প্রচ্ছদ রাজনীতি খালেদা জিয়াকে বিদেশ যেতে দিবে না সরকার

খালেদা জিয়াকে বিদেশ যেতে দিবে না সরকার

190

বেগম খালেদা জিয়া প্যারোল বা জামিন নিয়ে লন্ডনে যেতে চান এবং সেখানে তিনি দীর্ঘমেয়াদী চিকিৎসা নিতে চান। এরকম একটি দরকষাকষি চলছে সরকারের সঙ্গে। কিন্তু সরকার তাঁর ব্যাপারে সুস্পষ্ট কতগুলো নীতি গ্রহণ করেছে।

১. বেগম খালেদা জিয়াকে কোনো অবস্থাতেই জামিনে মুক্তি দেয়া হবে না। খালেদা জিয়া যদি চান তাহলে প্যারোলে যেতে হবে। সরকারের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, বেগম খালেদা জিয়া যে দুটি মামলায় দণ্ডিত হয়েছে সে দুটি মামলায় এখনও তাঁর জামিন হয়নি। এ দুটি মামলায় তাঁর জামিন পাওয়া প্রায় দুঃসাধ্য। কারণ জিয়া এতিমখানা মামলায় হাইকোর্ট তাঁর দন্ড বাড়িয়ে দশ বছর করেছে। কাজেই আপিল বিভাগ ছাড়া তাঁর জামিন পাওয়ার কোনো সম্ভাবণা নেই। জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বেগম জিয়ার সাত বছরের দণ্ড হয়েছে। সেই মামলায় খালেদা জিয়া এখনও পর্যন্ত জামিনের আবেদন করেননি। জামিনের আবেদন করলে পরে শুনানি করে বিবেচনা করা হবে।

সরকারের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, এ দুটি ছাড়াও আরও বেশ কয়েকটি মামলা পক্রিয়াধীন রয়েছে। বিশেষ করে ২০১৪ এবং ১৫ সালে যে অগ্নিসংযোগ, সন্ত্রাস, গাড়ি ভাঙচুর ও মানুষকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনা ঘটেছে সেগুলোর সঙ্গে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে খালেদা জিয়া জড়িত। হুকুমের আসামী হিসেবে তিনি সবগুলো মামলাতেই আছেন। যখনই মামলার চার্জশীট চূড়ান্ত করা হবে তখনই তিনি এসব মামলায় তালিকাভুক্ত আসামী হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হবেন বলে সরকারের একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে।

কাজেই সরকার কোনো অবস্থাতেই তাঁকে জামিনে মুক্তি দেয়ার চিন্তা করছে না বলে জানা গেছে। অন্যদিকে খালেদা জিয়ার পরিবার এবং খালেদা জিয়া নিজে চাইছেন, সরকার যদি জামিনে বিরোধীতা না করে তাহলে জামিন পেয়ে বের হয়ে তিনি উন্নত চিকিৎসা করবেন। এ ব্যাপারে সরকারের সঙ্গে বেগম খালেদা জিয়ার কোনো মীমাংসা হয়নি।

২. বেগম খালেদা জিয়া চাইছেন জামিন পেয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য লন্ডনে যাবেন। এ ব্যাপারেও সরকারের তীব্র আপত্তি রয়েছে। সরকার কোন অবস্থাতেই তাকে দেশ থেকে বের হতে দিবে না বলে জানা গেছে। কারণ সরকারের একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র বলছে, বেগম খালেদা জিয়া বিদেশে গেলে তিনি সহজেই রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড পরিচালনা করতে পারবেন। দেশ কিংবা রাষ্ট্র বিরোধী তৎপরতায় যুক্ত হতে পারবেন।

যেমন তার পুত্র লন্ডন থেকে কার্যক্রম চালাচ্ছেন। এজন্য খালেদা জিয়াকে বিদেশে পাঠানো কোনমতে বিবেচনাতেই নিচ্ছেন না সরকার। বিএনপি এবং বেগম খালেদা জিয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, খালেদা জিয়াকে জামিন দিয়ে বিদেশে পাঠালেই সংসদ সদস্যরা শপথ গ্রহণ করবেন। সংসদের কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করবেন। এ ব্যাপারে সরকার অনমনীয় কঠোর অবস্থা গ্রহণ করেছে।

সরকারের একটি দায়িত্বশীল ব্যক্তি বলেছেন, বিএনপি ছয়জন সদস্য যদি সংসদে নাও আসেন তাতে সরকারের কিছু যায় আসে না। আমরা সংসদকে অংশগ্রহণমূলক ও প্রাণবন্ত করার জন্যই চেয়েছিলাম বিএনপি সংসদে আসুক। কিন্তু তাই বলে একজন চিহ্নিত এবং উচ্চ আদালতে দণ্ডিত ব্যাক্তির মুক্তি বিনিময়ে বিএনপিকে সংসদে আনার কোন অভিপ্রায় সরকারের নেই।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, সরকার মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ছাড়া অন্য ৫ জন নির্বাচিত সদস্যর সঙ্গে যোগাযোগ করছে। তাদেরকে সংসদে আনার জন্য জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। বিএনপির মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সংসদে না আসতে পারলেও অন্যরা সংসদে আসবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।

এই প্রেক্ষাপটে বেগম খালেদা জিয়ার প্যারোল বা জামিন বা বিদেশ যাওয়া অনিশ্চিত হয়ে পরেছে। যদিও বিএনপির একাধিক নেতা বলছেন, বেগম খালেদা জিয়া ২৫ বা ২৬ তারিখে লন্ডনে যাবেন। কারণ ৩০ এপ্রিল বিএনপির নির্বাচিত সংসদ সদস্যদেরকে শপথ গ্রহণ করতে হবে। কিন্তু সরকারের দায়িত্বশীল সূত্র বলছে যে, বেগম খালেদা জিয়াকে প্যারোলের জন্য আবেদন করতে হবে। সেই আবেদনে তাকে দণ্ড স্বীকার করতে হবে।

উন্নত চিকিৎসার জন্য দেশে থাকবেন। মানবিক কারণে তার প্যারোল চাইতে হবে। অন্যথায় সরকার এই প্যারোল কোন অবস্থাতেই বিবেচনা করবে না বলে সরকারের দায়িত্বশীল সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে। এ অবস্থায় বেগম খালেদা জিয়ার জামিন বা প্যারোল অনিশ্চিত হয়ে পরেছে। কার্যত যে সমঝোতার উদ্যোগ, তা মুখ থুবড়ে পড়েছে।