প্রচ্ছদ ইতিহাস-ঐতিহ্য ইতিহাসের জঘন্যতম ঘটনা: টাটার কাছে কত টাকা চেয়েছিল তারেক?

ইতিহাসের জঘন্যতম ঘটনা: টাটার কাছে কত টাকা চেয়েছিল তারেক?

1401
ইতিহাসের জঘন্যতম ঘটনা: টাটার কাছে কত টাকা চেয়েছিল তারেক?

২০০৫ সাল, ৮ মে। বিএনপি-জামাত জোট ক্ষমতায়। জ্বালানি উপদেষ্টা মাহমুদুর রহমান প্রচণ্ড ব্যস্ত। মিডিয়ার সব ক্যামেরা তাঁর দিকে।

মাহমুদুর রহমান ঘোষণা দিলেন, টাটা বাংলাদেশে ৩ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করবে। এটা হবে, বাংলাদেশে সবচেয়ে বড় বিদেশি বিনিয়োগ। টাটা এখানে সার কারখানা করবে, ইস্পাত কারখানা করবে। বাংলাদেশ নির্ধারিত মূল্যে ২৫ বছরের জন্য নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস সরবরাহ করবে। টাটা প্রতিনিধি দলের সঙ্গে উচ্ছ্বসিত জ্বালানি উপদেষ্টা। টাটার প্রতিনিধিরাও উচ্ছ্বসিত। প্রাথমিক এই প্রস্তাব নিয়ে আলোচনা চলল। গ্যাসের মূল্য নিয়ে চলল দরকষাকষি।

টাটা বিকল্প প্রস্তাব দিল। ৩ দশমিক ১০ মার্কিন ডলার প্রতি ঘনফুট গ্যাসের দাম নির্ধারিত হলো সার কারখানা প্রকল্পের জন্য। আর ২ দশমিক ৬০ ডলার স্টিল কারখানার জন্য। সংশোধিত প্রস্তাবে টাটা বাংলাদেশ সরকারকে ১০ শতাংশ মালিকানা দেবারও প্রস্তাব করল। আলোচনা চূড়ান্ত ধাপে পৌঁছাল। জ্বালানি উপদেষ্টা ঘোষণা করলেন অক্টোবরের মধ্যে তারা সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) স্বাক্ষর করবেন।

এর মধ্যে খবর এলো, তারেক রহমান টাটার উচ্চপদস্থ প্রতিনিধিদের সঙ্গে একান্তে বৈঠক করতে চান। টাটা খুশিই হলো। তারেকের ইচ্ছা বৈঠক করবেন ভারতে। টাটার তখন সর্বোচ্চ কর্তা রতন টাটা। রতন টাটা আনুষ্ঠানিকভাবে আমন্ত্রণ জানালেন তারেক রহমানকে। তারেক রহমান আমন্ত্রণ পত্র ছুড়ে দিলেন।

তিনি জানালেন, তিনি একা যাবেন না, তাঁর সঙ্গে যাবেন গিয়াসউদ্দিন আল মামুন এবং সিলভার সেলিম। টাটার মধ্যস্থতাকারীদের চোখ চড়কগাছ। এরা কারা? ঢাকায় ভারতীয় দুতাবাসের দ্বারস্থ হলেন টাটা। ভারতীয় দূতাবাস জানাল, এরা তারেকের ব্যবসায়িক পার্টনার।

টাটা তিনজনকে নিমন্ত্রণ পাঠালেন। তিনজন গেলেন টাটার সদর দপ্তরে। রতন টাটা তাঁদের অভ্যর্থনা জানালেন। টাটার সর্বশেষ প্রস্তাবের ওপর পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশন হলো। কথাবার্তা চলল কিছুক্ষণ। তারেক একপর্যায়ে জানালেন, তিনি একান্তে রতন টাটার সঙ্গে কথা বলতে চান।

একান্তে কথা বলার সময় তারেকের পাশ থেকে গিয়াসউদ্দিন আল মামুন সরাসরি প্রশ্ন করলেন, আমাদের কমিশন কত? রতন টাটা প্রথমে বুঝতে পারলেন না। তাঁকে এবার আরও স্পষ্ট করা হলো। রতন টাটা মনে করলেন, তরুণরা বোধহয় তাঁর সঙ্গে রসিকতা করছে। কিন্তু কিছুক্ষণ পর তাঁর ভুল ভাঙল।

রতন টাটা বললেন, এ ধরনের কমিশন দেওয়ার কোনো সিস্টেম টাটার নেই। তিনি বললেন, টাটার বিস্তৃতি বিশ্বব্যাপী। সর্বত্রই টাটা তার সুনাম নিয়ে কাজ করে। ঘুষ বা কমিশন টাটার রীতিবিরুদ্ধ।

তারেক নাছোড়বান্দা, বললেন, বাংলাদেশ সরকারকে ১০ শতাংশ মালিকানা দেওয়া হচ্ছে কিসের ভিত্তিতে? রতন টাটা জানালেন, এটি ইকুইটি পারটিসিপেশন। বিদেশি বিনিয়োগের জন্য এটা অপরিহার্য শর্ত। তারেক দাবি করলেন, ওই ১০ শতাংশ গিয়াসউদ্দিন মামুনের ওয়ান লিমিটেডের নামে দিতে হবে।

রতন টাটা ঝানু ব্যবসায়ী, বুঝলেন এরা বাংলাদেশের ক্যানসার। বুঝতে চাইলেন এদের দুর্নীতির গভীরতা কতটুকু। চেয়ার থেকে উঠে কফি নিলেন। কফিতে চুমুক দিয়েই অন্য খেলায় মেতে উঠলেন রতন টাটা।

জানতে চাইলেন, তোমাদের ডিমান্ড কী, অ্যাট এ গো তোমরা কত চাও? মামুন বললেন, ২০০ কোটি ডলার এখন, আর নির্বাচনের সময় ১০০ কোটি ডলার। রতন টাটা জানতে চাইলেন কীভাবে নেবে?

মামুন জানাল, আমাদের বিদেশে অ্যাকাউন্ট আছে, সেখানে। রতন টাটার মাথায় তখন খুন চেপেছে, তিনি জানতে চাইলেন কোন দেশে? মামুন বললেন, ‘দুবাই, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া’। রতন টাটা সবগুলো ব্যাংক ডিটেইলস চাইলেন। মামুন, তার ব্রিফকেস থেকে কাগজ বের করলেন। রতন টাটা কাগজটা নিয়ে জানালেন, সি ইউ সুন’।

বৈঠক থেকে বেরিয়ে যাবার সময় তারেক বলল, প্রথম টুকু ক্লিয়ার হবার পরই এমওইউ সাইন হবে। রতন টাটা করমর্দনের হাত বাড়িয়ে বললেন, ‘অফ কোর্স’।

তিনজনকে বিদায় দিয়ে, বৈঠকের কনফিডেনসিয়াল রিপোর্ট তৈরি করলেন রতন টাটা। ভারত সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে পাঠানো হলো গোপন নোট। আর এই নোট যেদিন দিল্লিতে পাঠানো হলো, সেদিনই টাটা আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়ে বাংলাদেশ প্রকল্প বাতিল ঘোষণা করল। রতন টাটার এই নোট শেষপর্যন্ত ড. মনমোহন সিং পর্যন্ত গিয়েছিল।

সম্পাদক/এসটি