প্রচ্ছদ বাংলাদেশ জাতীয় কোরআন-হাদিসের ভিত্তিতে রাষ্ট্র ব্যবস্থা চায় সরকার: গণপূর্তমন্ত্রী

কোরআন-হাদিসের ভিত্তিতে রাষ্ট্র ব্যবস্থা চায় সরকার: গণপূর্তমন্ত্রী

90
কোরআন-হাদিসের ভিত্তিতে রাষ্ট্র ব্যবস্থা চায় সরকার: গণপূর্তমন্ত্রী

মন্ত্রী বলেন, ঘুষ-দুর্নীতি না করলে, ধর্ষণ, সন্ত্রাসবাদ-মানুষ হত্যা না করলে ইসলামই পারে সারা দুনিায়ায় শান্তি এনে দিতে।

বর্তমান সরকারকে ইসলাম বান্ধব উল্লেখ করে গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শ ম রেজাউল করীম বলেছেন, যারা মাদরাসায় পড়ছেন ও ইসলামী শিক্ষায় শিক্ষিত, তাদের পেছনে রেখে এ দেশ চলতে পারে না।

মন্ত্রী বলেন,‘বর্তমান সরকার ইসলামী মুল্যবোধ ও কোরআন হাদিসের ভিত্তিতে রাজনীতি এবং রাষ্ট্র ব্যবস্থা পরিচালিত হোক সেটা চায়। কোরআন-হাদিসের ভিত্তিতে রাষ্ট্র পরিচালিত হলে হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টান তাদেরও কোনো ক্ষতি নেই।’

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে পিরোজপুরের নেছারাবাদের ছারছীনা দরবার শরীফের মাহফিলে মন্ত্রী এসব মন্তব্য করেন।

রেজাউল করীম আরও বলেন, ‘বর্তমান প্রধানমন্ত্রীও ইসলাম বান্ধব। তাই তিনি কওমী মাদ্রাসা শিক্ষার্থীদের এমএ পাসের সমমান মর্যাদা দিয়েছেন। বিভিন্ন মহল থেকে এর সমালোচনা করা হলেও, তিনি সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।’

মন্ত্রী প্রশ্ন রেখে বলেন, ‘মাদ্রাসায় যারা পড়ালেখা করে তারা কি অন্ধকারে পড়ে থাকবে। তারা কি ডিসি-এসপি হতে পারবে না, কলেজ-ইউনিভার্সিটির প্রফেসর হতে পারবে না।’

ইসলাম বিষয়ে শিক্ষা গ্রহণকারীদের সরকারের বিভিন্ন উচ্চ পর্যায়ে চাকরি পাওয়ার অধিকার আছেও বলে জানান মন্ত্রী।

তিনি বলেন, বর্তমান সরকার ৬০০ মাদ্রাসায় ভবন করে দিয়েছে। এছাড়া প্রতিটি উপজেলায় একটি করে মডেল মসজিদ তৈরি করছে, যা বিগত দিনে কোনো সরকার করেনি।

শ ম রেজাউল করীম বলেন, ‘যারা ইসলামের নামে সন্ত্রাস কায়েম করে, মানুষ পুড়িয়ে মারে, জীবন্ত মানুষকে হত্যা করে তারা ইসলামী হতে পারে না। বাংলাদেশে চলন্ত বাসে পেট্রোল ঢেলে মানুষকে ‍পুড়িয়ে মারে, এটা নাকি কারো কারো ইসলাম। এরা ইসলামি হতে পারে না।’

এসময় তিনি বলেন, ‘জামায়াতে ইসলাম নামে একটি প্রতিষ্ঠান আছে, (পাশে বসা থাকা ছারছীনা দরবার শরীফের পীর শাহ মোহাম্মদ মোহেব্বুল্লাহ’র দিকে হাত বাড়িয়ে বলেন) আমি হুজুরের সাথে কথা বলেছি, তিনি বলেছেন (পীর) ওদের ইসলাম (জামায়াত) কোরআন-সুন্নাহর ইসলাম না।’

মন্ত্রী বলেন, ঘুষ-দুর্নীতি না করলে, ধর্ষণ, সন্ত্রাসবাদ-মানুষ হত্যা না করলে ইসলামই পারে সারা দুনিায়ায় শান্তি এনে দিতে।