সংঘটিত হলে সেটা অপরাধ নয়’ দুদক চেয়ারম্যানে এমন বক্তব্য আর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশের নাগরিক প্রিয়া সাহা’র অভিযোগের বিষয়ে সরকারে তোলপাড় চলছে। ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। দেশের বিভিন্ন পেশার মানুষ দল-মত নির্বিশেষে এসবের প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

১৮ জুলাই (বৃহস্পতিবার) সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত ডিসি সম্মেলনের শেষ দিনের কার্য অধিবেশন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেন, ‘সরল বিশ্বাসে কেউ দুর্নীতি করলে বা অপরাধে জড়ালে সেটা অপরাধ নয়। তবে সেটা সরল বিশ্বাসে সংঘটিত হয়েছে এটা প্রমাণিত হতে হবে।’

আর সম্প্রতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশের নাগরিক প্রিয়া সাহা অভিযোগ করে বলেন, বাংলাদেশে গত কয়েক বছরে ৩ কোটি ৭০ লাখ হিন্দু, বৌদ্ধ ও খৃস্টান গুম হয়েছে। তাদের ঘর-বাড়ি লুট করা হয়েছে। প্রিয়া সাহা দুদকের এক কর্মকর্তার স্ত্রী বলে জানা গেছে। তার দেশের বাড়ি পিরোজপুরে।

এ সব ঘটনায় সরকারে তোলপাড় শুরু হয়েছে। দুদক চেয়ারম্যানের পক্ষে দুদকের সিনিয়র আইনজীবী খোরশেদ আলম খান গতকাল (১৯ জুলাই) সাংবাদিকদের বলেন, “দুদক চেয়ারম্যানের বক্তব্য গণমাধ্যমে ‘মিস কোড’ করা হয়েছে। ব্যক্তি ইকবাল মাহমুদ নন, তিনি তো দুদকের চেয়ারম্যান। তিনি বলেছেন, পেনাল কোডে এটা উল্লেখ আছে। তিনি কি ইমোশনে বা কি প্রশ্নের জবাবে কথাগুলো বলেছেন, সেটা উপলব্ধি করেই লিখতে হবে।”

অপরদিকে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের একজন কর্মকর্তা (যুগ্ম সচিব) এই প্রতিবেদককে বলেন, “সরল বিশ্বাসে কখনোই অপরাধ সংঘটিত হয় না। মানুষ প্রতারিত হতে পারে। অর্থ আত্মসাৎ হতে পারে। অপরাধ সংঘটিত হয় পরিকল্পনা অনুযায়ী। কখনোই সরল বিশ্বাসে অপরাধ সংঘটিত হতে পারে না।”

বিষয়টি নিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গতকাল বলেছেন, কেন দুদক চেয়ারম্যান এমন বক্তব্য দিয়েছেন, তা তিনিই বলতে পারবেন। তবে তার বিষয়টি পরিষ্কার করা উচিত।

অপর দিকে প্রিয়া সাহার মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাছে দেয়া অভিযোগের বিষয়ে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, প্রিয়া সাহা রাষ্ট্রদ্রোহিতার অপরাধ করেছেন।

পাশাপাশি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালও বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যেই তদন্ত তদারকি শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন। সরকারের ভেতরে সাম্প্রতিক সময়ের এ দুটি ঘটনা নিয়ে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। সচিবালয়ে কর্মরত একাধিক কর্মকর্তা এর সমালোচনা করে বলেছেন, দুদক চেয়ারম্যানের পদটি গুরুত্বপূর্ণ একটি পদ। কথা বলার ক্ষেত্রে অবশ্যই সকলকে দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেয়া বাঞ্ছনীয়।

সাম্প্রতিক সময়ের এ দুটি বিষয় নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন সর্বস্তরের মানুষ। দুদক চেয়ারম্যানের বক্তব্যের সমালোচনা করেছেন। আর প্রিয়া সাহার মিথ্যা তথ্য উপস্থাপন করে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করার প্রতিবাদ জানিয়ে এই নারীর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলার দাবি জানিয়েছেন।