প্রচ্ছদ রাজনীতি খালেদা জিয়া বললেন, ‘বি. চৌধুরী বুড়ো শয়তান, মাহী বেয়াদপ’

খালেদা জিয়া বললেন, ‘বি. চৌধুরী বুড়ো শয়তান, মাহী বেয়াদপ’

461
খালেদা জিয়া বললেন, ‘বি. চৌধুরী বুড়ো শয়তান, মাহী বেয়াদপ’

কারান্তরীণ বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, বদরুদ্দোজা চৌধুরী বুড়ো শয়তান, আর মাহী বি. চৌধুরী হলো বেয়াদপ।

আজ কারাগারে সাক্ষাৎ করতে আসা বিএনপির নেতাদের সঙ্গে জোট নিয়ে আলোচনার এক পর্যায়ে বেগম জিয়া এ মন্তব্য করেন।

আজ বিকেলে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার ও মির্জা আব্বাস খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের পুরোনো ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে যান।

সম্প্রতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে বেগম জিয়াকে আবার কারাগারে ফিরিয়ে আনা হয়েছে। আর চিকিৎসার জন্য বিএসএমএমইউ যাওয়ার আগে চলতি বছরের ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে তিনি এই কারাগারেই ছিলেন।

স্বারাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অনুমতি সাপেক্ষে কারাগারে যাওয়া বিএনপি নেতারা বেগম জিয়ার সঙ্গে সাম্প্রতিক রাজনীতি নিয়ে কথা বলেন। সাম্প্রতিক জোট নিয়ে নির্বাচনে যাওয়ার ঘোষণা, ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে জাতীয় ঐক্যজোট গঠন এবং বি. চৌধুরীর জোট থেকে বের হয়ে যাওয়ার প্রসঙ্গে তাদের মধ্যে কথা হয়। বি. চৌধুরী প্রসঙ্গ উঠতেই বেগম জিয়া রেগে যান।

বলেন, বি. চৌধুরী হলো একটা বুড়ো শয়তান। আর তাঁর ছেলে মাহী বি. চৌধুরী একটা বেয়াদপ।

উল্লেখ্য, গত বছরের শেষে যুক্তফ্রন্টের মধ্যে দিয়ে বি. চৌধুরী জোট গঠন করেন। পরে চলতি বছরের শুরুতে বি. চৌধুরীর সঙ্গে মির্জা ফখরুলের দহরম মহরমের বিষয়টি বেশ চোখে পড়ে। এমনকি ইফতার পার্টিতেও বি. চৌধুরী ও মির্জা ফখরুলকে একসঙ্গে চোখে পড়ে। তবে বছরের শেষ ভাগে এসে নির্বাচনের আগে আগে ড. কামালের সঙ্গে বিরোধ দেখা যায় বি. চৌধুরীর।

বিএনপির সঙ্গে জামাতের থাকা না থাকা প্রসঙ্গ নিয়ে তৈরি বিরোধের জেরে শেষপর্যন্ত যুক্তফ্রন্ট ছেড়ে ড. কামালের হঠাৎ সৃষ্ট জাতীয় ঐক্যফ্রন্টেই যোগ দেয় বিএনপি। তফসিল ঘোষণার চারদিন না পেরোতেই এক্যফ্রন্ট-যুক্তফ্রন্ট উভয়ই নির্বাচনে যোগ দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে। ঐক্যফ্রন্টের শরিক হিসেবে বিএনপি নির্বাচনে যাওয়ার ঘোষণার পর আজই প্রথম বেগম জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন বিএনপি নেতারা।

‘ক্ষমতা না, আ. লীগের পতন চাই’

বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, ‘আমি ক্ষমতা চাই না। শুধু আওয়ামী লীগের পতন চাই। এজন্য যা করা দরকার তাই করতে হবে। প্রয়োজনে সব আসন শরিকদের দিয়ে দেন, চরম ত্যাগ স্বীকার করুন, কিন্তু হাসিনাকে আর প্রধানমন্ত্রী দেখতে চাই না।’ আজ বিকেলে নাজিমউদ্দিন রোডের পুরোনো কারাগারে বিএনপির পাঁচ নেতাকে এই নির্দেশনা দেন বেগম খালেদা জিয়া।

আজ সকালে বেগম খালেদা জিয়ার পক্ষে তিনটি আসনের মনোনয়ন ফরম কেনেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বিকেলে ৪ নেতাকে সঙ্গে নিয়ে নাজিমউদ্দিন রোডে বিশেষ কারাগারে সাক্ষাৎ করেন বিএনপি নেতারা। প্রায় দুই ঘণ্টা বৈঠকে বেগম জিয়া নির্বাচন বিষয়ে বেশকিছু নির্দেশনা দেন। এই নির্দেশনার প্রধান বিষয় ছিল নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করা। বেগম জিয়া

ঐক্যের স্বার্থে বিএনপিকে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করার নির্দেশ দিয়েছেন বলে বৈঠকে অংশগ্রহণকারী এক নেতা জানিয়েছেন। বৈঠকে অংশগ্রহণকারীদের একজন জানিয়েছেন, বেগম জিয়া নির্বাচনে দলকে ঐক্যবদ্ধ রাখার উপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন। তিনি (বেগম জিয়া) গ্রেপ্তার হওয়ার পরও যে দল ভাঙেনি এজন্য বেগম জিয়া নেতাদের ধন্যবাদ জানান।

আসন ভাগাভাগি নিয়ে জোটে যেন কোনো মতবিরোধ না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে বলেন বেগম জিয়া। বেগম জিয়া সরকার বিরোধী জোটে শুধু অধ্যাপক বি. চৌধুরীর বিকল্পধারা বাদে সব দলকে নেওয়ার পরামর্শ দেন।

এরশাদের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পার্টিকেও ঐক্যে আনার চেষ্টা করতে বলেন বেগম জিয়া। ড. কামাল যেন নির্বাচন করেন, সেজন্য তাঁকে বোঝানোর পরামর্শ দেন বেগম জিয়া।

 সম্পাদক/এসটি