প্রচ্ছদ মুক্ত মতামত কোরআনের আলোকে মহাবিশ্ব সৃষ্টির রহস্য প্রসঙ্গ

কোরআনের আলোকে মহাবিশ্ব সৃষ্টির রহস্য প্রসঙ্গ

কায়সার আহমেদ

31
কোরআনের আলোকে মহাবিশ্ব সৃষ্টির রহস্য প্রসঙ্গ

তিনিই সে সত্ত্বা যিনি সৃষ্টি করেছেন তোমাদের জন্য যা কিছু জমিনে রয়েছে সে সমস্ত। তারপর তিনি মনোসংযোগ করেছেন আকাশের প্রতি। বস্তুতঃ তিনি তৈরী করেছেন সাত আসমান। আর আল্লাহ সর্ববিষয়ে অববহিত। (সূরা বাকারা ২:২৯)।

বিজ্ঞান বলছে মহাবিশ্ব সৃষ্টি হয়েছে ১৩.৮ বিলিয়ন বছর পূর্বে। এরপরে সূর্য এবং পরে পৃথিবী তৈরি হয়েছে প্রায় ৪ বিলিয়ন বছর পূর্বে। এইভাবে মহাবিশ্বে প্রতিনিয়ত লক্ষ হাজার কোটি নতুন গ্রহ-নক্ষত্রের জন্ম হচ্ছে এবং এটি একটি চলমান প্রক্রিয়া। কিন্তু আল্লাহ্পাক বলছেন ভিন্ন কথা। তিনি প্রথমে জমিনের উপরের সবকিছু সৃষ্টি করেছেন, ‘যা আমাদের জন্য দরকারি।’ এরপরে তিনি আকাশের বস্তুসমূহ এবং সাত আসমান তৈরির দিকে ‘মনোযোগ’ দিয়েছেন। কোরানের অন্যান্য আয়াতেও আল্লাহ আকাশকে পৃথিবীর ‘শক্ত ছাদ’ হিসাবে তৈরির কথা এসেছে। কেয়ামতের সময় আকাশ ভেঙে টুকরো টুকরো হয়ে জমিনে পড়ার কথাও কোরানে আছে। আবার প্রতিটি আসমান পাড়ি দিতে পাঁচশো বছরের দূরত্ব অতিক্রম করার কথা বোখারির ‘সহীহ’ হাদিসও আছে।

আকাশ সীসা দিয়ে তৈরি, নাকি চাইনিজ দুইনম্বরি রড সিমেন্ট দিয়ে তৈরি, সেদিকে যাচ্ছি না। কারণ, আকাশের শেষ সীমার নাগাল বিজ্ঞান এখনো পায়নি। তবে পাঁচশো বছরে প্রতিটি আসমান পাড়ি দেয়ার ‘তথ্য’, সেটা কেমনে কি? বৈজ্ঞানিক মুমিন ভাইদের ব্যাখ্যা কাম্য। কারণ, সবথেকে কাছের গ্যালাক্সি এন্ড্রোমিডায় যেতে সময় লাগবে ১.৫ মিলিয়ন আলোকবর্ষ। এইরকম প্রায় ২০০ বিলিয়ন গ্যালাক্সি মহাবিশ্বে আবিষ্কৃত হয়েছে এবং প্রতিদিনই নতুন গ্যালাক্সির সন্ধান পাওয়া যাচ্ছে।

কোনো ঘর বা দালান-কোটা তৈরিতে সাধারণত আমরা সর্বশেষে ছাদ যুক্ত করি। কোরানের বর্ণনায়, পৃথিবী (জমিন) অনেকটা ঘরের মতো। আল্লাহপাক প্রথমে সেই ঘর (জমিন) তৈরি করেছেন, পরে ছাদ (আসমান) তৈরি করে পৃথিবীর উপর ‘ঢাকনা’ বসিয়েছেন। আফসোস, মূর্খ নাস্তিকেরা মহা প্রকৌশলী আল্লাহর মহাবিশ্ব সৃষ্টি সম্পর্কিত এসব ‘ফর্মুলা’ নিয়ে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করে। আর ইহুদি নাসারাদের আবিষ্কৃত ‘নাপাক’ বিজ্ঞানের কথা বলে মুমিনগণের ঈমানকে ক্ষতিগ্রস্থ করতে চেষ্টা চালায়।

……………………………………………………………………………………………..

মুক্ত মতামত বিভাগে প্রকাশিত লেখার বিষয়, মতামত ও মন্তব্য লেখকের একান্ত নিজস্ব। shompadak.com-এর সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে যার মিল আছে এমন সিদ্ধান্তে আসার কোন যৌক্তিকতা সর্বক্ষেত্রে নেই। লেখকের মতামত, বক্তব্যের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে shompadak.com আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় গ্রহণ করে না।