প্রচ্ছদ স্বাস্থ্য খালেদার জটিল রোগ নেই, চিকিৎসা বিএসএমএমইউ’তেই সম্ভব

খালেদার জটিল রোগ নেই, চিকিৎসা বিএসএমএমইউ’তেই সম্ভব

41
খালেদার জটিল রোগ নেই, চিকিৎসা বিএসএমএমইউ’তেই সম্ভব

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ)-এর পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এবিএম মাহবুবুল আলম বলেছেন, খালেদা জিয়ার পায়ে ও জয়েন্টে ব্যথা আছে। তার ডায়াবেটিস স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি, শরীর দুর্বল। তার ঘুম কম হয়, খাবারের রুচি কমে গেছে। উনি একা হাঁটাচলা করতে পারছেন না।

সোমবার (১ এপ্রিল) খালেদা জিয়াকে দেখার পর সাংবাদিকদের এসব কথা জানান বিএসএমএমইউ’র পরিচালক।

তিনি বলেন, উনার (খালেদা জিয়া) এখন যে সমস্যা, তা কোনও জটিল সমস্যা না। বিএসএমএমইউ’তে চিকিৎসা সম্ভব না— এমন কিছু আমরা পাইনি। আমাদের বিশেষায়িত হাসপাতাল। খালেদা জিয়ার যা সমস্যা রয়েছে, তার চিকিৎসা করা এখানে সম্ভব।

এক প্রশ্নের জবাবে ব্রিগেডিয়ার আলম বলেন, আজকে আমরা তাকে যেভাবে দেখেছি, তাতে বর্তমান চিকিৎসক বোর্ডের প্রতি তার আস্থা রয়েছে। যখন মেডিক্যাল বোর্ডের চিকিৎসকরা তাকে দেখতে যান, তখন উনি বসে তাদের সঙ্গে কথা বলেছেন এবং আমাদের কাছে মনে হয়েছে, বোর্ডের ব্যাপারে তিনি সন্তুষ্ট। আজকে তাকে চিকিৎসকরা ওষুধ দিয়েছেন। এখন তাকে এই ওষুধগুলো মেনে খেতে হবে।

বিএসএমএমইউ’র পরিচালক বলেন, খালেদা জিয়া যদি মনে করেন যে, তিনি চলে যাবেন, কমফোর্ট ফিল করছেন না, তাহলে তিনি চলে যেতে পারেন। তিনি যদি থাকেন (হাসপাতালে) তাহলে প্রতিদিন একজন চিকিৎসক তাকে ভিজিট করবেন। উনি এখন ৬২১ নম্বর কেবিনে আছেন। আর তার সঙ্গে যারা রয়েছেন, তাদেরকে ৬২২ নম্বর কেবিনে থাকার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এবিএম মাহবুবুল আলম আরও জানান, গত ২৮ মার্চ খালেদা জিয়ার জন্য একটি মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করা হয়। এই বোর্ডের প্রধান হলেন ডা. জিলন মি্ঞা। বোর্ডের সদস্যরা হলেন— ডা. সৈয়দ আতিকুল হক, ডা. তানজিমা পারভিন, ডা. বদরুন্নেসা আহমেদ, ডা. চৌধুরী ইকবাল মাহামুদ। এছাড়া, ডা. শামিম আহমেদ এবং ডা. মামুন মেডিক্যাল বোর্ডকে সহযোগিতা করছেন।

এর আগে, সোমবার বেলা সোয়া ১২টার সময় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে কারাগার থেকে চিকিৎসার জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) আনা হয়।

এদিন সকালে খালেদা জিয়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসা নিতে রাজি হন। এরপর খালেদা জিয়ার ব্যবহার্য নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র হাসপাতালে পাঠিয়ে দেওয়া হয় বলে জানান ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার মাহবুবুল ইসলাম।

গত মাসের শুরুর দিকেও খালেদা জিয়াকে একবার বিএসএমএমইউয়ে নেয়ার কথা উঠেছিল। তবে খালেদা জিয়া রাজি না হওয়ায় তাকে শেষ পর্যন্ত সেবার হাসপাতালে নেয়া হয়নি।

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড ও আর্থিক জরিমানা করা হয়। ওই রায় ঘোষণার পরপরই খালেদা জিয়াকে পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখা হয়। বিএসএমএমইউতে স্থানান্তরের আগে তিনি সেখানেই ছিলেন।