প্রচ্ছদ রাজনীতি আনকোরা মন্ত্রীদের উপর ছড়ি ঘোরাচ্ছেন আমলারা!

আনকোরা মন্ত্রীদের উপর ছড়ি ঘোরাচ্ছেন আমলারা!

816
আনকোরা মন্ত্রীদের উপর ছড়ি ঘোরাচ্ছেন আমলারা!

টানা তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আওয়ামী লীগ। কিন্তু তৃতীয় মেয়াদের শুরুতেই রাজনীতিবিদদের সঙ্গে দ্বন্দ্ব শুরু হয়েছে প্রশাসনের। প্রথমে এটা নীরব ছিলো, দিন যতই যাচ্ছে আমলাদের সঙ্গে রাজনীতিকদের বিরোধ প্রকাশ্য হচ্ছে। আওয়ামী লীগের একাধিক শীর্ষ নেতা এখন প্রকাশ্যে আমলাদের খরবদারি এবং কর্তৃত্বের সমালোচনা করছেন।

সর্বশেষ আমলাতন্ত্রের কঠোর সমালোচনা করেছেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিম। আমলাদের তিনি ‘ফ্রাঙ্কেনস্টাইন’ এর সঙ্গে তুলনা করেন। এর আগে আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব উল আলম হানিফ আমলাতন্ত্রের কঠোর সমালোচনা করেছিলেন।

তিনি বলেছিলেন, ‘নিরাপদ সড়কের জন্য প্রশাসনের ব্যর্থতার দায় আওয়ামী লীগ নেবে না।’ আমলাদের বিরুদ্ধে সবার আগে মুখ খুলেছিলেন শামীম ওসমান। নারায়ণগঞ্জে এক সমাবেশে তিনি বলেছিলেন, ‘সরকারি অনেক কর্মকর্তা আজকাল রাজনীতি শেখায়।’ এরা মুখ খুলেছেন, কিন্তু অনেক ব্যক্তিগত আলাপচারিতায় আমলাদের বাড়াবাড়ি এবং খবরদারিতে ক্ষুব্ধ।

৭ জানুয়ারি নতুন মন্ত্রিসভা গঠিত হওয়ার পর থেকে সরকারের আমলাদের দৌরাত্ম্য বেড়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। নতুন মন্ত্রিসভায় অধিকাংশই নতুন এবং আনকোরা মন্ত্রী হওয়ায় অনেক মন্ত্রণালয়েই আমলারা ছড়ি ঘোরাচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। একটি মন্ত্রণালয়ে সচিব তার মন্ত্রীকে শিখিয়েছেন কীভাবে কাজ করলে প্রধানমন্ত্রী সন্তুষ্ট থাকবেন। একাধিক সূত্র বলছে, সচিবদের মধ্যে একটি নিজস্ব নেটওয়ার্ক তৈরি হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অনুশাসনের ভিত্তিতে তারা কাজ করছেন। মন্ত্রণালয়ে মন্ত্রীদের ক্ষমতা খর্ব হয়েছে বলেও অনেকে মনে করেন।

আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় একজন নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, ‘আমলারা প্রশাসনের কাজ দেখভাল করুক আপত্তি নেই। কিন্তু রাজনীতির মধ্যে যদি তারা নাক গলায় তাহলে তো ভীষণ বিপদ।’ তিনি বলেন, ‘ইদানিং কিছু পদস্থ আমলা রাজনীতিবিদদের উপদেশ দেন, কী করতে হবে না হবে সে ব্যাপারে পরামর্শ দেন। এটা তাদের কাজ নয়।’

আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা বলছেন, ‘প্রশাসনিক ব্যর্থতার জন্যেই সড়কে শৃঙ্খলা ফিরছে না। মাদক নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না।’ আওয়ামী লীগের একজন প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেছেন, ‘এক শ্রেণীর আমলা এখন সরকারের নীতিনির্ধারক হয়ে গেছে। এই অতি উৎসাহীদের হাত থেকে সরকার এবং আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে।’

অবশ্য আমলাদের বিরুদ্ধে কিছু রাজনীতিবিদদের ঢালাও সমালোচনাকে অনাকাঙ্ক্ষিত বলে মন্তব্য করেছেন প্রশাসনের সিনিয়র কিছু কর্মকর্তা। এক সিনিয়র কর্মকর্তা বলেন, ‘এখন যারা বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিবের দায়িত্ব পালন করছেন তারা গত দশবছর ধরে এই সরকারের সঙ্গে কাজ করছে। তাই সরকারের চাওয়া এবং অগ্রাধিকারগুলো তারা ভালো জানেন।’

অন্য একজন সচিব বলেছেন, ‘আমরা এই মাটিরই সন্তান। জনবিচ্ছিন্ন কিছু নই। তাই সরকারের ভালোভাবে চলার ব্যাপারে কিছু পরামর্শ আমরা দিতেই পারি।’ কোনো কোনো আমলা মনে করছেন, ‘কেউ কেউ মন্ত্রী হতে না পেরে আমলাদের উপর বেজায় চটেছেন। এজন্যই তারা এসব কথা বলছেন।’

তারা মনে করেন, মন্ত্রীদের সঙ্গে সচিবদের কোনো বিরোধ নেই বরং অধিকাংশ মন্ত্রণালয়ে ভালো টিমওয়ার্ক তৈরি হয়েছে। তবে যে যাই বলুক, তৃতীয় মেয়াদে সরকার যে বেশিমাত্রায় আমলা নির্ভর হয়ে পড়েছে, তা বোঝার জন্য বিশেষজ্ঞ হওয়ার প্রয়োজন নেই।