প্রচ্ছদ রাজনীতি ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে বিএনপিতে মতবিরোধ তুঙ্গে

ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে বিএনপিতে মতবিরোধ তুঙ্গে

148
ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে বিএনপিতে মতবিরোধ তুঙ্গে

নির্বাচন পরবর্তী কর্মসূচি নির্ধারণের লক্ষ্যে গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে ড. কামাল হোসেনের বেইলি রোডের বাসায় বৈঠকে বসেন ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষনেতারা।

বৈঠকে বিএনপি থেকে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ছাড়া অন্য কোন নেতা যোগদান করেননি। বৈঠকে যাওয়ার জন্য বিএনপির একাধিক নেতাকে অনুরোধ জানানো হলেও দলটির কোন নেতাই মীর্জা ফখরুলের সঙ্গ দিতে রাজি হননি।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের বৃহত্তম দল হলো বিএনপি। নির্বাচনের পর থেকেই বিএনপির শীর্ষ নেতাদের অনেকেই ঐক্যফ্রন্টের ভূমিকা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করছেন। বিশেষ করে ড. কামাল হোসেনের ভূমিকা নিয়ে বিএনপির মধ্যে খোলামেলা আলোচনা হচ্ছে। তারা মনে করছেন যে, বিদেশী কোন রাষ্ট্রের পক্ষে এবং আওয়ামী লীগের পক্ষে ড. কামাল হোসেন কাজ করছেন। বিএনপিকে নির্বাচনে নিয়ে এসে বর্তমান সরকারকে বৈধতা দেওয়াই ছিল ড. কামাল হোসেনের মূল লক্ষ্য।

এটা নিয়ে ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ প্রকাশ্যেই বক্তব্য রেখেছেন। বিএনপির অন্য একজন শীর্ষ নেতা মির্জা আব্বাস ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সম্পর্ক না রাখার জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে দলের মহাসচিবকে অনুরোধ জানিয়েছেন। অন্যান্য নেতারাও ঐক্যফ্রন্টের ব্যাপারে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন।

শেষ পর্যন্ত বিএনপির দুইজন শীর্ষ নেতা ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে যোগাযোগ রাখেন। একজন হলেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং অন্যজন হলেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। কিন্তু বিএনপির তৃণমূল এবং দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া তৈরির প্রেক্ষিতে নজরুল ইসলাম খানও এখন ঐক্যফ্রন্টের বৈঠকগুলো এড়িয়ে চলছেন। এখন একমাত্র বিএনপির মহাসচিবই ঐক্যফ্রন্টের সঙ্গে সম্পর্ক রক্ষা করছেন।

বিএনপির একজন নেতা বলেছেন যে, ঐক্যফ্রন্টের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য বার বার আমরা নির্বাহী কমিটির বৈঠকের আহ্বান জানাচ্ছি। কিন্তু মহাসচিব আমাদের কথা শুনছেন না।

বিএনপির আরেকজন নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, ঐক্যফ্রন্ট হয়তো এখন যে কর্মকাণ্ডগুলো করছে তা হলো বিএনপির যে গুটিকয়েকজন নির্বাচিত হয়েছেন তাদেরকে সংসদে নিয়ে যাওয়ার তৎপরতা।

ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে এই বিরোধ শেষপর্যন্ত মির্জা ফখরুলের ভাগ্যে কী নিয়ে আসে সেটাই এখন দেখার বিষয়।

সম্পাদক/এসটি