প্রচ্ছদ স্পটলাইট ক্রাইস্টচার্চে হামলা; স্বামীকে খুঁজতে গিয়ে নিহত সিলেটের হুসনে আরা

ক্রাইস্টচার্চে হামলা; স্বামীকে খুঁজতে গিয়ে নিহত সিলেটের হুসনে আরা

66
ক্রাইস্টচার্চে হামলা; স্বামীকে খুঁজতে গিয়ে নিহত সিলেটের হুসনে আরা

অসুস্থ স্বামীকে মসজিদে খুঁজতে গিয়ে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ মসজিদে প্রাণ হারিয়েছেন সিলেটের হুসনে আরা পরাভীন (৪২)। সন্ত্রাসীদের গুলিতে তিনি নিহত হলেও অন্যদের সহযোগিতায় বেঁচে গেছেন তার প্যারালাইজড স্বামী ফরিদ উদ্দিন। হুসনে আরা নিহতের খবরে সিলেটে তার গ্রামের বাড়িতে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

নিহত হুসনে আরা সিলেটের গোলাপগঞ্জ উপজেলার জাঙ্গালহাটা গ্রামের মৃত নূর উদ্দিনের মেয়ে ও একই জেলার বিশ্বনাথ উপজেলার চকগ্রামের ফরিদ উদ্দিনের স্ত্রী। হুসনে আরা পারভীন দম্পতি প্রায় ২০ বছর আগে নিউজিল্যান্ড পাড়ি জমিয়েছিলেন। তিন বোন দুই ভাইয়ের মধ্যে হুসনে আরা এবং তার এক বোন ও এক ভাই নিউজিল্যান্ডে থাকতেন। এর মধ্যে এক বছর আগে বড় ভাই সেখানেই মারা যান। হুসনে আরা পারভীনের একমাত্র মেয়েও নিউজিল্যান্ডে বসবাস করেন।

নিউজিল্যান্ডের আত্মীয় স্বজনের বরাত দিয়ে সিলেটে অবস্থানরত হুসনে আরার চাচাতো ভাই এইচ আর শাকিল জানান, ‘নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ এলাকায় নারী ও পুরুষের জন্য পাশাপাশি আলাদা মসজিদ রয়েছে। হামলার প্রায় আধাঘণ্টা আগে হুসনে আরা তার স্বামীকে হুইল চেয়ারে করে পুরুষদের মসজিদে রেখে তিনি নারীদের মসজিদে নামাজ পড়তে যান। এর কিছুক্ষণ পর পুরুষদের মসজিদে গোলাগুলির শব্দ শুনে হুসনে আরা তার স্বামীকে খুঁজতে পুরুষ মসজিদের দিকে যান। এসময় সন্ত্রাসীরা তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়লে ঘটনাস্থলেই তিনি নিহত হন।

শাকিল আরও জানান, গোলাগুলি শুরুর পরই কয়েকজন মুসল্লি ফরিদ উদ্দিনকে হুইল চেয়ারে করে মসজিদ থেকে বের করে নিলে তিনি প্রাণে রক্ষা পান। বর্তমানে তিনি ক্রাইস্টচার্চ এলাকায় তার বাসায় আছেন। তবে তিনি মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ১৯৯৪ সালে হুসনে আরা পারভীন ও ফরিদ উদ্দিনের বিয়ে হয়। এর কয়েক বছর পর তারা নিউজিল্যান্ড চলে যান। সর্বশেষ ২০০৯ সালে তারা বাংলাদেশে এসেছিলেন। এই দম্পত্তির ১৮ বছর বয়সী এক কন্যা সন্তান রয়েছে। গত প্রায় ৮ বছর আগে এক দুর্ঘটনায় প্যারালাইসড হয়ে যান হুসনে আরা পারভীনের স্বামী ফরিদ উদ্দিন। হুসনে আরা সেখানে একটি কোম্পানীতে চাকুরি করতেন।