প্রচ্ছদ খেলা ক্রিকেট ক্রিকেটার মাশরাফির বার্ষিক আয় ৪ কোটি ৮৪ লাখ টাকা

ক্রিকেটার মাশরাফির বার্ষিক আয় ৪ কোটি ৮৪ লাখ টাকা

23
ক্রিকেটার মাশরাফির বার্ষিক আয় ৪ কোটি ৮৪ লাখ টাকা

জাতীয় সংসদ নির্বাচনে উপলক্ষে নড়াইল-২ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী জাতীয় ক্রিকেট দলের সফল অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজার বার্ষিক আয় ৪ কোটি ৮৪ লাখ ৪৮ হাজার টাকা।

নড়াইল জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে মনোনয়নপত্রের সঙ্গে জমা দেওয়া মাশরাফির হলফনামা থেকে এ তথ্য পাওয়া গিয়েছে।

হলফবামা অনুযায়ী মাশরাফি বিন মর্তুজা ক্রিকেটার হলেও কৃষিখাত থেকে তার বছরে আয় ৫ লাখ ২০ হাজার টাকা। বিভিন্ন ব্যবসা থেকে বছরে ৭ লাখ ২০ হাজার টাকা, চাকরি থেকে ৩ কোটি ১৭ লাখ ৪ হাজার টাকা এবং অন্যান্য বিভিন্ন খাত থেকে ১ কোটি ৫৫ লাখ ৪ হাজার ৭০০ টাকা আয় করেন তিনি।

নড়াইল-২ আসনে আওয়ামী লীগের নৌকা মার্কার প্রার্থী হিসেবে মাশরাফির মনোনয়ন বৈধতা পেয়েছে।

নড়াইল-২ আসন নড়াইল পৌরসভা, সদর উপজেলার ৮টি ইউনিয়ন এবং লোহাগড়া পৌরসভা ও লোহাগড়া উপজেলার ১২টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত। এ আসনে বর্তমানে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ১৭ হাজার ৭৮২ জন। পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৫৭ হাজার ১০৫জন এবং নারী ভোটার রয়েছে ১ লাখ ৬০ হাজার ৬৭৭ জন।

‘খেলা চলাকালীন সময়ে নির্বাচন নিয়ে কোনো কথা চাই না’

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের হয়ে নড়াইল ২ আসনে নির্বাচনের অংশ নেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণের পর প্রথমবারের মতো সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়েছেন বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। আজ মঙ্গলবার মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে তিনি জানান, ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে আসন্ন ওয়ানডে সিরিজ শেষে নির্বাচনের কার্যক্রম নিয়ে ভাববেন। আগামী ১৪ ডিসেম্বর ওয়ানডে সিরিজ না শেষ হওয়া পর্যন্ত খেলায়ই মনোযোগ দিতে চান তিনি।

নির্বাচনের জন্য অনুপ্রাণিত হবার বিষয়ে মাশরাফি বলেন, বিশ্বকাপ শুরু হতে আরও ৭/৮ মাস বাকি। বিশ্বকাপ শেষ হবার পর নির্বাচন আসবে আরও সাড়ে ৪ বছরের পর। এবারের নির্বাচন আমার কাছে সুযোগ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে সুযোগ দিয়েছেন আমার এলাকার জন্য কিছু কাজ করার। আর সেটিই কাজে লাগাতে চাই।

মাশরাফি বলেন, খেলা চলাকালীন সময় নির্বাচন নিয়ে কোনো কথা না হোক সেটা তিনি চান। তাই সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়েছেন। তিনি বলেন, আমি চাই না ম্যাচের আগের দিন ম্যাচ সংক্রান্ত প্রেস কনফারেন্সে আমাকে নির্বাচন বা রাজনীতি বিষয়ক কোনো প্রশ্ন করা হোক। যেহেতু সামনে ৬ তারিখে একটা অনুশীলন ম্যাচ ও পরে ৯ তারিখে প্রথম ওয়ানডে। তাই এ সময়ের মধ্যে আমাকে মিডিয়ার সামনে আসতেই হবে। তখন আমি চাই না ক্রিকেটের বাইরে কোনো কথা বলতে। আমি আজ এ ব্যাপারে কথা বললেও ১৪ তারিখ অর্থাৎ সিরিজের শেষ ওয়ানডে পর্যন্ত ক্রিকেটই আমার একমাত্র ধ্যান-জ্ঞান। এসময়ে যাতে ক্রিকেটের বাইরে কিছু ভাবতে না হয়, সে কারণেই আজকের প্রেস কনফারেন্স।

আগামী ৬ তারিখ ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে একটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবেন অধিনায়ক। ৯ ডিসেম্বর থেকে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টাইগারদের ওয়ানডে মিশন। সিরিজে ৩ টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ।